শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ছাতক সিমেন্ট কারখানায় নিরাপত্তাকর্মীকে বেঁধে গোডাউনে দুর্ধর্ষ চুরি



unnamed-3-42নিউজ ডেস্ক::ছাতক সিমেন্ট কারখানায় দুর্ধর্ষ চুরি সংঘটিত হয়েছে। চোরেরা নিরাপত্তা কর্মীকে পিটিয়ে লাইটপোষ্টের সাথে বেধে গোডাউন থেকে কয়েক লক্ষ টাকা মুল্যের মালামাল চুরি করে নিয়ে যায়। গতকাল বৃহস্পতিবার ভোরে কারখানার অভ্যন্তরস্থ কোরিয়ান গোডাউনে এ চুরি সংঘটিত হয়। আহত নাইগার্ডকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছ।
সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার ভোর প্রায় সাড়ে ৪টার সময় কারখানার পূর্ব দিকে ৭-৮ জন সংঘবদ্ধ চোর অভ্যন্তরে প্রবেশ করে নিরাপত্ত কর্মী অস্থায়ী আনসার সদস্য মইনুল হোসেন (৩২)’র মাথায় লোহার রড দিয়ে পরপর আঘাত করে। আঘাতে মইনুল হোসেন মাটিতে লুটে পড়লে তাকে অচেতন অবস্থায় লাইটপোষ্টের সাথে বেধে রাখে চোরেরা। পরে কারখানার কোরিয়ান গোডাউনের তালা ভেঙ্গে চেরেরা মুল্যবান মালামাল চুরি করে নিয়ে যায়। সকাল ৬টার দিকে আহত আনসারকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আহত আনসার গাইবান্ধা জেলার কিসমতবাড়ি গ্রামের বাসিন্দা বলে জানা গেছে। এর আগেও একাধিকবার বড় রকমের চুরি সংঘটিত হয়েছে এ কারখানায়। ছাতক সিমেন্ট কারখানায় পর্যাপ্ত নিরাপত্তা কর্মী ও আনসার বাহিনীর সদস্যরা থাকা সত্ত্বেও ঘন-ঘন চুরি সংঘটিত হচ্ছে। কয়েক মাস আগে টানা চারদিনে কারখানার আবাসিক এলাকার সহশ্রাধিক ফুট গ্যাস পাইপ চুরি হয়ে যায়। কিন্তু কর্তৃপক্ষ চুরি প্রতিরোধে কার্যকরী কোন পদক্ষেপ নিতে পারছেন না।
ঘন-ঘন চুরির সাথে কারখানার কেউ জড়িত আছে কিনা তা এখন খতিয়ে দেখার প্রয়োজন বলে শুভাকাংকিরা মনে করছেন। কারখানার সিকিউরিটি ইন্সপেক্টর মুজিবুর রহমান জানান, ভোরে চোর বা ডাকাতদল ছাতক সিমেন্ট ফ্যাক্টরীর পূর্ব দিকের দেয়াল ডিঙিয়ে অথবা অন্য কোনো পথে ভিতরে প্রবেশ করে নিরাপত্তায় দায়িত্বরত আনসার কে মাথায় ৩টি আঘাত করে পোষ্টের সাথে হাত পা বেধে রাখে। চোরেরা কোরীয়ান গোডাউনের দরজা ভেঙে মুল্যমান কিছু মারামাল চুরি করে নিয়ে যায়। আহত আনসারের মাথায় ২১টি সেলাই দেওয়া হয়। এ ব্যাপারে বিকেলে ছাতক থানায় একটি জিডি এন্ট্রি করা হয়েছে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত