বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জুড়ীতে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে



মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের জুড়ীতে এক প্রধান শিক্ষকের (৪০) বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর জনৈক ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২৫ মে) থানায় মামলা হয়েছে।
অভিযোগসহ একাধিক সূত্র জানায়, গত ২১ মে টিফিনের বিরতির সময় প্রধান শিক্ষক ছাত্রীদের কমনরুমে যান। এ সময় তিনি জনৈক ছাত্রীকে বিরতির পর শ্রেণীকক্ষে না গিয়ে সেখানে একা থাকতে বলেন। ছাত্রীটি তা না শুনে শ্রেণীকক্ষে চলে যায়। পরে ওই শিক্ষক এক ছাত্রকে দিয়ে শ্রেণীকক্ষ থেকে ওই ছাত্রীকে তার কক্ষে ডেকে নেন। প্রথমে তিনি কথা না শোনার জন্য ওই ছাত্রীকে শাসান। একপর্যায়ে তিনি ওই ছাত্রীকে ¯েœহ করার কথা বলে জড়িয়ে ধরেন। এ সময় এলাকার দুই কলেজছাত্রকে বিদ্যালয়ে আসতে দেখে তিনি মেয়েটিকে ছেড়ে দিয়ে শ্রেণীকক্ষে চলে যেতে বলেন। ছুটির পর বাড়ি ফিরে ওই ছাত্রী কেঁদে কেঁদে ঘটনাটি তার স্বজনদের বলে দেয়। স্বজনেরা রাতেই বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানকে অবহিত করেন। তাদের পরামর্শ অনুযায়ী গত বুধবার সন্ধ্যা ৭টায় ওই ছাত্রী থানায় অভিযোগ দেয়। পরদিন মামলাটি নথিবদ্ধ করা হয়। ওই ছাত্রী বলে, ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ার সময়ও ওই শিক্ষক তাকে কুপ্রস্তাব দিয়েছিলেন। তখন সে তাকে বাবার মতো দেখার কথা বললে তিনি আর কিছু বলেননি।
স্থানীয় ইউপি সদস্য বলেন, ওই ছাত্রীর কাছ থেকে ঘটনাটি শুনে তারা প্রাথমিকভাবে খোঁজ-খবর নেন। তাতে ঘটনাটির সত্যতা মেলে। ঘটনার পর ওই শিক্ষক বিষয়টি মিটমাটের জন্য তাকে মুঠোফোনে প্রস্তাব দেন। প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে এলাকার কারও বিরোধও নেই। তবে প্রধান শিক্ষক তার বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, পাশের একটি বিদ্যালয় তার প্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষার্থীদের সরিয়ে নিতে বিভিন্নভাবে ষড়যন্ত্র করছে। এ কারণে তার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ তোলা হয়েছে। বিষয়টি সাজানো।
এ ব্যাপারে জুড়ী থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জালাল উদ্দিন জানান, ওই ছাত্রীর বক্তব্য তিনি শুনেছেন। তদন্ত করে প্রাথমিকভাবে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত