বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

গোলাপগঞ্জে যুবক হত্যার অভিযোগে আটকৃত দুই সহোদরকে আসামী করে মামলা



জাহিদ উদ্দিন, গোলাপগঞ্জ:: গোলাপগঞ্জের ভাদেশ্বরে ভারসাম্যহীন যুবক তারেক আহমদ (২৬) কে হত্যার রহস্য এখনো উম্মোচিত হয়নি।
ঘটনার পর আটককৃত দুই সহোদরকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করলেও তারা এই হত্যার বিষয়ে মুখ খুলছেনা। তবে পুলিশ ও এলাকাবাসীর ধারণা নিহত তারেকের সম্পদ আত্মসাতের লক্ষেই তাকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে তড়িঘড়ি করে লাশ দাফনের চেষ্টা করা হয়েছিল। এ ঘটনার পর রোববার আটককৃত দুই সহোদরকে অভিযুক্ত করেথানায় হহত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।পুলিশ বলছে সোমবার ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে আটককৃত দুই সহোদরকে হাজির করা হবে।
শনিবার ভাদেশ্বরের পূর্বভাগ নায়াগ্রাম এলাকার হারিছ আলীর পুত্র ভারসাম্যহীন তারেক আহমদের রহস্যজনক মৃত্যু হয়। মৃত্যুর পর তার আপন ভাই সাদেক আহমদ ও ছালেহ আহমদ সহ পরিবারের লোকজন তড়িঘড়ি করে লাশ দাফনের চেষ্টা করে।
খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে।ঘটনার সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে পুলিশ ঔই সময়ই নিহত তারেক আহমদের দুই সহোদর সাদেক আহমদ (৩৫) ও ছালেহ আহমদ (৩০) কে আটকের পর ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।তবে তারা সরাসরি হত্যার দায় স্বীকার না করলেও পুলিশের ধারণা হয়তো সম্পত্তি আত্মসাতের লক্ষে তারেককে হত্যা করা হয়েছে। রোববার গোলাপগঞ্জ মডেল থানার এসআই আতিকুর রহমান বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।মামলা নং ৪/১৭। এতে নিহতের ভাই সাদেক আহমদ (৩৫) ও ছালেহ আহমদ (৩০) কে আসামী করা হয়।
এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা রোববার সন্ধ্যায় এ প্রতিবেদককে জানান, হত্যাকান্ডে দুই সহোদর জড়িত থাকার আলামত পাওয়া গেলেও তারা প্রাথমিক মুখ খুলেনি।এজন্য তাদের ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে সোমবার আদালতে হাজির করা হবে।তাদের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে হয়ত হত্যার আসল রহস্য উন্মোচন করে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত