সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জগন্নাথপুর থেকে যুবককে ঢাকায় নিয়ে চাকুরির প্রলোভনে মুক্তিপণ দাবি, অর্ধমৃত অবস্থায় উদ্ধার



জগন্নাথপুর প্রতিনিধি:: জগন্নাথপুর থেকে এক যুবককে চাকুরির প্রলোভন দেখিয়ে ঢাকায় নিয়ে মুক্তিপণ দাবি করা হয়। মুক্তিপণ না দেয়ায় তাঁকে অর্ধমৃত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে।
জানাগেছে, জগন্নাথপুর উপজেলার মিরপুর ইউনিয়নের বাউড়রকাপন (ভাদেশ্বরী) গ্রামের দুদু মিয়ার ছেলে শিমুল মিয়া দীর্ঘদিন ধরে ঢাকার গাজীপুর এলাকায় বসবাস করছে। গত ৮ এপ্রিল শিমুল মিয়া একই গ্রামের তার চাচাতো ভাই ইলয়াছ আলীর ছেলে সাইফুল ইসলামকে (২২) চাকুরি দেয়ার কথা ঢাকায় নিয়ে যায়। ঢাকায় নিয়ে শিমুল মিয়া তার চাচাতো ভাই সাইফুল ইসলামকে অন্য একটি চক্রের হাতে তুলে দেয়। এরপর এ চক্রটি সাইফুল ইসলামকে ভাল চাকুরি দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে প্রথমে নগদ ২০ হাজার টাকা নেয়। পরে আরো এক লক্ষ টাকা দাবি করে। তাদের দাবিকৃত টাকা না দেয়ায় তাকে একটি ঘরে বন্দি করে রেখে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন করা হয়। একটানা ৪ দিন তাকে বন্দি করে রেখে নির্যাতন চালিয়ে চেতনা নাশক ওষুধ খাইয়ে তাকে অচেতন করে রাখা হয়। এক পর্যায়ে তার কাছ থেকে মোবাইল নাম্বার নিয়ে বাড়িতে যোগাযোগ করে জানানো হয়, তাকে জীবিত পেতে হলে এক লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দিতে হবে। দেয়া হয় বিকাশ নাম্বারও। এ খবর পেয়ে তার বাড়িতে কান্নাকাটির মাতম পড়ে যায়।
এদিকে-অচেতন থাকা যুবক সাইফুল ইসলামের ভাগ্যক্রমে হঠাৎ করে সে চেতন পেয়ে কোন রকমে কৌশলে ঘর থেকে বের হয়ে স্থানীয় লোকজনকে ঘটনাটি জানায়। এ সময় স্থানীয় জনতা তাকে উদ্ধার করে সিলেট পাঠিয়ে দেন। সিলেট আসার পর অর্ধমৃত অবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দীর্ঘ ১০ দিন ওসমানীতে চিকিৎসা শেষে গত শুক্রবার রাতে সে বাড়িতে আসে। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত