রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

স্পেন দূতাবাসে অনিয়ম-হয়রানির প্রতিবাদে বিক্ষোভ



download (1)নাজমুল হোসাইন (স্পেন থেকে): স্পেন দূতাবাসে অনিয়ম, হয়রানি ও স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠেছে স্পেন প্রবাসী বাংলাদেশীরা।দূতাবাস প্রযোজনে প্রবাসীদের পাশে দাঁড়ানোর কথা থাকলেও স্পেনে বাংলাদেশের দূতাবাসে হয়রানি আর অনিয়মে অতিষ্ঠ প্রবাসীরা। এতে তারা ক্ষুব্ধ। এ ঘটনায় কমিউনিটির পক্ষ থেকে বারবার দূতাবাসে অভিযোগ করা হলেও কর্মকর্তারা একে অন্যের ওপর দোষ চাপিয়ে পার পাওয়ার চেষ্টা
করেন।এ সব ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে বাংলাদেশ কমিউনিটির রাজনৈতিক, সামাজিক, জেলা পর্যায়ের প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠন, সাংবাদিক নেতারা গত বুধবার এর প্রতিবাদে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের ঘোষণা দিয়ে মাঠে নেমেছেন।
গ্রেটার সিলেট অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে মমতাজমহল হলরুমে এ সুধী সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন- গ্রেটার সিলেট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম পিংকি। সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান সুন্দর ও যুগ্ম সম্পাদক সেলিম আলমের পরিচালনায় প্রায় ৩ ঘণ্টাব্যাপী আলোচনায় বারবার উঠে আসে প্রবাসীদের হয়রানির কথা।
কমিউনিটির নেতারা বলেন, ‘আমাদের আন্দোলন- সংগ্রামের ফসল এ দূতাবাস। প্রবাসীদের শ্রম, ঘামের বিনিময়ে দেশের অর্থনীতি সচল থাকছে। কিন্তু এখানে আমাদের প্রতিনিয়ত হয়রানি হতে হচ্ছে একটা পার্সপোর্ট বা সার্টিফিকেটের জন্য’।বক্তারা অভিযোগ করেন, রাষ্ট্রদূত মো. ইফতেখার মোমিন চৌধুরী দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে দূতাবাস ও বাংলাদেশী কমিউনিটির মধ্যে দূরত্ব তৈরি হয়েছে। তিনি কমিউনিটি থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন। শুধু রাষ্ট্রীয় দিবসে বিদেশিদের সঙ্গে নামমাত্র কয়েকজন নেতাকে নিমন্ত্রণ জানিয়ে দায় এড়ান।বক্তারা বলেন, ‘স্পেন সরকার কৃচ্ছতা সাধন করছে অর্থনৈতিক মন্দা থেকে বাঁচতে। সেখানে বিভিন্ন অনুষ্ঠান করে প্রবাসীদের কষ্টের বিনিময়ে অর্জিত অর্থের অপচয় রাষ্ট্রদূত’।
কমিউনিটির সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে আগামী ১০ দিনের মধ্যে দূতাবাসে হয়রানি, অনিয়ম বন্ধ না করলে পরবর্তীতে কঠোর কর্মসূচীর ঘোষণা দেয়া হবে জানানো হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট রাজনীতিক খোরশেদ আলম মজুমদার, বাংলাদেশ মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি জামাল উদ্দিন মনির, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি জিয়াউর রহমান খান, গোলাম সারওয়ার মিলন, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের জেনারেল সেক্রেটারী মিনহাজুল আলম মামুন, কমিউনিটি নেতা এম. সাখাওয়াত উল্লাহ, আকবর শেঠ, রাজনীতিক আকতার হোসেন আতা,
কমিউনিটি নেতা মো. শওকত আলী, মাওলানা আব্দুর রাজ্জাক, মো. দিদারুল আলম দিদার, বাংলাদেশ অ্যসোসিয়েশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান বিপ্লব, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কাশেম মুকুল, আইন ও আন্তর্জাতিক সম্পাদক মুমিন আহমেদ চৌধুরী, নির্বাহী সদস্য এম.এ জলিল খান, নারায়ণগঞ্জ সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. সোহেল ভূঁইয়া, ইসলামী ফোরাম অব স্পেনের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম, কমিউনিটি নেতা মুজিবুর রহমান ববি, শরীফ মনিরুজ্জামান মনির, মো. রিজভী আলম, মো. ইব্রাহীম খলিল নোমান, আনিস মুন্সি, মো. আরিফ হোসেন সরকার, মো. আব্দুল গফুর ফরিদ, ইকবাল বাহার, আব্দুর রহমান, বরিশাল সমিতির সভাপতি তালাত মাহমুদ উজ্জ্বল, ডা. দুলাল আহমেদ, ইনসান উদ্দিন আহমেদ, মো. জাকির হোসেন, গোলাম মোস্তফা জাহাঙ্গীর, মো. ফজলুল হক কেদন, মো. আব্দুল আজিজ, সেলিম সরকার, তরুণ কমিউনিটি নেতা এইচ. এম দবিরুল তালুকদার, মো. সেলিম রেজা, তমিজ উদ্দিন, মো. ফয়সল আহমেদ, মো. রেজাউল কবির হানিফ, মো. ফরহাদ উদ্দিন, কাজী হারুন-উর-রশিদ, মো. মনির মিয়া, নূর মিয়া, আলকাছ মিয়া, নজরুল ইসলাম, আবুল কালাম, আব্দুল মোতালেব বাবুল, এস.এম আক্তার হাসান, রেজাউর রহমান, মো. মাহবুবুর রহমান প্রমুখ।।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত