শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

রাস্তা বেহাল,দেখার কেউ নেই…



চুনারুঘাট প্রতিনিধি:: হবিগঞ্জে দেওরগাছ ইউপির ময়নাবাদ থেকে জুরিয়া পর্যন্ত ছোট-বড় গর্ত দেখা গেছে। প্রায় ১ কিলোমিটারের সড়কের অবস্থায় খুবই খারাপ হয়ে দাড়িয়েছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা এর মেরামতে কোনো উদ্যোগ চোখে পড়ছে না ।
সরজমিনে দেখা গেছে, মফিজ উদদীন চৌধুরী দাখিল মাদ্রাসা থেকে একেবারে জুরিয়া পর্যন্ত মাটির সড়ক হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতে জন চলাচলের এই রাস্তাটি অনুপযোগী হয়ে পড়ে। কোথায় কোথায় ছোট-বড় গর্ত মাঝে পানি রয়েছে। এর মধ্য দিয়ে ছোট ছোট যানচলাচল করছে। কোনটি আটকে যাচ্ছে। আবার কোনটি জনসাধারণের ঠেলা ডেক্কায় গর্তে হেলে দুলে চলছে। ইটসলিং না হওয়ায় স্থানীয় বাসিন্দারা প্রতিনিয়ত যাতায়াতে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।
পরিদর্শনে দেখা গেছে পানি পয়নিষ্কাশন না থাকার কারণে পানি জমাটবদ্ধ হয়ে প্রথমে কাঁদায় রূপান্তরিত হয়। ছোট-বড় যানবাহণ চলাচলে ছোট গর্তটি বড় আকৃতি রূপ নেয়। একটি টমটম কিছুদুর যাওয়ার পরই গর্ত পড়ে আটকে যায় এবং ৩০ মিনিটে পথচারিদের সহায়তায় পার পায়। ফলে একদিকে গাড়ি যাত্রা ব্যাহত হচ্ছে অন্যদিকে পথচারিদের হাঁটাযাত্রা স্বাভাবিক প্রক্রিয়া ব্যাহত হচ্ছে।
ধান খেতে কাজ করেছেন স্থানীয় ৫ শ্রমিক জানান, বর্ষায় আসলেই গর্ত সৃষ্টি হয়। মালামাল আনা নেওয়া কষ্ট হয়। গাড়ি-ঘোড়া আসতে চায় না। আসলে ভাড়ায় বেশি নেয়। মানুষ স্বাভাবিকভাবে হেঁটে বাড়ি যাবে সেই নেই ; জুতা হাতে নিয়ে ছুটতে হয়। বয়স্কদের কেউ কেউ স্লীপ খেয়ে পড়েন যান আবার অনেকই হাত-পা ভাঙ্গে।
কালবার্টটি ভাঙ্গার কারণ জানিয়ে দুজন তরুণ জানান,মালবাহী ট্রাক্টর চলাচল করায় এটি ভেঙ্গে যায়। ভাঙ্গণের পরিধি ছোট থেকে এখন বড় হয়েছে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে জনপ্রতিনিধি বলেন, ৩ নং ইউপির কোনো কাজ নেই। প্রকল্প বরাদ্দ খুবই কম। এমপির সাথে উপজেলা চেয়ারম্যানে দুরত্ব থাকায় কোনো কাজই সহজে হচ্ছে না।
তিনি আরও বলেন, অন্যান্য ইউপিতে ২/৩ কোটিবা আরও বেশি টাকার কাজ হচ্ছে। এখানে বাদ যাচ্ছে। জনসাধারণরা কাঙ্খিত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন । অনেক চেষ্টায় ৫০ হাজার টাকার কাজ করছিলাম। খুব কষ্ট হয়েছে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত