শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ফের বনানীতে তরুণীকে ধষর্ণমুখ খুললে ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয় ধর্ষক



নিউজ ডেস্ক::বনানীর রেইনট্রি হোটেলে জন্মদিনের দাওয়াতে ডেকে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রীকে ধর্ষণের রেশ কাটতে না কাটতে আবারও জন্মদিনের দাওয়াত ও মায়ের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয়ার কথা বলে বনানীর নিজ বাসায় ইভান নামে এক তরুণ ধর্ষণ করে তার প্রেমিকাকে।

মঙ্গলবার (৪ জুলাই) ধর্ষণের পর ঘটনা ধামাচাপা দিতে শেষ রাতে জোর করে তার প্রেমিকাকে বাসা থেকে বের করে দেয় ইভান। চিৎকার চেচামেচি শুরু করে তরুণী। পরিবারে ফোন দেয়ার চেষ্টা করে। পর গত বুধবার (৫ জুলাই) বনানী থানায় ধর্ষক ইভানকে আসামি করে মামলা করেন তরুণী। মামলার এজাহারে মুখ বন্ধ করার জন্য ধর্ষণের ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয় বলে উল্লেখ করেন ধর্ষিতা তরুণীর।

মামলার পর থেকে পুলিশ হেফাজতে রয়েছে ওই তরুণী। ঘটনার পরপর পালিয়ে যায় ইভান। ঢাকা থেকে পালিয়ে নারায়ণগঞ্জের মাসদাইর বাজারে তার খালা শান্তার বাসায় গিয়ে ওঠে। সেখান থেকেই তাকে গতকাল গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-১।

মামলার এজাহারে ঘটনার বর্ণনায় তরুণী উল্লেখ করেন, ‘ইভানের সঙ্গে ১১ মাস ধরে ফেসবুকে বন্ধুত্ব হয়। এ বন্ধুত্বের সূত্র ধরে দুজনের ঘুরাঘুরি, দেখা সাক্ষাৎ হতো। এ বন্ধুত্ব থেকেই ৪ মাস আগে প্রেমের সম্পর্ক শুরু হয়। এ সম্পর্কের সূত্র ধরে গত ৪ঠা জুলাই ওই আসামি আমাকে রাত ৯টার সময় ফোন করে জানায় যে, তার জন্ম দিন এবং ওই জন্মদিনে আমাকে তার বাসায় যেতে বলে এবং তার মায়ের সঙ্গে আমাকে পরিচয় করিয়ে দেবে।

আমাদের সম্পর্কের বিষয়টি তার মাকে জানাবে বলে জানায়। এবং টেলিফোনে মায়ের পরিচয় দিয়ে এক মহিলা আমার সঙ্গে কথা বলে, আর আমি তাকে তার মা মনে করি। তার পর আমি আমার আপুর সঙ্গে কথা বলে ওই দিন রিকশা যোগে রাত ১০টা ৩০ মিনিটে তার বাসার সামনে পৌঁছলে সে আমাকে রিসিভ করে বাসায় নিয়ে যায়। আমি যাওয়ার পর বাসায় কাউকে দেখতে পাইনি। সে আমাকে তার ঘরে নিয়ে যায়।

তার মার কথা জিজ্ঞেস করলে সে জানায়, বাবা-মা অসুস্থ। ঘুমিয়ে আছে। জোরে কথা বলা যাবে না। সকাল বেলা পরিচয় করিয়ে দেবে। বাসায় জন্মদিনের অনুষ্ঠানের কোনো আলামত দেখি না। আমি ভয় পাই এবং বাসায় চলে আসতে চাই। কিন্তু সে বাসায় আসতে দেয় না। সে আমাকে রাতের খাবার খাওয়ায় এবং নেশা জাতীয় দ্রব্য খাওয়ায়। আমি তাকে নিষেধ করলে, সে একদিন খেলে কিছু হবে না বলে জানায়। এরপর ৫ই জুলাই (মঙ্গলবার দিবাগত রাত) ১টা ৩০ মিনিটে আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। আমি চিৎকার চেচামেচি করতে থাকলে সে রাত সাড়ে ৩টায় আমার ব্যাগ রেখে আমাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। ব্যাগের মধ্যে আমার ৩টা ড্রেস, ২টা জিনস, ১টা কুর্তা, ৩টি মোবাইল, চার্জার, সিমকার্ড, মেমোরিকার্ড, নগদ ১৫ হাজার টাকা ছিল। তারপর আমি পথচারী ভদ্রলোকের সহায়তায় থানায় আসি। আসামি আমাকে ইতিপূর্বেও বিবাহের প্রলোভনে ধর্ষণ করেছে…।’

চাঞ্চল্যকর এ ঘটনায় ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য গঠিত হয় ৫ সদস্যের কমিটি। এর আগে গত ২৮শে মার্চ বনানীর রেইনট্রি হোটেলে জন্মদিনের দাওয়াতে ডেকে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে শাফাত আহমেদ, শাফাতের বন্ধু নাঈম আশরাফ ওরফে আবদুল হালিমসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। বাকি তিন আসামি হলেন, শাফাতের বন্ধু সাদমান সাকিফ, গাড়িচালক বিল্লাল হোসেন ও দেহরক্ষী রহমত আলী ওরফে আজাদ। শাফাতসহ সব আসামি বর্তমানে কারাগারে। এ মামলায় ওই পাঁচজনের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে অভিযোগপত্র দেয়া হয়েছে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত