বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মৌলভীবাজারে এসএসসি পরীক্ষায় পাশের হার ৮৮.৮৬



juri sscমৌলভীবাজার জেলা থেকে আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক জালাল আহমদ, এম. মছব্বির আলী ও পিন্টু দেবনাথের পাঠানো রিপোর্ট :
এবার মৌলভীবাজার জেলায় এসএসসি পরীড়্গায় মোট ১৩ হাজার ৭৭২ জন পরীড়্গার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১২ হাজার ২৩৮ জন। পাশের হার ৮৮.৮৬%। মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬৬০ জন। শ্রীমঙ্গলে ১৫৩ জন, মৌলভীবাজার সদরে ১৩৩, কুলাউড়ায় ৯০, কমলগঞ্জে ১৪০, জুড়ীতে ৬১, বড়লেখায় ৬২ এবং রাজনগরে ২১ জন। গত কয়েক বছর মেয়েদের পাশের হার বেশি থাকলেও এ বছরে ছেলেদের পাসের হার ৯০.৮০% এবং মেয়েদের ৮৭.৫০%।
সিলেট বোর্ডের শীর্ষ ২০-এর মধ্যে মেধা তালিকায় স্থান করে নিয়েছে জেলার ৫ টি স্কুল। ৭ম স্থান অধিকার করেছে শ্রীমঙ্গলের দি বার্ডস রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যা- কলেজ, ১০ম স্থান অধিকার করেছে শ্রীমঙ্গলের বিটিআরআই উচ্চ বিদ্যালয়। ১৪তম স্থান অধিকার করেছে মৌলভীবাজারের দি ফ্লাওয়ার্স কেজি অ্যা- হাই স্কুল, ১৫তম স্থান অধিকার করেছে মৌলভীবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, ১৯তম স্থান অধিকার করেছে কমলগঞ্জের তাঁতীগাঁও হাজী রাশিদ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়।
এদিকে মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ডে দাখিল পরীক্ষায় জেলায় ২ হাজার ৪৬৬ জন পরীড়্গার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ২ হাজার ১৫৪ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে সদরে ১১ জন, শ্রীমঙ্গলে ৬, রাজনগরে ১, বড়লেখায় ১৭, কুলাউড়ায় ১০ জন, কমলগঞ্জ ও জুড়ীতে কেউ জিপিএ-৫ পায়নি।
অপরদিকে জেলায় শতভাগ সফলতা অর্জন করেছে রাজনগর উপজেলার আব্দুল মোক্তাদির একাডেমী, সদর উপজেলার পদুনাপুর উচ্চ বিদ্যালয, শ্রীমঙ্গল উপজেলার দি বার্ডস রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যা- কলেজ ও হাজী রশিদ উদ্দিন মেহেরম্নন্নেছা উচ্চ বিদ্যালয়। কুলাউড়া উপজেলায় বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয় ও মাস্টার সরাফত আলী উচ্চ বিদ্যালয়। জুড়ীতে পাতিলাসাঙ্গন উচ্চ বিদ্যালয়, হাজী ইনজাত আলী উচ্চ বিদ্যালয়, জায়ফরনগর উচ্চ বিদ্যালয়, মনোহর আলী এম সাইফুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়। কমলগঞ্জ উপজেলায় আবুল ফজল উচ্চ বিদ্যালয়, পদ্মা মেমোরিয়ার উচ্চ বিদ্যালয়, হাজী উসত্মার উচ্চ বিদ্যালয়, অভয়চরণ উচ্চ বিদ্যালয়। বড়লেখা উপজেলায় পয়লোয়ানবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় ও গাংকুল পঞ্চগ্রাম আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়।
মাদ্রাসায় শতভাগ সফলতা অর্জন করেছে শ্রীমঙ্গল সিরাজনগর মাদ্রাসা ও আনোয়ারম্নল উলুম ফাজিল মাদ্রাসা, সদরে হাজী মুজেফর ইসলামী দাখিল মাদ্রাসা, বড়লেখা চান্দগ্রাম সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসা, জুড়ীর নয়াগ্রাম শিমুলতলা দাখিল মাদ্রাসা।
এদিকে জেলার কমলগঞ্জের ৩টি পরীক্ষা কেন্দ্রের ১৯টি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৪০ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। কমলগঞ্জ উপজেলায় পাসের হার ৯৩.৫৭ শতাংশ। এর মধ্যে শতভাগ পাস করেছে ৪টি স্কুল। উপজেলায় মোট ১৮৯৮ জন পরীক্ষার্থীদের মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১৭৭৬ জন।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্র জানায়, উপজেলার ১৩টি বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ প্রাপ্তরা হচ্ছে-তেতইগাঁও রশিদ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৩৬ জন, দয়াময় সিংহ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২৩, কমলগঞ্জ মডেল বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৬, হাজী উসত্মার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১২, পদ্মা মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১১, ভান্ডারীগাঁও উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৮, এমএ ওহাব উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৮, কমলগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৭, এএটিএম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৬, কালীপ্রসাদ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৬, পতনউষার উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৪, কামুদপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২ এবং মাধবপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১ জন।
অপরদিকে জেলার জুুড়ী উপজেলায় ২ টি কেন্দ্রে এসএসসিতে পাসের হার ৯২.৫৯%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬১ জন। দাখিলে পাসের হার ৮৮.১৩%। ৪টি বিদ্যালয় ও ২টি মাদ্রাসা শতভাগ সাফল্য অর্জন করেছে।
জুড়ী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ১১টি বিদ্যালয়ের ৮৬৫জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ৯টি জিপিএ-৫ সহ উত্তীর্ণ হয়েছে ৮১৫ জন। পাসের হার ৯৪.২২%। তন্মধ্যে শতভাগ ফলাফল অর্জনকারী ৪টি বিদ্যালয় হচ্ছে জায়ফরনগর উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪টি জিপিএ-৫ (বিজ্ঞান) সহ ৭৬ জন, পাতিলাসাঙ্গন উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪৯ জন, হাজী মনোহর আলী এম সাইফুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪৫ জন ও হাজী ইনজাদ আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪৫ জনের সকলেই উত্তীর্ণ হয়।
অন্যান্য বিদ্যালয়ের মধ্যে জুড়ী মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে ২৮৫ জনে ৪৫টি জিপিএ-৫ (বিজ্ঞান ২৩ ও বাণিজ্য ২২) সহ উত্তীর্ণ হয় ২৬৯ জন। পাসের হার ৯৪.৩৮%। মক্তদীর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৫৬ জনে ৮টি এ+ (বিজ্ঞান ৭, মানবিক ১) সহ উত্তীর্ণ হয় ৪৮ জন। পাসের হার ৮৫.৭১%। শিলুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮৭ জনে ১টি এ+ (মানবিক) সহ উত্তীর্ণ হয় ৮২ জন। পাসের হার ৯৫.২৫%। ছোট ধামাই উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪৩ জনে ১টি এ+ (বিজ্ঞান) সহ উত্তীর্ণ হয় ৪০ জন। পাসের হার ৯৩.০২ হোছন আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪০ জনে উত্তীর্ণ হয় ৩৮ জন। পাসের হার ৯৫%। কচুরগুল উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩৮ জনে উত্তীর্ণ হয় ৩৫ জন। পাসের হার ৯২.১০% এবং নীরোদ বিহারী উচ্চ বিদ্যালয়ে ১০১ জনে উত্তীর্ণ হয় ৮৮ জন। পাসের হার ৮৭.১৩%।
অপরদিকে ফুলতলা বশির উলস্নাহ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৩টি বিদ্যালয়ের ২৯৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৩টি এ+ সহ ২৬০ জন উত্তীর্ণ হয়। পাসের হার ৮৭.৮৪%। তন্মধ্যে সাগরনাল উচ্চ বিদ্যালয়ে ১১০ জনে ২টি এ+ (বিজ্ঞান) সহ উত্তীর্ণ হয় ৯২ জন। পাসের হার ৮৩.৬৪%। ফুলতলা বশির উলস্নাহ উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৩১ জনে ১টি এ+ (বিজ্ঞান) সহ উত্তীর্ণ হয় ১২০ জন। পাসের হার ৯১.৬০% এবং রাঘনা-বটুলী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৫৫ জনে ৪৮ জন উত্তীর্ণ হয়। পাসের হার ৮৭.২৭%।
এদিকে দাখিলে জুড়ী কেন্দ্রে ২৭৮ জনের মধ্যে ২৪৫জন উত্তীর্ণ হয়। পাসের হার ৮৮.১৩%। কোন এ+ নেই। ২টি মাদ্রাসা শতভাগ ফলাফল অর্জন করে। এর মধ্যে নয়াগ্রাম শিমুলতলা দাখিল মাদ্রাসায় ২৬ জন এবং মুছাওয়ীর দাখিল মাদ্রাসায় ৬ জনের সকলেই পাস করে। অন্য মাদ্রাসার মধ্যে সাগরনাল সিনিয়র মাদ্রাসায় ৬৩ জনে উত্তীর্ণ হয় ৫৭ জন। পাসের হার ৯০.৪৮%। হযরত শাহখাকী (র:) মাদ্রাসায় ৪৫ জনে উত্তীর্ণ হয় ৪০জন। পাসের হার ৮৮.৮৯%। জায়ফরনগর মহিলা মাদ্রাসায় ২০ জনে উত্তীর্ণ হয় ১৭ জন। পাসের হার ৮৫%। নয়াবাজার আহমদিয়া ফাজিল মাদ্রাসায় ৭২ জনে উত্তীর্ণ হয় ৬১ জন। পাসের হার ৮৪.৭২%, শাহপুর মাদ্রাসায় ১৯ জনে উত্তীর্ণ হয় ১৬ জন। পাসের হার ৮৪.২১% এবং জাঙ্গিরাই দাখিল মাদ্রাসায় ২৭জনে উত্তীর্ণ হয় ২২ জন। পাসের হার ৮১.৪৮%।
কমলগঞ্জে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৪০ জন : পাসের হার ৯৩.৫৭ শতাংশ:
এবারের এসএসসি পরীক্ষায় সিলেট শিক্ষা বোর্ডের অধীনে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ৩টি পরীক্ষা কেন্দ্রের ১৯টি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মোট ১৪০ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। কমলগঞ্জ উপজেলায় পাসের হার ৯৩.৫৭ শতাংশ। এর মধ্যে শতভাগ পাস করেছে ৪টি স্কুল। এ উপজেলায় মোট ১৮৯৮ জন পরীক্ষার্থীদের মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১৭৭৬ জন। কমলগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, কমলগঞ্জ উপজেলার ১৩টি বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ প্রাপ্তরা হচ্ছেন- তেতইগাঁও রশিদ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৩৬ জন, দয়াময় সিংহ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২৩ জন, কমলগঞ্জ মডেল বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৬ জন, হাজী উস্তার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১২ জন, পদ্মা মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১১ জন, ভান্ডারীগাঁও উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৮ জন, এম, এ, ওহাব উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৮ জন, কমলগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৭ জন, এ,এ,টি, এম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৬ জন, কালীপ্রসাদ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৬ জন, পতনউষার উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৪ জন, কামুদপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২ জন ও মাধবপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে।
সিলেট শিক্ষা বোর্ডে ১৯ তম স্থান অর্জন করেছে কমলগঞ্জের তেতইগাঁও রশিদ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়:
এবারের এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলে সিলেট শিক্ষা বোর্ডের অধীনে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর তেতইগাঁও রশিদ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় সম্মিলিত মেধা তালিকায় ১৯তম স্থান অর্জন করেছে। ৩৬টি জিপিএ-৫ সহ বিদ্যালয়ের শতভাগ শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়েছেন। বিদ্যালয়ের ফল প্রকাশের পর শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে উল্লাস দেখা দেয়। তেতইগাঁও রশিদ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: আব্দুল মতিন জানান, তাঁর বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহনকারী ১২৩ জন শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৩৬ টি জিপিএ-৫সহ উত্তীর্ণ হয়েছে ১২১ জন। পাসের হার ৯৮.৩৭ ভাগ। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের নিয়মিত পাঠদান, পড়াশুনায় মনোনিবেশ, বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি ও অভিভাবকদের সহায়তায় বিদ্যালয়ের সার্বিক পরিবেশ ভালো রাখতে এবং শিক্ষক শিক্ষিকাদের অক্লান্ত পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে বিদ্যালয়ের ফলাফলে তারা সন্তুষ্ট বলে মন্তব্য করেন।
কমলগঞ্জে শতভাগ পাস করেছে ৪টি বিদ্যালয়:
এবারের এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলে সিলেট শিক্ষা বোর্ডের অধীনে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ৪টি বিদ্যালয়ে শতভাগ পাস করেছে। এর মধ্যে ১২টি জিপিএ-৫ সহ হাজী উস্তার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ১১টি জিপিএ-৫ সহ পদ্মা মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়, জিপিএ-৫ ছাড়া আবুল ফজল চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয় ও অভয়চরন উচ্চ বিদ্যালয় শতভাগ পরীক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়েছেন। এ বছর কমলগঞ্জ উপজেলায় ১৮৯৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৭৭৬ জন শিক্ষার্থী উত্তীর্ন হয়েছেন। এর মধ্যে ১৩টি বিদ্যালয়ে ১৪০টি জিপিএ-৫ রয়েছে। কমলগঞ্জ উপজেলায় পাসের হার ৯৩.৫৭ ভাগ।
আলাপকালে কমলগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ জাহাঙ্গীর আলম সাংবাদিকদের কাছে ফলাফলে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে এক প্রতিক্রিয়া জানান, জেলা শিক্ষা অফিসারের নির্দেশনায় ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের সহযোগীতায় প্রত্যেক বিদ্যালয়ে উদ্বুদ্ধকরণ সভা করে শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকদের সচেতন করা হয়েছিল।
কুলাউড়ায় এসএসসি পরীক্ষায় ২১৯৩ এবং দাখিল পরীক্ষায় ৪৮০ জন উত্তীর্ণ:
কুলাউড়া উপজেলার নবীন চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় ও পৃথিমপাশা আলী আমজদ উচ্চ বিদ্যালয় এবং জালালাবাদ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রসহ ৩ কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলে মোট ২৪৮৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২১৯৩জন উত্তীর্ন হয়েছে। এর মধ্যে ১৪টি স্কুলের ৯০ জন জিপিএ -৫ পেয়ে কৃতিত্ব অর্জন করেছে। অপরদিকে মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে মনসুর মোহাম্মদীয়া সিনিয়র মাদ্রাসা কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত দাখিল পরীক্ষার ফলাফলে মোট ৫৩৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৪৮০ জন উর্ত্তীন হয়েছে। এরমধ্যে ৬ মাদ্রাসার ১০ জন জিপিএ-৫ পেয়ে কৃতিত্ব অর্জন করেছে। এছাড়া মাষ্টার শরাফত আলী উচ্চ বিদ্যালয় ও বঙ্গবন্ধু আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় এবং ভাটেরা সাইফুল তাহমিনা দাখিল মাদ্রাসাসহ ৩ প্রতিষ্টান ফলাফলে শতভাগ সাফল্য অর্জনে সক্ষম হয়েছে।
কুলাউড়া কেন্দ্র-১ নবীন চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র সচিব উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ আনোয়ার জানান, চলতি সনের এসএসসি পরীক্ষায় উক্ত কেন্দ্র থেকে ১৪ স্কুলের ১০৭০ জন পরীক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে। এর মধ্যে ৯০৭ জন উত্তীর্ন হয়েছে। উত্তীর্নদের মধ্যে কুলাউড়া নবীনচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় ২৪, কুলাউড়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ১১, বরমচাল স্কুল এন্ড কলেজ ২, মহতোছিন আলী উচ্চ বিদ্যালয় ২, ভূকশিমইল স্কুল এন্ড কলেজ ৪, মাহতাব ছায়েরা উচ্চ বিদ্যালয় ৩ জনসহ মোট ৬ স্কুলের ৪৬ জন জিপিএ-৫ পেয়ে কৃতিত্ব অর্জন করেছে।
কুলাউড়া কেন্দ্র-২ আলী আমজদ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র সচিব প্রধান শিক্ষক আব্দুল কাদির জানান, উক্ত কেন্দ্র থেকে ১৩ স্কুলের ৯৯৫জন পরীক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে। এর মধ্যে ৯০১জন উত্তীর্ন হয়েছে। উত্তীর্নদের মধ্যে আলী আমজদ উচ্চ বিদ্যালয় ৯, কানিহাটি উচ্চবিদ্যালয় ৫, নয়াবাজার কেসি উচ্চবিদ্যালয় ৪, গজভাগ আহমদ আলী উচ্চ বিদ্যালয় ৩, রাউৎগাও উচ্চ বিদ্যালয় ২, টিলাগাও উচ্চ বিদ্যালয় ২জনসহ মোট ৬ স্কুলের ২৫ জন জিপিএ-৫ পেয়ে কৃতিত্ব অর্জন করেছে।
কুলাউড়া কেন্দ্র-৩ জালালাবাদ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র সচিব প্রধান শিক্ষক মোঃ মুজাহিদুল ইসলাম জানান উক্ত কেন্দ্র থেকে ৬ স্কুলের ৪২৩জন পরীক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে। এরমধ্যে ৩৮৫জন উত্তীর্ন হয়েছে। উত্তীর্নদের মধ্যে জালালাবাদ উচ্চ বিদ্যালয় ১৬জন ও শ্রীপুর উচ্চ বিদ্যালয় ৩জনসহ মোট ২ স্কুলের ১৯ জন জিপিএ-৫ পেয়ে কৃতিত্ব অর্জন করেছে। অপরদিকে মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ডের অধীনে অনুষ্টিত মনসুর মোহাম্মদিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা কেন্দ্র সচিব অধ্যক্ষ জালাল আহমদ খান জানান, চলতি বছরের দাখিল পরীক্ষায় ১৬টি মাদ্রাসার ৫৩৬ জন পরীক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে। এর মধ্যে ৪৮০ জন পরীক্ষার্থী উত্তীর্ন হয়েছে। উত্তীর্নদের মধ্যে ভূকশিমইল আলীম মাদ্রাসা ৩, বাবনিয়া হাসিমপুর দাখিল মাদ্রাসা ১, রবিরবাজার দারুচ্ছুন্নাহ আলীম মাদ্রাসা ২, শ্রীপুর সিনিয়র মাদ্রাসা ১, ভাটেরা ডিএস দাখিল মাদ্রাসা ২, চৌধুরীবাজার দাখিল মাদ্রাসা ১ জনসহ মোট ৬ মাদ্রাসার ১০জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়ে কৃতিত্ব অর্জন করেছে। এর মধ্যে বঙ্গবন্ধু আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে ২৫ জনের মধ্যে ২৫ জন ও মাষ্টার শরাফত আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৩ জনের মধ্যে ১৩ জন এবং ভাটেরা সাইফুল তাহমিনা দাখিল মাদ্রাসার ২৮ জনের মধ্যে ২৮ জন পরীক্ষার্থী উত্তীর্ন হয়ে উপজেলার মধ্যে শতভাগ ফলাফলে সাফল্য অর্জন করেছে। এসএসসি পরীক্ষায় উপজেলায় মোট পাশের হার ৮৮.১৪% এবং দাখিল পরীক্ষায় পাশের হার ৮৯,৫৫%।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত