বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বকুলছায়ায় চিরনিদ্রায় শায়িত রাষ্ট্রপতি



3েডস্ক িরেপার্ট : ৮৪ বছরের বর্ণাঢ্য জীবন শেষে লাখো মানুষের শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে বনানী কবরস্থানের বকুলছায়ায় চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন মরহুম রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান। ১৪৯৩/৮৩ নম্বর কবরটি মাথার দিকে একটি নারিকেল আর পায়ের কাছে রয়েছে বকুল ফুলের গাছ। বকুলের ছায়ায় ছেয়ে আছে পুরো কবরটি। এর চারপাশে রয়েছে মার্বেল পাথরের মোজাইক। শুক্রবার বিকেল ৩টা ৫৫ মিনিটে স্ত্রী আইভী রহমানের কবরেই রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয় প্রিয় রাষ্ট্রপতিকে। একই কবরে ২০০৪ সালে সমাহিত করা হয় রাষ্ট্রপতির সহধর্মীনি আইভী রহমানকে।
এসময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি অ্যাডভোকেট আবদুল হামিদ, স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, সেনা ও নৌ বাহিনীর প্রধান এবং বিমান বাহিনীর সহকারী প্রধান।
এর আগে শুক্রবার বিকেল দুইটায় শেষবারের মতো বঙ্গভবন থেকে রাষ্ট্রপতির কফিন নিয়ে যাওয়া হয় জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে। বেলা সোয়া দুইটায় জাতীয় পতাকায় মোড়া ও ফুলে ঢাকা সেনাবাহিনীর মরদেহবাহী গাড়িটি সেখানে পৌঁছে। লাল-সাদা আর কমলা-হলুদ গাঁদা ফুলে সাজানো লাশবাহী গাড়িটি জাতীয় ঈদগাহে পৌঁছার আগেই সেখানে অপেক্ষা করতে থাকেন লাখো মানুষ।
ভালোবাসার মানুষকে শ্রদ্ধা জানাতে জুমার নামাজের আগ থেকেই তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না এখানে। ঈদগাহ ময়দান ছাপিয়ে চারপাশের রাস্তায় দাঁড়িয়েই প্রিয় মানুষটির জন্য শেষবারের মতো প্রার্থনায় অংশ নিতে জমায়েত হন তারা।
সেখানে ২টা ৩২ মিনিটে অনুষ্ঠিত হয় দ্বিতীয় জানাজা। জানাজা পড়ান জাতীয় মসজিদের খতিব অধ্যাপক মাওলানা সালাহ্উদ্দিন। জানাজা শেষে বেলা ২টা ৪০ মিনিটে রাষ্ট্রপিতি জিল্লুর রহমানের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় তার শেষ ঠিকানা বনানী করবস্থানে। সেখানেই স্ত্রী আইভি রহমানের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত হন তিনি।
জানাজায় অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি অ্যাডভোকেট আবদুল হামিদ, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, মাহবুব উল আলম হানিফ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। এছাড়া ছিলেন তিন বাহিনীর প্রধানেরা ছাড়াও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থানীয় কমিটির সদস্য এমকে আনোয়ার, মির্জা আব্বাসসহ বিরোধী দলীয় নেতারা।
এর কিছুক্ষণ আগে উপস্থিত সবার কাছে বাবার জন্য দোয়া চেয়ে তার আজান্তেই যদি কোনো ভুল করে থাকেন সে জন্য সবাইকে ক্ষমা করে দেয়ার অনুরোধ জানান রাষ্ট্রপতির একমাত্র ছেলে নাজমুল হাসান পাপন এমপি।  বাবার কাছে কারো কোনো পাওনা থাকলে তা পরিশোধের প্রতিশ্রুতিও দিন।
উল্লেখ্য, সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বাংলাদেশ সময় গত বুধবার বিকেল চারটা ৪৭ মিনিটে রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান ইন্তেকাল করেন।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত