শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

সুনামগঞ্জে উৎবেগ আর উৎকণ্ঠার মধ্যে জেলা পরিষদ নির্বাচন



f28ec3e95e68286f1d0c97f178726e7d-57b050de5b099-3সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:: সুনামগঞ্জে আজ ২৮শে ডিসেম্বর বুধবার জেলা পরিষদ নির্বাচন কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে। নির্বাচন অবাধ,সুষ্ট,নিরপেক্ষ ও শুশৃংখল রাখতে নির্বাচন কমিশন,পুলিশ,বিজিবি ও র‌্যাবের পক্ষ থেকে রয়েছে নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা। এছাড়াও মাঠে আছে অতিরিক্ত পুলিশ ও পুলিশের মোবাইল টিম এবং স্ট্রাইকিং ফোর্স। ১৫টি ভোট কেন্দ্রে ৫২০জন পুলিশ সদস্য,পাশা পাশি টহল ও তাৎক্ষনিক অপ্রীতিকর ঘটনা মোকাবেলায় রয়েছে কঠোর ব্যবস্থা।
আর জেলা ও উপজেলার এক ঝাঁক ইলেক্টনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকগন আছেন এবার আলোচিত নির্বাচনের সকল তথ্য তুলে ধরতে। জেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা কম থাকায় সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত জেলার ১৫টি ভোট কেন্দ্রের ৩০টি কক্ষে ভোট গ্রহন সম্পন্ন করতে প্রস্তুত রয়েছে। এ নির্বাচনে স্থানীয় সরকারে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি ১২১৫ভোটার ভোট দিয়ে ৪জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে ১জন চেয়ারম্যান,৭৬জন সাধারন সদস্য প্রার্থীর মধ্যে ১৫জন সদস্য ও ২০জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্যের মধ্যে ৫জন মহিলা সদস্য নির্বাচিত করবেন। ভোটারদের মাঝে সাধারন সদস্য ও স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীদের প্রতি তেমন কোন আকর্ষন না থাকলেও বিশেষ করে চেয়ারম্যান পদে সুনামগঞ্জের হেভিওয়েট প্রার্থী সুনামগঞ্জ জেলা আ,লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ও এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক নুরুল হুদা মুকুট-জেলা আ,লীগের সাধারন সম্পাদক ও আ,লীগের মনোনীত প্রার্থী ব্যারিষ্টার এনামুল কবির ইমন দু-জনের মধ্য থেকে কাকে রেখে কাকে ভোট দেবেন এই ভাবনায় ভোটাররা আর তাদের জয়-পরাজয় নিয়ে উৎবেগ আর উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছে জেলাবাসী। কারন জেলা আ,লীগের সাবেক ও বর্তমান সাধারন সম্পাদক নির্বাচনে প্রতিদন্ধীতা করায় এই নির্বাচন এখন সম্মান রক্ষার লড়াই হয়ে দাড়িয়েছে। এই লড়াই এখন দলীয় নেতাদের মাঝে ছড়িয়ে পড়েছে। আর এর প্রভাব তৃনমূল পর্যন্ত বিস্তার করছে। এর ফলে আ,লীগ সমর্থিত জনপ্রতিধিরা দু ভাগে বিভক্ত হয়েছে।
নির্বাচনে বিএনপি ভোট বেশি আর বিএনপির ও জামায়াত সমর্থিত কোন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদন্ধীতা না করায় বিএনপির ও জামায়াত সমর্থিত জনপ্রতিনিধিরা তাদের মূল্য ভোট সুক্ষ হিসাব নিকাশ করে দিবেন। তাই জেলা জুড়েই আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে আর সবার মুখে একটাই কথা কে হচ্ছে সুনামগঞ্জের জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুকুট না ইমন। কে পাচ্ছে সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের চেয়ার তা দেখার জন্য অধির আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষায় সর্বস্থরের জন সাধারন। জেলা নির্বাচন কায্যালয় সূত্রে জানাযায়,জেলায় ১৫টি ভোট কেন্দ্র গুলো হল,১নং ওয়ার্ডের ভোট কেন্দ্র তাহিরপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়,২নং ওয়ার্ডের ভোট কেন্দ্র মধ্যনগর বি পি উচ্চ বিদ্যালয়,৩নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র ধর্মপাশা উপজেলার জনতা উচ্চ বিদ্যালয়,৪নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র জামালগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়,৫নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র বিশ্বম্বরপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়,৬নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র সরকারী জুবলী উচ্চ বিদ্যালয়,৭নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলঅর পাগলা উচ্চ বিদ্যালয়,৮নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র দিরাই বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়,৯নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র শাল্লা উপজেলার শাহীদ আলী মডেল উচ্চ বিদ্যালয়,১০নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র জগন্নাথপুর উপজেলার শাহজালাল মহাবিদ্যালয়,১১নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র সৈয়দপুর সৈয়দিয়া শামছিয়া আলীম মাদ্রসা,১২নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র দোয়ারাবাজার উপজেলার প্রগতি মাধ্যমিক উচ্চ বিদ্যালয়, ১৩নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র দোয়ারা বাজার মডেল উচ্চ বিদ্যালয়,১৪নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র ছাতক উপজেলা পরিষদ মিলনায়তন,১৫নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র ছাতক উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ আব্দুল হক স্মৃতি কলেজ। সুনামগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন নর রশিদ জানান,জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতিটি কেন্দ্র আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ন তাই পুলিশ,বিজিবি ও র‌্যাবের এক হাজার সদস্য ১৫টি কেন্দ্রে নিরাপত্তায় কাজ করছে। প্রতিটি কেন্দ্রে ১০জন পুলিশ সদস্য ও ২টি মোবাইল টিম আছে। নির্বাচন শান্তি পূর্ন ও সুষ্ট ভাবে সম্পন্ন হবে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত