শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

‘বর্ষার সময় রাস্তা ডুবি গেলে ইশকুলে আইতে ডর লাগে’



এম. মছব্বির আলী : বর্ষায় টানা কয়েক মাস বিদ্যালয়ে যাতায়াতের কাঁচা রাস্তাটি পানিতে ডুবে থাকে। নৌকায় করেই তখন বিদ্যালয়ে যাওয়া-আসা করতে হয় শিক্ষার্থীদের। বর্ষা মৌসুমে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হয় জুড়ী উপজেলার হাকালুকি হাওরপারে অবস্থিত নিশ্চিন্তপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা এবার বর্ষার আগেই রাস্তাটি সংস্কারের আকুতি জানিয়েছে। এলাকাবাসী, শিক্ষার্থীসহ একাধিক সূত্র জানায়, সদর উপজেলার জায়ফরনগর ইউনিয়নের ভুয়াইবাজার-শাহগঞ্জ বাজার রাস্তা দিয়ে নিশ্চিন্তপুর বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা চলাচল করে। বর্ষা রমৗসুমে টানা বৃষ্টি এবং বিভিন্ন নদীর উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে হাকালুকি হাওর উপচে প্রায় ২ কিলোমিটার দীর্ঘ ভুয়াইবাজার-শাহগঞ্জ বাজার রাস্তাটি তলিয়ে যায়। জুন থেকে আগস্ট পর্যন্ত এই অবস্থা বিদ্যমান থাকে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সেখানে শিশু থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২২৮ জন। বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থী পূর্ণিমা দাস (১১) জানায়, বর্ষার সময় আমরার (আমাদের) খুউব (খুব) খষ্ট (কষ্ট) অয়। রাস্তা ডুবি (ডুবে) গেলে ইশকুলে আইতে (যেতে) ডর (ভয়) লাগে! বর্ষার আগে এই রাস্তা ঠিক (সংস্কার) অই (হয়ে) গেলে আমরার আর কষ্ট থাখতো (থাকবে) নায় (না)।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বীরেন্দ্র দাস জানান, বর্ষায় তিন মাস (জুন থেকে আগস্ট) পর্যন্ত ছাত্রছাত্রীদের চরম দুর্ভোগে পোহাতে হয়। তিনি শিক্ষার্থীদের কষ্টের কথা বিবেচনা করে অচিরেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত