শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বাঁধ নির্মাণে দুর্নীতি হয়েছে কিনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে



নিউজ ডেস্ক::পানিসম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেছেন, সুনামগঞ্জে সাম্প্রতিক বন্যায় ৩৬টির মধ্যে ২৯টি ফোল্ড আগেই প্লাবিত হয়েছিল। শনির বাঁধ প্লাবিত হওয়ার মধ্য দিয়ে বাকিগুলো প্লাবিত হয়েছে। বাঁধের চেয়ে পানির উচ্চতা বেশি হওয়ায় হাওর এলাকা বন্যায় প্লাবিত হয়েছে।

তিনি বলেন, হাওর এলাকায় বাঁধ নির্মাণে কোন দুর্নীতি হয়েছে কিনা, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। দুর্নীতির অভিযোগ তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তদন্ত শেষ হওয়ার আগে দুর্নীতির বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না। এখন কাগজে-কলমে দুর্নীতির কোন অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি।

২৩ এপ্রিল রোববার সচিবালয়ে নিজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। হাওরের বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

তিনি বলেন, ‘হাওরের বাঁধের উচ্চতা সাড়ে ৬ মিটার। আর এবার পানির উচ্চতা ছিল ৮ দশমিক ১ মিটার। গত ২০ বছরে এমন হয়নি।’

আনিসুল ইসলাম বলেন, ‘গত ২৯ মার্চ থেকে ১ এপ্রিল পর্যন্ত ৪ দিনে পানির সমতল সিলেটে প্রায় সাড়ে ৮ মিটার ও সুনামগঞ্জে ৫ মিটার বেড়েছে। আর কখনও এমনটা বাড়েনি। পানির উচ্চতার জন্য বন্যা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাঁধ ভাঙার কারণ দুটি। একটি হচ্ছে বন্যা। অন্যটি দুর্নীতি। দুটি ভিন্ন বিষয়। আমরা যে বাঁধগুলো করি সেগুলো ফুললি প্রোটেকশনের জন্য নয়। এগুলো সেফটি মেইনটেইন করে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত