বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ক্ষুব্ধ যুক্তরাষ্ট্র, বর্বরোচিত হামলা, জবাবদিহিতা নিশ্চিতের আহ্বান



43আন্তর্জাতিক ডেস্ক ::
ঢাকাস্থ মার্কিন মিশনের কর্মকর্তা জুলহাজ মান্নান সহ দুইজনকে কুপিয়ে হত্যায় ক্ষুব্ধ যুক্তরাষ্ট্র। পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি এ ঘটনায় গভীর শোকাহত। তিনি এ হত্যাকা-কে ‘বারবারিক মার্ডার’ বলে আখ্যায়িত করেছেন। বলেছেন, এটা একটা বিবেকবোধহীন সহিংসতা। তিনি জুলহাজ মান্নানের পরিবার ও প্রিয়জনদের প্রতি গভীর শোক জানিয়েয়েছেন। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় আমাদের দূতাবাসের স্থানীয় একজন কর্মকর্তা জুলহাজ মান্নান ও তার স্থানীয় এক বন্ধুকে বর্বরোচিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় নিন্দা জানাতে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সব পুরুষ ও নারী কর্মকর্তা-কর্মচারী আমার সঙ্গে শোকে সামিল হয়েছেন। জুলহাজ মান্নানকে আস্থাভাজন সহকর্মী, প্রিয় বন্ধু, মানবাধিকারের একজন কর্মী ও বাংলাদেশের মর্যাদা রক্ষায় একজন ব্যক্তি বলে অভিহিত করেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি। তিনি এ বিষয়ে একটি বিবৃতি দিয়েছেন। তা যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েব সাইটে প্রকাশিত হয়েছে।

তাতে তিনি বলেন, জুলহাজ কাজ করেছেন ইউনাইটেড স্টেটস এজেন্সি ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্টে। ওই বিবৃতিতে জন কেরি বলেন, জুলহাজ বিভিন্ন দিক থেকে বাংলাদেশের মানুষের উদ্বীপনা হয়ে আছেন। বালাদেশের মানুষের যে সহনশীলতা, শান্তি ও বহুত্ববাদী সমাজ তারও গর্বিত অংশ হয়ে আছেন জুলহাজ। জন কেরি বলেন, বাংলাদেশ সরকারকে আমরা এ ঘটনা তদন্তে ও জড়িতদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর জন্য আমরা পূর্ণাঙ্গ সমর্থন দিচ্ছি। আমরা জুলহাসের নীতির প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। বাংলাদেশ ও বিশ্বের অন্যান্য প্রান্তে যারা সহনশীলতা ও মানবাধিকারের পক্ষে কাজ করছেন তাদের প্রতি আমরা সমর্থন দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ওদিকে একই দিন দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জন কিরবি নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে জুলহাজ মান্নান ও তার বন্ধু হত্যায় যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষোভের কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, জুলহাজ মান্নানের ওপর এ হামলা বর্বরোচিত। তিনি তাকে ঢাকাস্থ দূতাবাস পরিবারের একজন প্রিয় সদস্য বলে আখ্যায়িত করেন।

তার ভাষায়, এমন ঘটনা প্রকাশে ভাষা নেই। এটা ব্যাখ্যা করার মতো নয়। এক্ষেত্রে কোন অজুহাত চলে না। ওই ব্রিফিংয়ে তিনি নিহতের মা, পরিবারের সদস্য, বন্ধুবান্ধব ও সহকর্মীদের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ করেন। একই সঙ্গে তার সঙ্গে অন্য যিনি নিহত হয়েছেন নৃশংস হত্যাকা-ে তার পরিবার পরিজনের প্রতিও তিনি সমবেদনা প্রকাশ করেন। জন কিরবি বলেন, আমরা জুলহাজের মৃত্যুতে শোকাহত। একই সঙ্গে তিনি বাংলাদেশ, যুক্তরাষ্ট্র ও বৈশ্বিক মানবাধিকার ও মর্যাদার জন্য যে লড়াই করে গেছেন আমরা তার সেই জীবনের প্রতি শ্রদ্ধা জানাই। তিনি বাংলাদেশের জন্য অবদান রেখে গেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের জন্য অবদান রেখে গেছেন। একই সঙ্গে আমরা বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের প্রতি আমাদের সমর্থন প্রকাশ করছি যেন তারা এ কাপুরুষোচিত ঘটনা ঘটিয়েছে তাদেরকে যেন জবাবদিহিতার আওতায় আনা নিশ্চিত করা হয়। জন কিরবি আরও বলেন, বাংলাদেশ উদারপন্থি, সহিষ্ণু ও এখানে রয়েছে সবার অংশগ্রহণমুলক সমাজ। এ জন্য বাংলাদেশ তার ইতিহাস নিয়ে গর্ব করতে পারে। এখানে রয়েছৈ বিভিন্ন ধরণের মানুষ, সংস্কৃতি ও ধর্ম। কিন্তু উগ্রপন্থিদের এই হামলা বাংলাদেশের সেই অবস্থানকে খর্ব করার সামিল।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত