রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ওমানে বাংলাদেশি নতুন নারী গৃহকর্মীর বেতন দ্বিগুণ হচ্ছে



44786_x2প্রবাস ডেস্ক:ফাইল ছবিইংরেজি নতুন বছরের শুরু থেকে ওমানে বাংলাদেশি নতুন নারী গৃহকর্মীর সর্বনিম্ন বেতন দ্বিগুণ হচ্ছে। আগামী ১লা জানুয়ারি থেকে ওমানে যেসব নাগরিকের মাসিক বেতন কমপক্ষে ১০০০ ওমানি রিয়াল শুধু তারাই বাংলাদেশ থেকে নারী গৃহকর্মী নিয়োগ করতে পারবেন। বাংলাদেশ সরকারের নতুন বিধিমালায় এসব কথা বলা হয়েছে। এ খবর দিয়েছে টাইমস অব ওমান। এতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ সরকারের ওই বিধিমালা ওমানে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসের ওয়েবসাইটে আপলোড করা হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ থেকে যেকোনো নারী গৃহকর্মী নিয়োগ করতে হলে তাকে মাসে কমপক্ষে ৯০ রিয়াল বেতন দিতে হবে।
কোনোক্রমেই এর চেয়ে কম হতে পারবে না বেতন। একই সঙ্গে গৃহকর্মীর ভ্রমণ খরচ বহন করতে হবে নিয়োগকারীকে। সঙ্গে থাকতে হবে ইন্স্যুরেন্স সুবিধা। ওই গাইডলাইনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের যেসব নারীর বয়স ২৫ থেকে ৪৫ বছরের মধ্যে নিয়োগকারী ও তার মধ্যে নিয়োগ সংক্রান্ত যে চুক্তি হবে তা সত্যায়িত হতে হবে ওমানে বাংলাদেশ দূতাবাস দ্বারা। অভিবাসন অধিকারকর্মী মেরিনা সুলতানা ঢাকা থেকে বলেছেন, নতুন এই গাইডলাইন ওমানে বাংলাদেশি নারী গৃহকর্মীর নিরাপদ অভিবাসনকে নিশ্চিত করবে।
তিনি আরো বলেন, আমরা জানতে পেরেছি এমন নীতি নিয়ে আলোচনা হয়েছিল ২০১৫ সালে। এটা যে বাস্তবায়িত হচ্ছে এ বিষয়ে আমরা ছিলাম আশাবাদী। মানবসম্পদ, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণবিষয়ক ব্যুরোর (বিএমইটি) পরিসংখ্যান অনুযায়ী এ বছরের নভেম্বর পর্যন্ত ওমানে বাংলাদেশি নারী গৃহকর্মীর সংখ্যা ১১৮৭৫। পারস্য উপসাগরীয় পরিষদভুক্ত (জিসিসি) দেশগুলোর মধ্যে সৌদি আরবের পর ওমান হলো বাংলাদেশি নারী গৃহকর্মী নিয়োগের দিক দিয়ে দ্বিতীয়। সৌদি আরবে বাংলাদেশি নারী গৃহকর্মী রয়েছেন ৬২৯১৬ জন। এ বছর মে মাসে সর্বপ্রথম টাইমস অব ওমান রিপোর্ট করে যে, বাংলাদেশি নারী গৃহকর্মী নিয়োগের বিষয়ে নতুন নীতি গ্রহণ করছে বাংলাদেশ। নতুন এই নীতিতে বলা হয়েছে ওমানে যাওয়ার আগে একজন নারী গৃহকর্মীকে বিএমইটি আয়োজিত মৌলিক প্রশিক্ষণের সনদপত্র পেতে হবে। এক্ষেত্রে বিএমইটি থেকে ক্লিয়ারেন্স সনদ থাকতে হবে। সনদ থাকতে হবে যে, সংশ্লিষ্ট গৃহকর্মীর ওমানে যেতে কোনো আপত্তি নেই।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত