শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বাগদাদির মাথার দাম ২০০ কোটি টাকা



07আন্তর্জাতিক ডেস্ক : আবু বকর আল-বাগদাদির প্রকৃত নাম ইব্রাহিম আল-সামারাই। দুই বছর আগে ইরাকি এই নাগরিক নিজেকেইরাক ও সিরিয়ার বড় একটি ভূখণ্ডের খলিফা হিসেবে ঘোষণা করেন। তার প্রকৃত অবস্থান সম্পর্কে স্পষ্ট কোনও তথ্য পাওয়া যায়না। বিভিন্ন প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তিনি ইরাকে আইএসের অধিকৃত মসুল শহরে থাকতে পারেন। অথবা সিরিয়া সীমান্তে মসুলেরপশ্চিমাঞ্চলেও থাকতে পারেন তিনি।
ইসলামিক স্টেটের (আইএস) নেতার মাথার দাম দ্বিগুন করল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। তার খোঁজ দিতে পারলে মিলবে আড়াই কোটি মার্কিনডলার (প্রায় ২০০ কোটি টাকা) বেশি। এর আগে ২০১১ সালের অক্টোবর মাসে তার সন্ধান পেতে এক কোটি মিলিয়ন মার্কিন ডলার(প্রায় ৮০ কোটি টাকা) পুরস্কার ঘোষণা করেছিল দেশটি। শুক্রবার এক বিবৃতিতে পুরস্কারের ওই অঙ্ক আরও দেড়গুণ বাড়ানোহয়েছে।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের তরফে বলা হয়েছে, বাগদাদীর নেতৃত্বে মধ্যপ্রাচ্যে হাজার হাজার নিরীহ মানুষকে হত্যা করেছেআইএস। জাপান, বৃটেন ও মার্কিন বন্দীদের নৃশংসভাবে খুন করেছে এই শীর্ষ জঙ্গি সংগঠনটি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাশাপাশি জাতিসংঘওবাগদাদীকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে।
কুর্দি কর্মকর্তারা মনে করছেন, মসুল শহরে জোট বাহিনীর অব্যাহত আক্রমণের মুখে বাগদাদি ও তার দলের অন্যান্য শীর্ষ নেতারা হয়তো নিজেদের আত্মগোপন করতে বিভিন্ন স্থানে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। এমনকি আর্ন্তজাতিক নিষেধাজ্ঞার তোয়াক্কা না করেই ইরাক ও সিরিয়ায় রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেছে আইএস। এছাড়াও সীমান্ত পেরিয়ে অন্যান্য দেশেও হামলা চালিয়েছে।
এর আগে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর আল কায়েদা’র শীর্ষ নেতা ওসামা বিন লাদেন ও আয়মান জাওয়াহিরি’র সন্ধান পেতে আড়াই কোটি মার্কিন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেছিল। জঙ্গি সংগঠন লস্কর-ই-তৈয়বার প্রতিষ্ঠাতা হাফিজ সাঈদ ও হাক্কানি নেটওয়ার্কের প্রধান সিরাজউদ্দিন হাক্কানিকে ধরতে এক কোটি মার্কিন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত