সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

শিশু হত্যা-ধর্ষণ-অপহরণের ঘটনা বাড়ার হার আশঙ্কাজনক



14নিউজ ডেস্ক :: গত চার বছরে নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছে এক হাজারেরও বেশি শিশু। আর ধর্ষণের শিকার প্রায় এক হাজার। এর সঙ্গে হঠাৎ করেই কয়েকগুণ বেড়ে গেছে শিশু অপহরণের ঘটনা। এর প্রেক্ষাপটে উদ্বেগ জানিয়েছে সংশ্লিষ্টরা।
এসব ঘটনা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে নিতে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়কে উদ্যোগ নেয়ার পরামর্শ শিশু অধিকার কর্মীদের। তবে ঢালাওভাবে সব মামলা দ্রুতবিচার ট্রাইব্যুনালে নেয়ার পক্ষপাতী নয় মন্ত্রণালয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, কেরানীগঞ্জে শিশু আব্দুল্লাহ’র পর গাজীপুরে শিশু সোলায়মান। চলতি বছরের শুরু থেকেই অপহরণের পর হত্যার শিকার হয় বেশ কয়েকজন শিশু।
বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরামের প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০১২ ও ১৩ সালে যেখানে শিশু অপহরণের ঘটনা ছিল ১২৮টি। সেখানে গত দুই বছরে শিশু অপহরণের ঘটনা একলাফে বেড়ে দাঁড়ায় ৪৫২টি। এরমধ্যে ২শ’ ৬০ শিশু উদ্ধার হলেও লাশ পাওয়া যায় ৯২ জনের।
এদিকে গত চার বছরে হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছে ১ হাজার ৮৫ শিশু। আর ধর্ষণের শিকার ৯শ’ ৭৬ জন। শিশুদের প্রতি এরকম সহিংসতা বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে উদ্বেগ জানিয়ে বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির নির্বাহী পরিচালক অ্যাডভোকেট সালমা আলী বলছেন, এরকম ঘটনার রাশ টানতে সামগ্রিকভাবে শিশুহত্যার মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তি হওয়া প্রয়োজন।
সাম্প্রতিক সময়ে কয়েকটি শিশুহত্যার মামলায় দ্রুত বিচার শেষ হওয়ার ঘটনাকে ইতিবাচক বললেও এসব মামলার বাকী কাজ শেষ করে দ্রুত রায় কার্যকরের উপর জোর দেন তিনি।
অন্যদিকে শিশু হত্যা কমাতে দ্রুত বিচার নিষ্পত্তিতে একমত হলেও মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি বলছেন, ন্যায় বিচারের স্বার্থেই সব মামলা দ্রুত বিচার আদালতে নেয়া সম্ভব নয়।
শিশুদের প্রতি সহিংসতার ঘটনাগুলোতে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে যথাসম্ভব মনিটরিং করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত