সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

তারামন বিবির সঙ্গে ছবি তোলায় ব্যস্ত চিকিৎসকরা!



15নিউজ ডেস্ক : ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) চিকিৎসাধীন বীর প্রতীক তারামন বিবি। সেখানে তার সঙ্গে ছবি তুলতে যেন প্রতিযোগিতা শুরু হয় চিকিৎসকদের মাঝে!

গুটিকয়েক চিকিৎসকের এমন কাণ্ডের পাশাপাশি এ প্রতিযোগিতায় শামিল হয়েছেন দর্শনার্থীরাও।

মঙ্গলবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে ১টা নাগাদ প্রায় আধ ঘণ্টা সেখানে অবস্থান করে দেখা গেলো এমন দৃশ্য।

তারামন বিবি’র শয্যাপাশে প্রায় আধ ঘণ্টা অবস্থান করে দেখা গেলো, কয়েক মিনিট পরপর পালাক্রমে একেকজন ইন্টার্ন চিকিৎসক আসছেন। এ বীর কন্যার শারীরিক অবস্থার খোঁজ খবর নিয়ে নিজের পকেট থেকে মুঠোফোন বের করে তুলে দিচ্ছেন অন্যজনের হাতে। অতঃপর দাঁড়িয়ে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার ছবি তুলে রাখছেন।

তারামন বিবি’র স্বজনরা জানান, সোমবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) শ্বাসকষ্ট ও ফুসফুসের সমস্যা নিয়ে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর থেকেই শুরু হয় ছবি তোলার প্রতিযোগিতা। মঙ্গলবারও তা অব্যাহত ছিল।

তাদের সবার বাক্যালাপ ছিল অভিন্ন। ‘আপনি এখন কেমন আছেন’, ‘শরীর কেমন লাগছে’ এসব বাক্য ব্যবহার করে পাশে দাঁড়িয়ে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার ছবি তুলেই চলে যাচ্ছেন।

আবার শেষদিকে একজন চিকিৎসককে পাওয়া গেলো, যিনি ছবি তুলে ফেসবুকে আপলোড দিতেই ব্যস্ত হয়ে উঠছিলেন। তাদের ভাবখানা ছিল এমন, যেন ছবি তোলার উদ্দেশ্যেই তারা অসুস্থ তারামন বিবি’র খেয়াল খোঁজ করছেন!

এ দৃশ্য থেকে এ ইউনিটে চিকিৎসাধীন এক রোগীর স্বজন বলেন, ‘এ ওয়ার্ডে এত বেশি ভিড় করার নিয়ম নেই। অথচ এখন চিকিৎসকরাই এ নিয়ম ভাঙছেন। সেবা দেওয়ার সুযোগে ছবি তুলতেই ব্যস্ত হচ্ছেন।’

অবশ্য এ হাসপাতালের চিকিৎসদের আন্তরিকতায় সন্তুষ্ট বীর প্রতীক তারামন বিবি। মহান মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গণের এ মুক্তিযোদ্ধা বলেন, ‘চিকিৎসকরা দলবেঁধে আমার খোঁজ নিচ্ছেন। তাদের আন্তরিকতার কোনো কমতি নাই।’

তারামন বিবি’র ছেলে আবু তাহের বলেন, ‘ডাক্তাররা আইতাছে, আবার মা’র সঙ্গে ছবি তুইল্ল্যা যাইতাছে। আসলে তারা মাকে কোনোদিন দেখে নাই। এজন্যই তারা ছবি তুইল্ল্যা রাখতাছে।’

অন্য এক চিকিৎসকের মাধ্যমে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. সাইফুল বারী’র সঙ্গে তারামন বিবি’র শারীরিক অবস্থার আপডেট জানতে গেলে কথা প্রসঙ্গে তিনি সেখানে দর্শনার্থী ও সাংবাদিকদের অতিরিক্ত ভিড়ের কথা বলেন।

পরক্ষণেই চিকিৎসকরাও যে ছবি তুলতে সেখানে ভিড় করছেন, এ বিষয়টি তার সামনে উপস্থাপন করলে তিনি মুচকি হাসেন।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত