শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জামালগঞ্জ বেহেলী ইউনিয়নে প্রকল্প চেয়ারম্যান কর্তৃক ৪০দিনের কর্মসূচীর টাকা লুঠপাট



জামালগঞ্জ(সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি::সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ উপজেলায় বেহেলী ইউনিয়নে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসুচী(ইজিপিপি)দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রণালয় কর্তৃক বাস্তবায়িত অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচি বাংলাদেশ সরকারের একটি চলমান কর্মসূচী মন্দা মৌসুমে অদক্ষ শ্রমিকদের জন্য বছরে দু’টি চক্রে ৪০দিন করে মোট ৮০দিন কর্মসংস্থান করা হয়, কর্মসূচীর লক্ষ হচ্ছে সামাজিক অতি দরিদ্র পরিবারের জন্য খন্ডকালীন কর্মসূচী করা হয়, যাতে তারা দারিদ্রতা কাটিয়ে উঠতে পারে। প্রকল্পের লক্ষ ও উদ্দেশ্যের প্রতি তোয়াক্কা না করে মনগড়া ভাবে তালিকা তৈরি করে হাজার হিসেবে মাটি কেটে প্রকল্প চেয়ারম্যান বেহেলী ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার আব্দুল বাতেন কর্তৃক ৪০দিনের কর্মসূচীর টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। লিখিত অভিযোগে জানা যায়, সরকারী পাকা রাস্তা হইতে বড়টেক মারাখল পযর্ন্ত রাস্তা নির্মানের জন্য চলতি অর্থ বছরে ৪০দিনের কর্মসূচীর মাধ্যমে ৩,২০,০০০/=তিন লক্ষ বিশ হাজার টাকা বরাদ্ধ দেওয়া হয়। উক্ত প্রকল্পের টাকা আংশিক কাজ করেই আতœসাত করার পায়তারা চলছে। প্রায় ২০দিন যাবত কাজ বন্ধ থাকায় গ্রামবাসীর ধারনা অনুযায়ী ৫০,০০০/=পঞ্চাশ হাজার টাকার কাজ করে ২,৭০,০০০/=দুই লক্ষ সত্তর হাজার টাকা আতœসাতের কাজে লিপ্ত রয়েছে। গ্রামবাসীগন এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে বহুবার আব্দুল বাতেনকে জিজ্ঞাসা করলে কোন কর্ণপাত করেনি বরং উল্টো রেগে ক্ষিপ্ত হয়ে যায় আবার বলে,সরকারি যা বরাদ্ধ ছিল সব টাকার কাজ করেছি আর কোন টাকা বরাদ্ধ নেই যদি পারেন নতুন করে টাকা বরাদ্ধের ব্যবস্থা কর। আব্দুল বাতেনের নিকট থেকে গ্রামবাসী কোন স্বদউত্তর না পেয়ে জামালগঞ্জ উপজেলা নিবার্হী অফিসারের বরাবরে গ্রামবাসীর পক্ষে বাদী হয়ে ৫জন স্বাক্ষীর সম্বনয়ে ও ১৩৩জন স্বাক্ষরীত একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। সরজমিনে খোঁজ নিতে গেলে ওয়ার্ডের আশপাশ গ্রামের সুবিধাভোগী লোকজন এ অনিয়মের তিব্র নিন্দা জানান এবং হাওয়রের একমাত্র রাস্তা ধান আনতে সমস্যা হবে বলে অভিমত ব্যাক্ত করেন,শিবপুরের আশকর আলীর ছেলে আওয়াল মিয়া,মশলঘাট গ্রামের মালকাছ জানান মেম্বার আব্দুল বাতিন সাহেব মাটি কাটছেন না উনার প্রায় ৫/৬হাল জমি আছে এইগুলাতে পানি আটকাইবার ব্যবস্থা করছেন,উনার মাটি কাটা দেখেতো এটাই বুঝা যায়।আর অনেকেই বলেন বলিয়া কি লাভ হইবো মেম্বার কয় আমার মনে যেলাখান কইছে এইভাবে কাটছি আমরা এর ন্যায় বিচার চাই। উক্ত বিষয়টি বিবেচনায় এনে যথাযত ব্যবস্থা গ্রহনের লক্ষ্যে কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করছেন এলাকাবাসী।এ বিষয়ে চেয়ারম্যান অসিম তালুকদার বলেন, কাজ চলমান যেটুকু কাজ হয়েছে বিল পাওয়া যায় নাই, টাকা পাইলে বাঁকী কাজ করে ফেলবে। জামালগঞ্জ প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার অফিসে কর্মসংস্থান কর্মসূচীর দায়িত্বে থাকা উপসহকারী প্রকৌশলী মোঃ মোশারফ হোসেন বলেন কাজ কম হয়ে থাকলে টাকা কর্তন করা হবে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত