সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

অবশেষে রাশিয়ার কাছে মাথা নোয়ালো যুক্তরাষ্ট্র



full_2079357303_1450334273আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদকে ক্ষমতায় রেখেই সিরীয় সংকট সমাধানে রাজি হয়েছে ওয়াশিংটন। এত কার্যত রাশিয়ার কাছে মাথাই নোয়ালো যুক্তরাষ্ট্র।
স্থানীয় সময় মঙ্গলবার মস্কোয় রুশ প্রেসিডেন্ট ভ­াদিমির পুতিনের সঙ্গে বৈঠকের পর এ কথা জানিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র ও আমাদের মিত্ররা সিরিয়ায় ক্ষমতার পালাবদল চায় না।’ বুধবার ফক্স নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়, মঙ্গলবার মস্কো সফরে গিয়ে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ল্যাভরভ ও প্রেসিডেন্ট পুতিনের সঙ্গে বৈঠক করেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি। পরে এক দ্বিপাক্ষিক সংবাদ সম্মেলনে তিনি সিরিয়া বিষয়ে রাশিয়ার সঙ্গে একযোগে কাজ করার কথা জানান।
জন কেরি বলেন, আমরা রাজনৈতিক প্রক্রিয়ার ওপর জোর দিচ্ছি যাতে সিরিয়ার নাগরিকরা তাদের দেশের ভবিষ্যতের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে পারে। সিরিয়া শান্তি আলোচনা এগিয়ে নিতে একটি প্রস্তাব অনুমোদনের লক্ষ্যে আগামী শুক্রবার নিউইয়র্কে বিশ্বশক্তিগুলোর সঙ্গে বৈঠকে বসার কথাও জানিয়েছে মস্কো ও ওয়াশিংটন। শান্তিপূর্ণ উপায়ে সিরিয়াকে প্রতিদিনকার এমন সহিংস পরিস্থিতি থেকে বের করে আনতে একযোগে কাজ করতে রাজি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া।
তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র ও মিত্ররা এখন আর অবিলম্বে আসাদ সরকারের পতন চায় না। তবে বিরোধীদের সরকার পরিবর্তনের দাবির কারণে শান্তি আলোচনা শুরু করা জটিল হয়ে পড়েছে। তাছাড়া, আমাদের মনে হয় না, সিরিয়ায় প্রায় ৫ বছরের গৃহযুদ্ধের পর ভবিষ্যতে দেশের নেতৃত্ব দেয়ার ক্ষমতা প্রেসিডেন্ট আসাদের থাকবে। কিন্তু আসাদের ব্যাপারে কী করা হবে না হবে সে বিষয়ে এখন আমরা গুরুত্ব দিচ্ছি না।
রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ল্যাভরভ জানান, সিরিয়ায় জঙ্গিদের তালিকা প্রণয়নের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনার অগ্রগতি হয়েছে। তিনি বলেন, ভিয়েনায় গত নভেম্বরে সিরিয়া বিষয়ক আলোচনার আলোকে একটি জাতিসংঘ প্রস্তাব গ্রহণের জন্য আগামী ১৮ ডিসেম্বর নিউইয়র্কে বৈঠকে বসতে আমরা রাজি হয়েছি। আশা করি আগামী বৈঠকে সিরিয়া সরকারের সঙ্গে আলোচনার জন্য বিরোধীদের একটি প্রতিনিধি দল গঠনের বিষয়ে সমঝোতা হবে। গত সেপ্টেম্বর মাস থেকে রাশিয়া বাশার সরকারের সহায়তায় সিরিয়ায় বিমান হামলা শুরু করে। রাশিয়ার দাবি, তাদের আক্রমণের লক্ষ্যবস্তু আইএসসহ ‘সন্ত্রাসীদের আস্তানা’। তবে যুক্তরাষ্ট্র ও মানবাধিকারকর্মীদের অনেকেই বলছেন, এ পর্যন্ত বেশির ভাগ ক্ষেত্রে রাশিয়ার বিমান হামলার লক্ষ্যবস্তু হয়েছে পশ্চিমা-সমর্থনপুষ্ট বিদ্রোহী দলগুলো।
অন্যদিকে গত বছরের সেপ্টেম্বর মাস থেকে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে সিরিয়ায় আইএসের বিরুদ্ধে হামলা চলছে। তবে সিরিয়ার সরকারের সঙ্গে কোনো ধরনের সমন্বয় ছাড়াই চলছে সেই হামলা।
এদিকে, সিরিয়ার আলেপ্পোয় রুশ বিমান হামলায় অন্তত ৩৪ জন নিহত হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস। মঙ্গলবার আলেপ্পোয় আসাদবিরোধী বিদ্রোহী অধ্যুষিত এলাকায় দুটি বাজারে বিমান হামলায় বেশ কয়েকজন বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যু হয়।
উল্লেখ্য, সিরিয়ায় ২০১১ সালের মার্চে গৃহযুদ্ধ শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত আড়াই লাখেরও বেশি লোক প্রাণ হারিয়েছে। বাস্তুচ্যুত হয়েছে লাখ লাখ লোক। এএফপি, সিএনএস।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত