মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জগন্নাথপুরে দোকান দখল নিয়ে দুই পক্ষের উত্তেজনা



জগন্নাথপুর প্রতিনিধি:: জগন্নাথপুরে দোকান ঘর দখল নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ নিয়ে যে কোন সময় বড় ধরণের সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী।
স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, বিগত প্রায় দুই বছর আগে জগন্নাথপুর পৌর এলাকার কেশবপুর উত্তরপাড়া সড়কের পাশে ৩ শতক মূলবান জায়গা গ্রামের মৃত রাজা মিয়ার কাছ থেকে খরিদ করেন একই গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী জাহানারা বেগম। এ জায়গায় তিনি কয়েক কোঠা দিয়ে একটি আধাপাকা মার্কেট নির্মাণ করেন। মার্কেটে ভাড়াটে দোকানিরা দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করে আসছেন। হঠাৎ করে গত কয়েক দিন আগে যুক্তরাজ্য প্রবাসী জাহানারা বেগমের ছেলে প্রবাসী শামীম আহমদের সাথে একটি শালিস বৈঠকের কথা নিয়ে একই গ্রামের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আছকির মিয়ার সাথে কথা কাটাকাটি হয়। এরই জের ধরে আছকির মিয়ার প্রবাসীর দোকানে তালা ঝুলিয়ে দেন। খবর পেয়ে প্রবাসী জাহানারা বেগম যুক্তরাজ্য থেকে দেশে ফিরে সিলেট রেঞ্জের ডিআইজির কাছে আবেদন করেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে জগন্নাথপুর থানা পুলিশ তালা ভেঙে দখল মুক্ত করেন। এ নিয়ে গত মঙ্গলবার জগন্নাথপুর থানা পুলিশ উভয় পক্ষকে ডেকে বিষয়টির সমাধান করে দেন। এরপর গতকাল বুধবার প্রবাসী জাহানারা বেগমের লোকজন দোকান খোলে ব্যবসা করতে চাইলে আছকির মিয়ার লোকজন বাধা দেন। নিয়ে উভয় পক্ষের লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে জগন্নাথপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।
এ ব্যাপারে যুক্তরাজ্য প্রবাসী জাহানারা বেগম বলেন, আছকির মিয়া একজন খারাপ প্রকৃতির লোক। এক সময় আমার বাড়ির কেয়ারটেকার ছিল। আমি তাকে বাদ দিয়ে দেয়ায় সে আমার উপর ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। ইতোপূর্বে সে তার অপকর্মের কারণে কয়েকবার কারাভোগ করেছে। এরপরও শিক্ষা হয়নি। এখন সে আমার ছেলেকে মেরে ফেতে চায়। তাকে মারতে না পেরে আমার দোকানে তালা দিয়ে দখল করতে চেয়ে ছিল। এখনো সে ও তার লোকজন আমাদেরকে বিভিন্নভাবে হয়রানী করছে। যোগাযোগ করা হলে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আছকির মিয়া জানান, আমাদের জায়গা আমি তালা দিয়ে দখল করে ছিলাম। পুলিশ তালা ভেঙে আমার প্রতিপক্ষকে দখল দিয়েছে। এ জায়গায় সুনামগঞ্জ আদালতের স্থগিতাদেশও রয়েছে। এ ব্যাপারে জগন্নাথপুর থানার ওসি মুরসালিন জানান, পুলিশ কাউকে দখল দেয়নি। আমরা শুধু আইনগত দায়িত্ব পালন করেছি।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত