শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মাদকাশক্তি এক ছেলের কান্ড, নির্যাতন-নিপীড়নে অতিষ্ঠ বাবা-মা



চুনারুঘাট সংবাদদাতা:: হবিগঞ্জের চুনারুঘাট পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা লাল্টুর (ছদ্মনাম) অত্যাচার-নির্যাতনের অতিষ্ঠ হয়ে পড়ছেন বাবা-মা । প্রবীন এই দম্পতি ছেলের (৩০) মানুষিক-শারিরিক নির্যাতনে ভয়াবহতা থেকে রক্ষা পেতে শেষ পর্যন্ত নিজ বাড়ির থাকার সত্ত্বেও অন্যে বাড়িতে বাসা ভাড়া করে কোনো রকমে দিন পার করে যাচ্ছেন। মাদকের আশক্তির ছেলের অনৈতিক কর্মকান্ডে বুড়ো বয়সের তাদের কষ্ট শেষ নেই। তাদের এই সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে জনপ্রতিনিধিদের কোনো ধরণে উদ্যোগ নেই ।
সত্তোর্ধ বয়সী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বাবা-মা দম্পতি বলেন, ” ছেলেটা বেশি লেখাপড়া করে নি। তাই বলে অযথা সময় ঘুরে নি। একটি মুদি দোকানে চাকুরি নিয়েছিলো। বেশ ভালোই চলছিলো আমাদের সংসার । বছর দুয়েক ধরে ছেলেটার ব্যাপক পরিবর্তন। বেশি রাত করে বাড়ি ফিরে। অনেকদিন গতিবিধি করে দেখলাম কর্মক্ষম সন্তানটি আজ মাদকে আসক্তি হয়ে পড়ছে । ৭/৮ বছর ধরে চাকুরি করলো। এক পর্যায়ে এসে সে চাকুরী ছেড়ে দেয় “।
তারা আরও বলেন,” বন্ধুদের খপ্পরে পড়ে ছেলেটি চরম পর্যায়ে পৌছে গেছে। মাদক সেবন করে ও পাশাপাশি মাদকের ব্যবসা করে । টাকার জন্য চাপ দেয় এবং না দিলে মারধর করে। বিয়ে করছে এবং তার( ছেলে) একটি সন্তানও আছে। মাদক থেকে দূর করতে অর্থাৎ ছেলে পরিবর্তনের জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করেছি। কিন্তু কোনো পরিবর্তন নেই “।
শারীরিক ও মানুষিক নির্যাতন থেকে রক্ষা পেতে অন্য বাড়িতে ভাড়ায় জীবন-যাপন করছেন জানিয়ে এই বৃদ্ধ দম্পতি বলেন,” বুড়ো বয়সের আর মানায় না। বড় কষ্ট লাগে। ঈশ্বর যে শেষ বয়সে এসে আরাম- আয়েশে পরিবর্তে পেয়েছি মানুষিক আঘাত। বড় অসহনীয় হয়ে পড়ছি। চলাফেরা বড় দায় হয়ে দাড়িয়েছে। বাধ্য হয়ে একটু দুরে বাসা ভাড়া নিয়ে কোনো রকমে দিনকাল পার করছি আর মৃত্য প্রহর গুনছি”!!
কাউকে অবহিত করছেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন,” সমস্যা থেকে রক্ষার কল্পে মেয়র বা উপজেলা চেয়ারম্যান কে অবহিত করছি। অনেকদিন দোড়ঝাপ করছি। কিন্তু কোনো ফল আসে নি। পরে বাধ্য হয়ে পুলিশ কে অবহিত করি। পুলিশ দিয়ে জেলে পাঠাই। বেশ কিছু দিন জেলে থাকে। কিন্তু কোনো পরিবর্তন হয় নি “।
তিনি আরও বলেন, বাবার মন তো,”আবার ছাড়িয়ে আনি। কি করমো, নছীবে যা আছে তাই হচ্ছে। কিছু করার নেই “।
ভুক্তভোগির এই রকম ১০ টি পরিবারের অভিভাবক কথোপকথনে জানান দেন, মাদক সামাজিক ব্যাধি। অশান্তি অন্যতম কারণ। রাষ্ট্রযন্ত্রে সঠিক অব্যবস্থাপনায় তরুণ সমাজের একটি অংশ মাদকের প্রতি ঝুকে পড়ছে। এটি এমন এক অবস্থায় দাড়িয়েছে টাকা-পয়সা থাক বা না-ই থাক মাদকে খাচ্ছে। নীতি নৈতিকতা চরমভাবে অবক্ষয় দিকে যাচ্ছে। মাদক ব্যবসা যার করছেন তারা সমাজে নামি দামি ব্যক্তি!!
তারা আরও বলেন,পুলিশ প্রশাসনসহ জনপ্রনিধিরা এর বিরুদ্ধে শক্ত হস্তক্ষেপ নিতে অনুরোধ জানিয়েছন এবং সমাজে শান্তি শৃঙ্খলা ও সম্পৃতি মনোভাব গড়ে তুলতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনে প্রতি অনুরোধ জানান।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত