রবিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মিলান দুতাবাসে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপন



download (1)নাজমুল হুসেন, মিলান থেখে : ইতালির মিলানে বাংলাদেশ দুতাবাসে ৪২ তম মহান স্বাধীনতা দিবসে আলোচনা ও আলোকচিত্র প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে উদযাপিত হয়েছে.সকাল ১১ টায় দুতাবাসে দিবসের শুরুতে স্বাগত বক্তৈব্য রাখেন মিলান দুতাবাসের কাউন্সিলর দেওয়ান হুসেন আইয়ুব.মহামান্য রাষ্ট্রপতির বাণী পাঠ করেন দুতাবাসের কনসুলার এসিস্টেন্ট মো মুক্তার আহমেদ শেখ,মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন দুতাবাসের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা জুবায়দা নাসরিন।
স্বাগত বক্তব্যে বলেন, ১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চ পশ্চিম পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী যখন পূর্ব পাকিস্তানের নিরস্ত্র বাঙালিদের ওপর বর্বরের মতো ঘৃণ্য হামলা চালায়। সে রাতে পশ্চিম পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাতে পূর্ব পাকিস্তানের জনপ্রিয় নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বন্দি হন। পূর্ব পাকিস্তানের রাজনৈতিক নেতারা চলে যান আত্মগোপনে। জনগণ তখন কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়ে। এই সঙ্কটময় মুহূর্তে মেজর (তৎকালীন) জিয়াউর রহমান পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সঙ্গে সম্পর্ক ত্যাগ করে বিদ্রোহ করেন এবং ২৭ শে মার্চ তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষে চট্টগ্রামের কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা পত্র পাঠ করেন।
১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন থেকে স্বাধিকার আন্দোলন ও ১৯৭১ সালের স্বাধীনতার দীর্ঘ সংগ্রামে বারবার দেশের মাটি রক্তে ভিজিয়ে পবিত্র করেছেন বাংলা মায়ের দামাল ছেলেরা। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) ঐতিহাসিক ভাষণে বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষণা করেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ জাতিকে এ মুক্তির সংগ্রামে অংশ নিতে নির্দেশ দিয়ে তিনি যার যা কিছু আছে তা-ই নিয়ে শত্রুর বিরুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান জানান। ১৯৭১ সালে ২৫ মার্চ কালরাত থেকে পাকিস্তানি হানাদারদের পাশাপাশি তাদের এ দেশীয় দোসর শান্তি কমিটি, রাজাকার, আলবদর ও আলশামস বাহিনীর নিষ্ঠুর হামলার শিকার হয় বাঙালি জাতি।
অনুষ্টানে উপস্তিত ছিলেন দুতাবাসের বিদায়ী কনসাল জেনারেল আসাদ আলম সিয়াম, দুতাবাসের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মানিক রঞ্জন বড়ুয়া,দুতাবাসের জাকির হুসেন,মিলান আওয়ামীলীগের আকরাম হুসেন,শাহাদাত হুসেন সাহা,মহসিন কামাল মিলন,হারিস চৌধুরী,মুক্তিযুদ্ধা সিরাজুল ইসলাম গফফার,জাকির হুসেন,কমিউনিটি নেতা নাজমুল কবির জামান,সিরাজ খালাসী, সুলতান খান,যুবলীগ সভাপতি রফিকুল ইসলাম জামান,পারভেজ আহমেদ প্রমুখ. আলোচনা শেষে উপস্তিত সকলেই মহান স্বাধীনতার উপর আলকচিত্র প্রদরশন করেন।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত