শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

অভিনয় ছাড়লেন দীঘি



dighiমায়ের মৃত্যুর পর থেকেই সিনেমা থেকে মন উঠে যায় বাংলা সিনেমার শিশু তারকা দীঘির। সেই থেকেই আস্তে আস্তে নিজিকে গুটিয়ে নেন তিনি। আর এবার ঘোষনা দিলেন আপাতত আর সিনেমা করবেন না ছোট্ট এ মিষ্টি মেয়েটি। অথচ হাতে গোনা মাত্র কয়েকটি সিনেমায় অভিনয় করেই এ পর্যন্ত তিন-তিনবার জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন তিনি।
বর্তমানে ধানমণ্ডির সাত নাম্বার রোডে স্কলাস স্কুল অ্যান্ড কলেজের চতুথ শ্রেণীর ছাত্রী দীঘি। তার মা নায়িকা দোয়েল এক সময়ের জনপ্রিয় নায়িকা। গত ২০১১ সালের ২৯ ডিসেম্বর ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে তিনি মারা যান।
গ্রামীণফোনের একটি বিজ্ঞাপনচিত্রে অভিনয় করে রাতারাতি তারকা বনে যায় শিশুশিল্পী দীঘি। এরপর কাজী হায়াতের ‘কাবুলিওয়ালা’ দিয়ে চলচ্চিত্রে অভিষেক তার। ২০০৬ সালে প্রথম চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য ‘শ্রেষ্ঠ শিশুশিল্পী’ হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করে সে। এরপর ২০০৮ সালে পিএ কাজলের ‘এক টাকার বউ’ এবং ২০১০ সালে ‘চাচ্চু আমার চাচ্চু’ ছবিতেও জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পায় দীঘি। তার অভিনীত শেষ চলচ্চিত্র এফআই মানিকের ‘স্বামী ভাগ্য’ ।
আর অভিনয় না করা প্রসঙ্গে দীঘি জানান, এখন আর অভিনয় করব না। আম্মু আমাকে পড়াশোনা করতে বলেছেন। তাই এখন শুধু পড়াশোনা করব। পরে অভিনয় করব কি না জানি না। এখন ভালো রেজাল্টের জন্য পড়াশোনা করব।
দীঘির বাবা অভিনেতা সুব্রত বলেন, দীঘির একটা ভবিষৎ আছে। সেটা শুধু চলচ্চিত্রের উপর নির্ভর করে রাখতে চাই না। তাই আপাতত অভিনয় থেকে দূরে রেখে তার পড়াশোনার ওপর জোর দিচ্ছি। পড়াশোনা শেষে সে যদি মিডিয়ায় ফিরতে চায় সেটা তার ইচ্ছের ওপর নির্ভর করবে। আপাতত পড়াশোনা ছাড়া দীঘিকে অন্য কোন কাজ করাব না।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত