বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

যৌন হয়রানীর অপমান সইতে না পেরে ১৫ বছরের স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা



সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:: যৌন হয়রানীর অপমান সইতে না পেরে আত্বহত্যা করল সুনামগঞ্জের ১৫ বছরের দশম শ্রেণীতে পড়–য়া এক স্কুল ছাত্রী। সদর উপজেলার বড়ঘাট উচ্চ বিদ্যালয়ের তানিয়া আক্তার (১৫) নামের ওই ছাত্রীর লাশ বুধবার ময়না তদন্ত শেষে পুলিশ পরিবারের নিকট হস্থান্তর করেছে।’
’জানা গেছে, সদর উপজেলার গৌরারং ইউনিয়নের ইনাতনগর গ্রামের হতদরিদ্র জমির আলীর ১৫ বছরের কিশোরী কন্যা ও স্থানীয় বড়ঘাট উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীতে পড়–য়া তানিয়া আক্তারকে বিদ্যালয় থেকে ভাষা দিবসের অনুষ্ঠান শেষে মঙ্গলবার বাড়ি ফেরার পথে পাশর্^বর্তী বিশ^ম্ভরপুর উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের কলাইয়া গ্রামের হাফিজুর রহমানের বখাটে ছেলে জিয়াউর রহমান পথরোধ করে জনসম্মুখে প্রেম নিবেদনে করে সাড়া না পেয়ে আপক্তিকর কথাবার্তা ও যৌন হয়রানী করে।’ এরপর স্থানীয় লোকজন জিয়াউরকে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেন।
এদিকে ওই ঘটনায় অপমান সইতে না পেরে বাড়ি ফিরে রাতেই তানিয়া বসত ঘরের তীরের সাথে ফাঁস লাগিয়ে আত্বহত্যার চেষ্টা করে। পরিবারের লোকজন বিষয়টি দেখে ফেলায় দ্রুত তাকে সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ারর কর্তব্যরত চিকিসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
নিহত কিশোরীর ভাই আল আমিন ও পরিবারের সদস্যরা জানান, বখাটে জিয়াউর প্রভাবশালী পরিবারের সন্তান হওয়ায় তার বিরুদ্ধে পরিবারের অবিভাবদের নিকট নালিশ করলে অবিভাবকরা তা আমলেই নেন না।’
অভিযুক্ত জিয়াউর রহমান পুলিশকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে, ওই ছাত্রীর সঙ্গে রাস্তায় অপেক্ষা করে দেখা করতে গেলে তাদের এলাকার কয়েকজন মিলে আমাকে মারধর করে পুলিশে ধরিয়ে দেয়।’
সদর থানার ওসি মো. হারুনুর রশীদ চৌধুরী বৃহস্পতিবার দুপুরে জানান, নিহত স্কুল ছাত্রীর বিষয়ে থানায় একটি সাধার ডায়েরী করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, স্কুল ছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ না পাওয়ায় জিয়াউর রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে থানা থেকে ছেড়ে দেযা হয়েছে, ওই স্কুল ছাত্রীকে যদি আত্বহত্যার প্রােচনায় বাধ্য করা থাকে তাহলে তদন্ত করে পরবর্তীতে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত