সোমবার, ১২ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

নবীগঞ্জের আইন শৃংঙ্খলার অবনতি



download-1ইফতেখার আলম:: নবীগঞ্জে পরপর ২ টি খুন ৪ টি ডাকাতি ১৫ চুরি‘র ঘটনায় আইন শৃংঙ্খলা পরিস্থিতির চরম বিপর্যয় নেমে এসেছে এনিয়ে প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা নিরব ভূমিকায় অবতীর্ন। দেশের সংবিধান বলছে, রাষ্ট্রের প্রধান যেখানে জনগনের জানমাল নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকার /প্রশাসন দৃঢ় প্রতিজ্ঞ , অথচ দিন দিন খুন,ধর্ষন, চুরি,ডাকাতি বৃদ্ধি পাওয়ায় পুলিশ বিভাগের কার্য্যক্রম নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে ।

ইদানিং পরপর কয়েকটি ঘটনায় নবীগঞ্জ থানা পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসন নিরাপত্তা দিতে পুরোপুরি ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে ।

নবীগঞ্জ থানা পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসন গভীর ঘুমে নিমজ্জিত থাকায় এসব ঘটনা ঘটছে । সাধারন খেটে খাওয়া মানুষ সারাদিন কাজ করে বাড়ীতে এসে পাহাড়া দিচ্ছে ? যেখানে পুলিশ প্রশাসনের এতো জনবল থাকার পরও তাদেরই নাকের ডগায় এসব কর্মকান্ড করে বীরদর্পে অপকর্ম করে যাচ্ছে ডাকাতেরা কারা এদের ইন্দনদাতা ?

আমরা ভোটের মাধ্যমে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করি অথচ,তারা নির্বাচিত হওয়ার পর জনগনের সাথে করা প্রতিশ্র“তি বেমালুম ভূলে যাওয়া এটি তাদের বৈশিষ্ট তারা কি করেছেন এখন পর্যন্ত উল্লেখ যোগ্য কোনও ভূমিকা তারা নিতে পারেননি।

ডাকাতি, চুরি হওয়া বাড়ীতে একবারের জন্য তারা খোজখবর নিতে যাননি। জনপ্রতিনিধিরা জনগনের প্রতিনিধিত্ব না করে পুলিশ প্রশাসনের পা-চাটা গোলাম হিসাবে জ্বী হুজুর করতে থাকেন । নবীগঞ্জে এযাবৎ পর্যন্ত এত খুন,ডাকাতি,চুরি‘র ঘটনা পূর্বের ঘটনাকে হার মানিয়েছে যা কিনা সর্বোচ্চ । নবীগঞ্জ উপজেলার এমন কোনো গ্রাম নেই যে ডাকাতির আতংকে তারা পাহারা দিচ্ছেনা ।

প্রশ্ন জাগে মনে, আমরা ভোট দিয়ে সরকার ও জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করি কিন্তু তারা জনগনের কথা না ভেবে ভূরিভোজ নিয়ে ব্যস্ত থাকেন । আমরা জনগন বরাবরই অবহেলার পাত্র হিসাবে উপেক্ষিত থেকে যাই। আমরা এভাবে আর কতদিন চরম অবহেলার পাত্র হিসাবে অহেলিত থাকব । নবীগঞ্জ পুলিশ কর্তারা এসব কর্মকান্ডের ব্যর্থতার দায় মাথায় নিয়ে এই শান্তি প্রিয় নবীগঞ্জ থেকে চলে যান । জনপ্রতিনিধিগন পুলিশের ব্যর্থতার পাশাপাশি আপনারাও দায়ী। মনে রাখতে হবে জনগনই সকল ক্ষমতার উৎস আবারো আপনারা ভোটের জন্য জনগনের দোয়ারে আসতে হবে

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত