বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শ্রীমঙ্গলে সমাজসেবা কর্মকর্তাকে উৎকোচ না দেওয়ায় মুক্তিযোদ্ধার সম্মানী ভাতা বন্ধ!



gov_5272_10848শ্রীমঙ্গল সংবাদদাতা ::
সরকারি একজন কর্মকর্তাকে অনৈতিক সুবিধা না দেওয়ায় বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে একজন মুক্তিযোদ্ধার সম্মানী ভাতা। এতে করে চরম দূর্ভোগে দিনানিপাত করছেন মুক্তিযোদ্ধা পরিবারটি। গতকাল শনিবার মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেন মুক্তিযোদ্ধা মো. আলী আশরাফ।
মুক্তিযোদ্ধা মো. আলী আশরাফ লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করেন, শ্রীমঙ্গল উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. আসিকুজ্জামান তাঁর কাছে ৫ হাজার টাকা উৎকোচ না পেয়ে তাকে তাঁর চলমান মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা ব্যাংকের চিঠি দিয়ে বন্ধ করে দেয়ায় তিনি চরম দূর্ভোগে দিনানিপাত করছেন। এছাড়াও বিগত বিএনপির শাসন আমলে তৎকালীন সমাজ কল্যান মন্ত্রী বর্তমানে মানবতা বিরোধী অপরাধে ফাঁসি হয়ে যাওয়া জামাতের সেক্রেটারী আলী আহছান মুজাহিদ এর তদারকির মাধ্যমে শ্রীমঙ্গল উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. আসিকুজ্জামান চাকুরীপ্রাপ্ত হয়েছেন বলে মুক্তিযোদ্ধা আলী আশরাফ লিখিত বক্তব্যে বলেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে চাঁদপুর জেলার কচুয়া উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামের মৃত ছৈয়দ আলী মাষ্টারের পুত্র মুক্তিযোদ্ধা মো. আলী আশরাফ জানান তিনি দীর্ঘদিন যাবত বাড়ি তৈরি করে শ্রীমঙ্গল শহরের জালালিয়া সড়কে সপরিবারে বসবাস করে আসছেন। মুক্তিযোদ্ধকালীন সময়ে তিনি চাঁদপুর অঞ্চলে যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। তাঁর নাম কল্যাণ ট্রাষ্ট, ভলিয়ম নং-৪, ক্রমিক নং-৩৪৪২৮, গেজেট নং-১৪৯৬, তারিখ : ২১/০৫/২০০৫খ্রি., মুক্তিবার্তা নং-০২০৪০৫০২২০ তাঁর নাম তালিকাভূক্ত রয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয় হতে সাময়িক সনদপত্র যার স্মারক নং-মুবিম/সা/চাঁদপুর/প্রা-৩/২০/২০০২৫/৪২৯, তারিখ-২৪/০৩/২০০৩খ্রি. তিনি পেয়েছেন। তিনি দীর্ঘদিন যাবত সপরিবারে শ্রীমঙ্গল শহরে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন এ কারণে তিনি নিজ জেলায় মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা গ্রহণ না করে শ্রীমঙ্গলে তাঁর জাতীয় পরিচয়পত্র, নাগরিক সনদপত্র, বাড়ির দলিলপত্র ইত্যাদি কাগজাত দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা পাওয়ার জন্য শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে একটি লিখিত আবেদন করেন। আবেদনটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় হতে মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে প্রেরণ করা হয়। সেখানে তাঁন সকল কাগজপত্র যাছাই-বাছাই পূর্বক মো. আলী আশরাফকে সম্মানী ভাতা প্রদানের সিদ্ধান্ত হয় এবং ২০১৩ সালের ১৯ আগস্ট তা বাস্তবায়নের জন্য শ্রীমঙ্গল উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ে প্রেরিত হয়। মুক্তিযোদ্ধা আলী আশরাফ শ্রীমঙ্গল উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ে যোগাযোগ করলে সমাজসেবা কর্মকর্তা তাঁর কাছে ৫ হাজার টাকা উৎকোচ দাবি করেন বলে অভিযোগ আলী আশরাফের। তিনি টাকা দিতে অস্বীকার করেন। এ কারনে মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতার বই তাঁকে না দিয়ে কালক্ষেপন করতে থাকেন। এ অবস্থায় মুক্তিযোদ্ধা আলী আশরাফ ২০১৩ সালের ২৭ অক্টোবর জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি আবেদন করেন। এ আবেদনের প্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমাকে সম্মানী ভাতার বই প্রদানের জন্য উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. আসিকুজ্জামানকে নির্দেশ দিলে তিনি বই প্রদান করেন। এরপর থেকে তিনি যথারীতি সম্মানী ভাতা পেয়ে আসছেন। গত বছরের ২৪ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধা আলী আশরাফ মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা উত্তেলনে সোনালী ব্যাংক শ্রীমঙ্গল শাখায় গেলে তাঁকে জানানো হয় উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা ভাতা বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য সচিব মো. আসিকুজ্জামান স্বাক্ষরিত ব্যাংক ব্যবস্থাপক বরাবরে প্রেরিত এক পত্রে (পত্র নং-৮২৪/২০১৫, তারিখ-২২ ডিসেম্বর ২০১৫খ্রি.) বীর মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা বিতরণ নীতিমালা ২০১৩ এর প্রার্থী বাছাই পদ্ধতি ‘গ’ ধারা মোতাবেক মুক্তিযোদ্ধা আলী আশরাফের সম্মানী ভাতা বন্ধ করা হয়েছে।
মুক্তিযোদ্ধা আলী আশরাফ লিখিত বক্তব্যে জানান, বীর মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা বিতরণ নীতিমালা ২০১৩ এর প্রার্থী বাছাই পদ্ধতি ‘গ’ ধারায় উলে¬খ করা হয়েছে ‘মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা গ্রহণে আগ্রহী প্রার্থীগণ সংশি¬ষ্ট জেলার জেলা প্রশাসক, সিটি কর্পোরেশনের ক্ষেত্রে সংশি¬ষ্ট জেলা প্রশাসক, পৌরসভা ও উপজেলার ক্ষেত্রে সংশি¬ষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসারগণের নিকট নির্ধারিত ফরমে আবেদনপত্র দাখিল করবেন। তবে একই নীতিমালার ‘ক’ ধারায় উল্লেখ রয়েছে ‘পূর্ব থেকে যারা সম্মানী ভাতা গ্রহণ করেছেন তাঁদের সম্মানী ভাতা প্রদান অব্যাহত থাকবে।’ মুক্তিযোদ্ধা আলী আশরাফ বলেন ‘যেহেতু আমি নীতিমালা প্রণয়নের পূর্ব থেকেই সম্মানী ভাতা প্রাপ্ত সেহেতু আমার ভাতা বন্ধ হবার কোন কারন নেই। শুধুমাত্র উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. আসিকুজ্জামানকে তাঁর দাবিকৃত ৫ হাজার টাকা উৎকোচ প্রদান না করায় তিনি বারবার আমার সাথে এ ধরণের আচরণ করে চলেছেন।’

এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. আসিকুজ্জামান বলেন ‘তিনি প্রায় এক বছর যাবত আমাকে ডিস্টার্ব করে আসছেন। তিনি আমার বিরুদ্ধে অযথা ৫ হাজার টাকার অভিযোগ উত্থাপন করেছেন।
শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ছাইদুল হক জানান, এখানে নীতিমালার বাইরে কিছুই করা হয়নি। নীতিমালা অনুযায়ী তিনি যে জেলার বাসিন্দা সে জেলা বা উপজেলা থেকে সম্মানী ভাতা নেবার কথা। উৎকোচ ব্যাপারে তিনি বলেন এটা তাদের ব্যক্তিগত ব্যাপার।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত