সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

‘পড়বি তো পড় মালির ঘাড়ে’



নিউজ ডেস্ক :: লেপের মধ্যে শিমুল তুলা না দিয়ে দিয়েছে গার্মেন্টস’র ঝুট।সেই লেপ সংস্কার করতে দিয়েছিলেন ম্যাজিস্ট্রেট। আর  যায় কোথায়। ব্যাপারটা ‘পড়বি তো পড় মালির ঘাড়ে’র মতোই।আর পুলিশ তাঁকে ধরে সোজা হাজির করেন ভ্রাম্যমান আদালতে। এর পর তাকে দুই মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।  ঘঁটনাটি ঘটেছে বোয়ালখালী উপজেলা সদর এলাকায়।

ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে প্রতারণার আশ্রয় নেওয়া স্টেসাস এন্ড ফোম হাউজের মালিক মোহম্মদ রায়হানকে (৩০) দুই মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

রবিবার (২৯ জানুয়ারি) সকালে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নেতৃত্ব দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুরাইয়া আকতার সুইটি।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুরাইয়া আকতার সুইটি জানান, উপজেলা সদরের শাহজালাল স্টেসাস এন্ড ফোম হাউজে শিমুল তুলার ব্যবহৃত লেপ পুন: সংষ্কার করতে দিয়েছিলেন নিজেই। দোকানদার এতে দুই কেজি শিমুল তুলা লাগবে জানিয়ে পুন: সংস্কারে আটশত টাকাও নেন। পরে লেপটি সংস্কার শেষে নিয়ে যাওয়ার সময় পূর্বের থেকে ওজনে ভারী অনুভূত হওয়ায় সেলাই খুলে দেখা যায় তুলার পরিবর্তে দিয়েছে গার্মেন্টস ঝুট ।

শিমুল তুলার পরিবর্তে ঝুট দিয়ে লেপ সংস্কার করে প্রতারণার আশ্রয় নেয়। এতে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের ২০৯ এর বর্ণিত ভোক্তা অধিকার বিরোধী প্রদত্ত মুল্যের বিনিময়ে প্রতিশ্রুতপূর্ণভাবে সরবরাহ না করার অপরাধে দুইমাসের কারাদন্ড প্রদান করা হয়।

দন্ডপ্রাপ্ত ব্যবসায়ী মো. রায়হান সিলেট বিভাগের হবিগঞ্জের রায়ঘর এলাকার মৃত আবদুল হাই এর ছেলে। রায়হান ৬বছর ধরে বোয়ালখালী পৌর সদরের বুড়ি পুকুর পাড়ে লেপ তোষকের ব্যবসা করছেন।

একই দিন সড়কে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি, ড্রাইভিং লাইসেন্স বিহীন টেক্সী চালানোর দায়ে তিন চালককে ৮শত টাকা অর্থদন্ড দেয়া হয়।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত