শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জঙ্গিরা ভেতরে ভেতরে এখনো সক্রিয়: ওবায়দুল কাদের



1482574962নিউজ ডেস্ক:: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, জঙ্গিরা প্রকাশ্যে তাদের কার্যক্রম না চালালেও গোপনে ভেতরে ভেতরে সক্রিয় রয়েছে।
শনিবার রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ সুলতানা কামাল জাতীয় ক্রীড়া কমপ্লেক্সে স্বর্ণ কিশোরী জাতীয় কনভেনশন ২০১৬ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। দেশের ৪৯১ উপজেলা থেকে ফাউন্ডেশনের কিশোরী শিক্ষার্থীরা এ কনভেনশনে অংশগ্রহণ করে। কিশোরী স্বাস্থ্য উন্নয়ন ও সচেতনতা বৃদ্ধিতে ফাউন্ডেশনটি কাজ করছে। দেশের ৬শ’ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এর সদস্য রয়েছে।
ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতীয় জীবন ও রাজনীতিতে প্রধান বিপদ হলো মাদক, সন্ত্রাস, সাম্প্রদায়িকতা ও দুর্নীতি। তাই শিক্ষার্থীদের এগুলোকে ঘৃণার সঙ্গে না বলতে হবে। এক্ষেত্রে প্রত্যোকের চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করা প্রয়োজন। তিনি বলেন, মেধাবীরা রাজনীতিতে না এলে রাজনীতি মেধাশূন্য হয়ে পড়বে। আর সে লক্ষ্যেই শিক্ষা ব্যবস্থার গুণগত পরিবর্তনে সরকার কাজ করছে।
তিনি বলেন, মনে রাখতে হবে জীবন হচ্ছে একটা চ্যালেঞ্জ। যে চ্যালেঞ্জ নিতে জানে না, তার সাহস ও মনোবল নেই। সে কখনো এগিয়ে যেতে পারবে না। বারবার থমকে যাবে। চ্যালেঞ্জের নামই জীবন। তাই সাম্প্রদায়িকতা এবং উগ্রবাদমুক্ত দেশ গড়ার চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে হবে।
শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তোমাদের জীবন গড়তে হবে জীবনের জন্য, জীবিকার জন্য নয়। তোমাদের পরীক্ষার্থী নয়, শিক্ষার্থী হতে হবে। তাহলেই আমাদের দেশে কোয়ালিটি এডুকেশন সৃষ্টি হবে। তিনি বলেন, মাদকের ছোবল সমাজে আঘাত করে। মাদকাসক্ত হলে কখনো সুস্বাস্থ্য হবে না। তাই মাদককে ঘৃণার সাথে না বলতে হবে। দুর্নীতিকে না বলতে হবে। সাম্প্রদায়িকতা ও মাদক মুক্ত বাংলাদেশ গড়তে হবে। আগামী পয়লা জানুয়ারিতেই ৩৬ কোটি ২১ লাখ বই বিনামূল্যে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিতরণ করা হবে জানান শিক্ষামন্ত্রী।
অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, আমাদের মেয়েরা এখন আর পিছিয়ে নেই। তারা বিভিন্ন ক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে এবং মেধার স্বাক্ষর রাখছে। মেয়েদেরকে দেশের জন্য দক্ষ ও যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে সরকারের সব ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। নৈতিক শিক্ষার মাধ্যমে নতুন প্রজন্মকে গড়ে তোলার ওপর গুরুত্বারোপ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় আয়োজিত মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতায় মেয়েরা এগিয়ে আছে। প্রতিবছর ১২ জন সেরা মেধাবী শিক্ষার্থীর মধ্যে মেয়েদের সংখ্যাই বেশি। তিনি বলেন, মেয়েদের সমান সুযোগ নিশ্চিত করে আমরা প্রমাণ করেছি, ছেলেদের পাশাপাশি মেয়েরাও সব ধরনের চ্যালেঞ্জিং কাজে সমান পারদর্শিতা দেখাতে সক্ষম। আজ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে শতকরা ৫১ ভাগ, মাধ্যমিক পর্যায়ে ৫৩ ভাগ এবং উচ্চ শিক্ষায় ৪৫ ভাগ মেয়ে। স্বর্ণকিশোরী নেটওয়ার্ক ফাউন্ডেশনের কার্যক্রমকে স্বাগত জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, মেয়েদেরকে আরো সামনে এগিয়ে নেয়ার যেকোন উদ্যোগকে সরকার সহযোগিতা দিয়ে যাবে।
ফাউন্ডেশনের সদস্যদের সৎ, যোগ্য ও দেশপ্রেমিক নাগরিক হিসেবে গড়ে ওঠার আহবান জানিয়ে নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, নতুন প্রজন্মকে বিশ্বমানের জ্ঞান ও দক্ষতা অর্জন করতে হবে। কারণ তারাই ভবিষ্যত বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেবে। তিনি বলেন, আমাদের শিক্ষার মান আরো বাড়াতে হবে। এ জন্য শিক্ষক ও শিক্ষার পরিবেশের মান উন্নয়ন করতে হবে।
অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ড. বিরেন শিকদার, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা সচিব মো. সোহরাব হোসাইন স্বর্ণকিশোরী নেটওয়ার্ক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ফারজানা ব্রাউনিয়া প্রমুখ।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত