সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

চমেকে স্ত্রীর পাশে বাবুল আক্তার



5নিউজ ডেস্ক : দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত স্ত্রী মাহমুদা অাক্তার মিতুতে দেখতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ছুটে এসেছেন সদ্য পুলিশ সুপার হিসেবে পদোন্নতি প্রাপ্ত আলোচিত পুলিশ সুপার বাবুল আক্তার।

রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ানের (র‌্যাব) একটি বিশেষ হেলিকপ্টারে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামের দামপাড়ায় এসে পৌঁছান তিনি। পরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নিহত স্ত্রীকে দেখতে আসেন। এসময় তার সাথে ছিলেন র‌্যাব-৭ এর সিইউ লেফটেনেন্ট কর্ণেল মিফতা উদ্দিন আহমেদ ও সেনা কর্মকর্তা কর্ণেল জিয়া।

বিষয়টি জানিয়েছেন বায়েজিদ বোস্তামি থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন।

পরে নিহত মাহমুদা অাক্তার মিতুর মরদেহ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাদন্ত শেষে তার মরদেহ জিইসি মোড়ের বাসায় নিয়ে যাওয়া হবে বলে জানাগেছে।

রোববার সকাল ৭টার দিকে নগরীর জিইসি মোড়ে প্রকাশ্যে গুলি করে পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা অাক্তার মিতুকে হত্যা করা হয়। তার দুটি ছেলে ও মেয়ে রয়েছে। তাদের ক্যান্টন্টমেন্ট স্কুলে নিয়ে যাওয়ার সময় এ ঘটনা ঘটে। বাবুল অাক্তার ঢাকায় অবস্থান করলেও তার স্ত্রী ও ছেলেমেয়েকে নিয়ে নগরীর জিইসি এলাকার একটি ফ্ল্যাটে থাকতেন।

বাবুল আক্তারের প্রতিবেশি ও বায়েজিদ থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন এ খবর নিশ্চিত করেছেন। তবে কে বা কারা কীভাবে এই হত্যাকাণ্ড করেছে, তা তাৎক্ষণিকভাবে জানাতে পারেননি মহসীন।

ঘটনাস্থলে থাকা পিবিআই চট্টগ্রাম প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বশির আহমেদ খান জানান, সকাল ৬টা ৩৫মিনিট দিকে বাসা থেকে একশ গজ দূরে ছেলেকে নিয়ে ক্যান্টনমেন্ট স্কুলে যাওয়ার পথে তিনজন মোটরসাইকেল আরোহী তাকে ধাক্কা দেয়। এরপর তারা ছুরিকাঘাত করে পরপর তিন রাউন্ড গুলি ছুড়ে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থল থেকে তিনটি গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়েছে। ছুরিকাঘাতের পাশাপাশি মাহমুদা আক্তারের মাথার বাম পাশে গুলিবিদ্ধ হওয়ায় তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত