বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জঙ্গলে খুঁজে পাওয়া ‘বানর কন্যা’র দাবিদার দুই পরিবার



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: কিছুদিন আগে ভারতের উত্তরপ্রদেশে জঙ্গল থেকে একদল বানরের সঙ্গে থাকা অবস্থায় খুঁজে পাওয়া শিশুকন্যাকে নিজেদের হারিয়ে যাওয়া মেয়ে বলে দাবী করেছে দুটি পরিবার।
নিজেদের দাবীর সপক্ষে এখনো কোনও প্রমাণ উপস্থাপন করতে পারেনি ওই দু্ই পরিবার। মেয়েটি প্রথম দিকে কোনও কথা বলতে না পারলেওএখন ইশারায় খেতে চাওয়া শিখেছে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। এখন মুখ দিয়ে শব্দ করতেও পারে সে।
উদ্ধার হওয়া বাচ্চাটির ছবি সংবাদমাধ্যমে দেখার পর নিজের হারিয়ে যাওয়া সন্তানের চেহারার সঙ্গে মিল রয়েছে বলে দাবি করেছে উত্তরপ্রদেশের দুটি পরিবার। বর্তমানে ওই শিশুটি `নির্বান` নামের একটি মানসিক চিকিৎসা কেন্দ্রে রয়েছে। ইতোমধ্যে সেখানে হাজিরও হয়েছিল দুটি পরিবার।
চিকিৎসা কেন্দ্রের প্রধান সুরেশ সিং ধাপোলা জানিয়েছেন, ঔরঙ্গাবাদ আর বিজনৌর জেলা থেকে দুটি পরিবার এসেছিল তাদের কাছে। ওই মেয়েটি তাদের বলে দাবি করেছে দুটি পরিবার। সংবাদমাধ্যমে ছবি দেখে তারা ভেবেছিল এই মেয়েটি তাদেরই হারিয়ে যাওয়া সন্তান। এটা খুবই স্বাভাবিক।
তথ্যপ্রমাণ চাওয়া হয়েছিল দুজনদের কাছেই। জানতে চাওয়া হয়েছিল তাদের হারিয়ে যাওয়া মেয়ের শরীরে কী কী জন্মদাগ ছিল। এই মেয়েটির গায়ে স্পষ্ট কিছু জন্মদাগ আছে, যেগুলো ঔরঙ্গাবাদ থেকে আসা ব্যক্তির দেওয়া বর্ণনার সঙ্গে মেলেনি। আর দ্বিতীয় পরিবারটির চেহারার সঙ্গে সামান্য মিলও নেই এই বাচ্চাটির। আর তারা কোনও জন্মদাগের কথাই মনে করতে পারেনি। দুটি পরিবারকেই শিশু কল্যান পর্ষদের কাছে পাঠিয়েছিলাম। যতদূর জানি, সেখানেও কোনও প্রমান তারা দিতে পারেননি বলেও জানান ধাপোলা।
কোনও শিশু হারিয়ে যাওয়ার পর ফেরত পেতে গেলে জটিলতা তৈরি হলে প্রাথমিকভাবে চেহারার মিল আর জন্মদাগের প্রমাণ চাওয়া হয়। শেষ পর্যায়ে রক্তের ডিএনএ পরীক্ষা করা হয়।
ধাপোলা আরও জানান, প্রাথমিক প্রমাণগুলোই যেহেতু ওই দুই পরিবার দিতে পারেনি। সেকারণে আর খরচসাপেক্ষ ডিএনএ পরীক্ষার দিকে যাওয়া হয়নি।
চিকিৎসার মাধ্যমে শিশুটি ক্রমশ সুস্থ হয়ে উঠছে বলেও জানিয়েছেন ধাপোলা। তিনি বলেন, ‘এই কদিনেই অনেক স্বাভাবিক হয়ে উঠছে মেয়েটি। আমরা আসলেই সে হাসে, কখনও আবার ইশারায় কিছু খেতে চায়। কিছু শব্দও বের করছে মুখ দিয়ে। যেমন, একদিন তাকে ঠান্ডা পানীয় খেতে দিয়েছিলাম। পরের দিন ইশারায় পানি খেতে চেয়েছিল। পানি দেওয়া হলে আঙ্গুল ডুবিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করছিল যে আগের দিন যে ঠান্ডা পানীয়টা দেওয়া হয়েছিল, সেটাই খেতে চায় সে। কোনও কিছু পছন্দ না হলে বিরক্তিও প্রকাশ করছে সে। একদিন তো দেখা গেল যে গানের সঙ্গে একটু একটু দুলছে।’
চলতি বছরের ২৫ জানুয়ারি বাহরাইচ জেলার কর্তনিয়া জঙ্গলে একদল বানরের সঙ্গে ওই মেয়েটিকে খুঁজে পান বনকর্মী ও স্থানীয় মানুষরা। নগ্ন অবস্থায় থাকা মেয়েটিকে উদ্ধার করার সময়ে বানর দল প্রবল বাধা দিচ্ছিল। মনে করা হচ্ছে দীর্ঘদিন ওই বানর দলের সঙ্গেই থেকেছিল মেয়েটি।
কিন্তু কী করে ওই মেয়েটি জঙ্গলে বানর দলের মধ্যে মিশে গেল, তা এখনও রহস্য।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত