মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ওসমানীনগরে চেয়ারম্যান মানিকের বিরুদ্ধে শিক্ষিকার অভিযোগ



বালাগঞ্জ প্রতিনিধি:: ওসমানীনগর উপজেলার গোয়ালাবাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মানিক ও করনসী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি সৈয়দ আনোয়ার আলীর বিরুদ্ধে নির্যাতন ও হুমকি প্রদানের অভিযোগ পাওয়া গেছে। করনসি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ফেরদৌসী বেগম শনিবার সকালে ওসমানীনগর থানায় এ অভিযোগ দায়ের করেন।
অভিযোগ সুত্রে যানা যায়, করনসী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিক হিসেবে সম্প্রতি দায়িতভার¡ গ্রহন করেন বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা ফেরদৌসী বেগম। তিনি ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দ্বায়িত্ব নেয়ায় বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আনোয়ার আলী ও চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মানিক ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। তারা বিভিন্ন কৌশল অবলম্ভন করে শিক্ষা বিভাগের উর্ধ্বতন মহলে তদবির করে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের পদ থেকে ফেরদৌসী বেগমকে সরিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্র করেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।
এরই জের ধরে গত ১ মার্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির মাসিক সভায় শিশু শ্রেনীর এক ছাত্রের অভিভাবককে দিয়ে কোন কারণ ছাড়াই ভারপ্রাপ্ত শিক্ষিকাকে অশ্লিল ভাষায় গালিগালাজ করানোর অভিযোগ রয়েছে। সভায় উপস্থিত স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি আনোয়ার আলী ওই অভিভাবকের সাজানো ঘটনার পক্ষাবলম্ভন করে শিক্ষিকাকে হুমুকি-ধমকি দিয়ে মানুষিকভাবে নির্যাতন কনে বলে এজাহাওে উল্লেখ রয়েছে। পরবর্তীতে চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মানিক ও আনোয়ার আলীসহ তাদের সহযোগীদেরা বিদ্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দেন। এ বিষয়ে কোনো প্রতিবাদ না করার বিষয়ে শিক্ষিকাকে হুমকিও দেয়া হয়।
শিক্ষিকা ফেরদৌসী বেগম বলেন, অভিযুক্তরা আমাকে হুমকি দিয়ে আসছে, আমি নিরাপত্তায়হীনতায় ভোগছি। ওসমানীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আউয়াল চৌধুরী অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মানিক কালো টাকার প্রভাব কাটিয়ে গোয়ালাবাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নেয়ান পর থেকে তিনি এলাকায় একক অধিপত্য বিস্তার করে চলেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এলাকায় তিনি একের পর এক অরাজকতা চালিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়া চেয়ারম্যান হওয়ার পর তার বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারীর বিষয়টিও গণমাধ্যমে উঠে এসেছিল। ওসমানীনগর থানার তৎকালিন অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমান হত্যা মামলার প্রধান আসামী হয়ে প্রায় দুই মাস কারাবরণ এসে তিনি আরও বেপরোয়া হয়ে ওঠেছেন। অধ্যিপত্য দেখিয়ে নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে নিজস্ব লোকদের দিয়ে জোরপূবর্ক করনসী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটি গঠন করে দিয়েছেন বলে এলাকার লোকজন অভিযোগ করেছেন। সম্প্রতি প্রধান শিক্ষকের দ্বায়িত্বভার গ্রহনকারী শিক্ষিকা ফেরদৌসী বেগম অনিয়মতান্ত্রিক ভাবে গঠিত পরিচালনা কমিটির সদস্যসহ স্থানীয় অভিভাবকদের নিয়ে সবার সমন্বয়ে বিদ্যালয় নতুন পরিচালনা কমিটির গঠন করার জন্য সভা আহ্বান করেন। এতে চেয়ারম্যান মানিক ও তার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে বিদ্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দেয়াসহ ওই শিক্ষিকাকে বিভিন্ন হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন। চেয়ারম্যান মানিক অভিযোগ অস্বীকার বলেন, স্কুল কমিটি গঠনের বিষয়ে আমি অবগত নই। প্রধান শিক্ষিকার সাথে আমার দেখাও হয়নি। স্কুলে কারা তালা দিয়েছে সে বিষয়টিও কেউ আমাকে জানায়নি। স্কুল কমিটির সভাপতি সৈয়দ আনোয়ার আলীর মুঠোফোনে কয়েক দফা কল দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত