শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

এরপর সাংবাদিকরা ভুল স্বীকার করতে চাইবে না: মাহফুজ আনাম



2নিউজ ডেস্ক :: ‘বাংলাদেশের ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টারের সম্পাদক মাহফুজ আনামের আত্মসম্মান থাকলে ডিজিএফআইএর দেওয়া খবর প্রচারের জন্য তিনি পদত্যাগ করতেন’ – প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন মন্তব্যের জবাবে মাহফুজ আনাম বলেছেন, তাকে ‘আইসোলেট’ করার জন্যই এসব বলা হচ্ছে, এসব খবর অন্যরাও ছেপেছিল।
সোমবার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাহফুজ আনামের তীব্র সমালোচনা করে বলেন, ‘বিগত সেনা-সমর্থিত তত্বাবধায়ক সরকারের সময় সেনা গোয়েন্দা বিভাগের দেওয়া খবর যাচাই না করে প্রকাশ করে তিনি ভুল করেছেন – এমন স্বীকারোক্তির পর আত্মমর্যাদা থাকলে মাহফুজ আনাম পদত্যাগ করতেন।
এর প্রতিক্রিয়ায় বিবিসি বাংলা-কে মাহফুজ আনাম বলেন, তাকে বিচ্ছ্ন্নি করার জন্যই এসব কথা বলা হচ্ছে। কারণ সে সময় ওই খবরগুলো অনেক সংবাদমাধ্যমই প্রকাশ করেছিল। এর মাধ্যমে সৎ সাংবাদিকতার ওপর একটা বিরাট অন্যায় অভিযোগ আনা হচ্ছে।
তিনি বলেন, ‘আমি মনে করেছিলাম যে স্বত:প্রণোদিতভাবে জনসমক্ষে ভুল স্বীকার করে আমি একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন করছি। কিন্তু এর প্রতিক্রিয়া দেখে মনে হচ্ছে যেন ভুল স্বীকার করাটাও আমার একটা ভুল হয়েছে।’
মাহফুজ আনাম বলেন, ‘এর যে ফল হবে তা হলো সাংবাদিকরা নিজের ভুল স্বীকার করার কোন রকম উৎসাহ আর পাবেন না – এই অবস্থা দেখলে।’
মাহফুজ আনাম বলেন, ডিজিএফআইয়ের দেওয়া এসব খবর বাংলাদেশের অনেক সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়েছে, টিভিতে এসব রেকর্ডিং বাজিয়ে শোনানো হয়েছে। তার পরও এমন ধারণা তৈরি হচ্ছে যেন ডেইলি স্টার এককভাবেই এগুলো ছেপেছে।
‘আত্মসম্মান থাকলে তিনি পদত্যাগ করতেন’ প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্যের জবাবে ডেইলি স্টারের সম্পাদক বলেন, ‘আমি মনে করি এটা আমাকে আইসোলেট করে বলা হচ্ছে। ব্যাপারটা আরও ব্যাপক।’
মাহফুজ আনাম বলেন, ‘ওই খবরগুলো স্বাধীনভাবে যাচাই না করে ছাপানোর ফলে আমি যথাযথ সম্পাদকীয় বিবেচনাবোধের পরিচয় দিতে পারি নি – আমার এই আত্ম-উপলব্ধিমূলক মন্তব্য থেকে সাংবাদিকতার একটা বিরাট দুর্বল জায়গা উন্মোচিত হয়েছে। আমরা যে সেনা গোয়েন্দা সংস্থার চাপে থাকি – সেটা বেরিয়ে এসেছে। ভবিষ্যতে যেন পরিস্থিতি এদিকে না যায় – আলোচনাটা সেদিকে গেলে দেশের সাংবাদিকতার জন্য লাভ হবে।’
‘এখনো তো আমরা র‍্যাবের ক্রসফায়ারে মৃত্যুর খবর ওরা যেভাবে দেয় সেভাবেই ছেপে যাচ্ছি। এটা তো একটা বিরাট ইস্যু যা গভীরভাবে দেখা দরকার’, যোগ করেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী হাসিনা গতকাল আরও বলেন, ‘ডিজিএফআইয়ের দেওয়া তথ্য তারা যেভাবে দিয়েছে সেভাবেই ডেইলি স্টার ছেপে দিয়েছে’ এমন কথা ‘পাগলেও বিশ্বাস করবে না।’
এর প্রতিক্রিয়া জানিয়ে মাহফুজ আনাম বলেন, তিনি যে ইঙ্গিত করছেন তা খুবই দুর্ভাগ্যজনক। ডেইলি স্টার এমন কিছু করেনি। মাত্র তিনটি রিপোর্ট নিয়ে কথা হচ্ছে। অথচ তত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় ছিল দু’বছর, সেসময় ডেইলি স্টার প্রায় দু’শো সম্পদকীয় লিখে নির্বাচন এবং জনপ্রতিনিধিদের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরের কথা বলেছে।
সূত্র: বিবিসি বাংলা

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত