শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বৃটেনের বার্মিংহামের সহকারী হাইকমিশনারের কার্ডিফ বাংলা স্কুল পরিদর্শন ও কমিউনিটির সাথে মতবিনিময়



নিউজ ডেস্ক:: মাল্টিমিডিয়া. মাল্টিকালচারেল ও মাল্টিন্যাশনালের বৃটেনের ওয়েলসের রাজধানী কার্ডিফ শহরের   ঐতিহ্যবাহী কার্ডিফ শাহ্‌জালাল বাংলা স্কুল অতি সম্প্রতি বৃটেনের বার্মিংহামের সহকারী হাইকমিশনার হিজএক্সেলেন্সী মোহাম্মদ জুলকার নাঈন পরিদশনে এসে কমিউনিটির সাথে এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হোন। শুরুতেই  স্কুলের ছাত্র -ছাত্রীরা সহকারী হাইকমিশনারকে  ফুল দিয়ে বরণ করার পর   হিজএক্সেলেন্সী ছাত্র -ছাত্রীদের লেখা পড়ার খুজখবর নেন। কার্ডিফ শাহ্‌জালাল বাংলা স্কুলের প্রতিষ্ঠাকালীন চেয়ারম্যান  আলহাজ্ব মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফার সভাপতিত্বে এবং কার্ডিফ শাহ্‌জালাল  বাংলা স্কুল কমিটির জেনারেল সেক্রেটারি কমিউনিটি সংগঠক মোহাম্মদ মকিস মনসুর এর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি বৃটেনের বার্মিংহামের সহকারী হাইকমিশনার হিজএক্সেলেন্সী মোহাম্মদ জুলকার নাঈন ছাড়া ও বক্তব্য রাখেন কার্ডিফের শাহ্‌জালাল মসজিদের খতীব হাফিজ মাওলানা আলহাজ্ব বদরুল হক, শাহ্‌জালাল মসজিদের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোহাম্মদ  রেনু মিয়া, কমিউনিটি সংগঠক আহমেদ মালিক,  শাহ্‌জালাল মসজিদের ট্রেজারার শেখ মোহাম্মদ আনোয়ার, বাংলা স্কুল কমিটির ট্রেজারার এস. এ. খাঁন লেনিন, ওয়েলস কুলাউড়া সোসাইটির সদস্য আব্দুল মোত্তালিব,  ব্যাবসায়ী কয়সর আলী,  মতিউর রহমান  শাহ্‌  মোহাম্মদ আলম ও শিক্ষিকা আমিনা বেগম জুনু প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।
সভার শুরুতেই স্কুল কমিটির  জেনারেল সেক্রেটারি  সাংবাদিক মোহাম্মদ মকিস মনসুর কার্ডিফ শহরের  নবপ্রজন্মের সামনে আমাদের ভাষা, কৃষ্টি, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য,সাফল্য  সম্ভাবনা ও  মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরার মানসে ১৯৮১ সালে আমাদের মুরব্বীয়ানদের ধারা প্রতিষ্ঠিত কার্ডিফ কমিউনিটির  এই প্রথম প্রতিষ্ঠান বলে উল্লেখ করে  স্কুল প্রতিষ্ঠার ইতিকথা তুলে ধরে অবদানকারী সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে যারা চলে গেছেন না ফেরার দেশে সেই সব অবদানকারী সবার আত্মার মাহফেরাত কামনা সহ বিশেষ করে স্কুল প্রতিষ্ঠাকালীন জেনারেল সেক্রেটারি মরহুম আলহাজ্ব ছুরুক মিয়ার কথা শ্রদ্ধার সাথে তুলে ধরেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে  বৃটেনের বার্মিংহামের সহকারী হাইকমিশনার হিজএক্সেলেন্সী মোহাম্মদ জুলকার নাঈন কার্ডিফ শাহ্‌জালাল বাংলা স্কুল কমিটির  কমকান্ডের ভৃয়শী প্রশংসা করে স্কুলের উন্নয়নে হাইকমিশনের পক্ষ থেকে সবসময় সহযোগীতা অব্যাহত থাকবে বলে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করে  নবপ্রজন্মের সামনে আমাদের ভাষা, কৃষ্টি, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য,সাফল্য  সম্ভাবনা ও  মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরতে হবে ওরা যেনো আমাদের শিকড়কে ভূলে না যেতে পারে।
সভাপতির বক্তব্যে স্কুল কমিটির চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা  সহকারী হাইকমিশনারকে স্কুলে আসায় কমিটির পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানিয়ে আগামীদিনে ও স্কুল পরিচালনায় সম্মানিত  সকল অভিভাবকবৃন্দ ও কমিউনিটির সবার সার্বিক সহযোগীতা কামনা করেছেন।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত