বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জ-শ্রীমঙ্গল সড়কের উভয় পাশ জঙ্গলে ভরপুর, ঝুঁকি নিয়ে যানচলাচল



maxresdefaultনিউজ ডেস্ক:: কমলগঞ্জ-শ্রীমঙ্গল সড়কের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের ভিতরের ১৫ কিলোমিটার রাস্তার উভয় পাশের ঝোপ-জঙ্গল দীর্ঘদিন পরিস্কার না করায় বিভিন্ন প্রকারের গাছ ও ডাল বড় হয়ে ঝোপঝাড় ও জঙ্গল পরিবেষ্টিত হয়ে পড়েছে। এতে মারাত্মক সমস্যা পড়তে হচ্ছে যানচলাচলকারী চালকদের। বিশেষ করে সড়কের বাঁকগুলো অতিক্রমের সময় একপাশ থেকে অন্য পাশের যানবাহন দেখা যায় না। জঙ্গলের কারনে ১৮ ফুট সড়ক ১৩ ফুটে নেমে এসেছে। ঝুকির মধ্যে দিন ও রাতে যানবাহন চলাচল করলেও সংশ্লিষ্ট সড়ক ও পথ বিভ্গা জঙ্গল পরিস্কারে নির্বিকার। দ্রুত জঙ্গল পরিস্কারের দাবী জানিয়েছে এলাকাবাসী।
সরেজমিনে দেখা যায়, সড়ক ও জনপথের আওতাধীন কমলগঞ্জ- শ্রীমঙ্গল সড়কের বটতলা নামক স্থান হতে নূরজাহান নামক এলাকা পর্যন্ত লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের প্রায় ১৫ কিলোমিটার জুড়ে সারা সড়কের উভয় পাশে বিভিন্ন গাছগাছালি বড় হয়ে ঘন ঝোপ-ঝাড় ও জঙ্গল সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে ৩১টি বাঁক খুবই ঝুকিঁপুর্ণ। সড়কের বাঁকগুলো জঙ্গলে ভরে যাওয়ায় সামনের যানবাহন দেখা যায় না। সতর্কতার সঙ্গে গাড়ি চালিয়েও অনেক সময় যানবাহন মুখোমুখি হয়ে যায়। সড়ক ও জনপথ বিভাগ র্দীঘ দিন ধরে সড়কের পাশে গড়ে উঠা গাছগাছালি পরিস্কার না করায় জঙ্গলে পরিনত হয়েছে। সড়কের লাউয়াছড়া ব্রীজ সম্মুখ, মাগুরছড়া গ্যাস সম্মুখ এলাকায় বন্যগাছ রাস্তার উপর উঠে গেছে। জঙ্গলের কারনে ১৮ ফুট সড়ক ১৩ ফুটে নেমে সরু হয়ে গেছে। লাউয়াছড়ায় শত শত পর্যটকের আগমনে প্রতিদিন মুখরিত হয়ে থাকে। পর্যটকরা গাড়ি নিয়ে বনের ভিতরে প্রবেশ করলে তাদের গাড়ি পারাপারের সময় দুর হতে বুঝা মুশকিল হয়ে পড়ে যে পাশে জায়গা আছে কি না। কারন উভয় পার্শ জঙ্গলে ভর্তি। রাস্তার পাশে গর্ত থাকলেও জঙ্গলের কারনে গর্ত দেখা যায় না। যার ফলে চলাচলকারী যানবাহন অনেক সময় সাইট দিতে গিয়ে দুর্ঘটনায় পতিত হচ্ছেন। গত কয়েক মাসে প্রায় ১০/১২টি ছোট দুঘর্টনা ঘটলেও মৌলভীবাজার সড়ক ও জনপথ বিভাগ নীরব রয়েছে। অপর দিকে সড়ক ও জনপথ র্কতৃপক্ষের অপেক্ষা না করে কমলগঞ্জ- শ্রীমঙ্গল সড়কের কমললগঞ্জ পৌর এলাকায় অংশ মেয়র জুয়েল আহমেদ শ্রমিক লাগিয়ে প্রায় ৭ কিলো মিটার সড়কে জঙ্গল কেটে ফেলেছেন। কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র জানান, তিনি ব্যক্তিগত ভাবে মৌলভীবাজারের নির্বাহী প্রকৌশলীকে বিষয়টি অবগত করলেও কোন পদক্ষেপ না নেয়ায় পৌরসভার উদ্যোগে রাস্তার ঝুকিঁপুর্ণ ডালপালা কেটে ফেলেছেন।
এলাকাবাসী মনে করেন, সড়কের বাঁকগুলোর জঙ্গল পরিষ্কার করা জরুরি হয়ে পড়েছে। দ্রুত পরিস্কার না করালে বড় ধরনের দুঘটঁনা ঘটতে পারে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত