রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

সারাদিন ব্যাপি মাছ ধরা মেলা অনুষ্ঠিত



চুনারুঘাট প্রতিনিধি:: হবিগঞ্জে চুনারুঘাট উপজেলায় দেওরগাছ ইউপিতে একটি পুকুরে বর্শি দিয়ে মাছ ধরা মেলা এবং বিজয়ীদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
চুনারুঘাট বর্শি শিকার ফেডারেশনের উদ্যোগে রবিবার সকাল ৬ টা থেকে সন্ধ্যায় ৬ টা পর্যন্ত সারাদিনব্যাপি মেলায় ২৭ জন প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করেন। সন্ধ্যায় ঠিক পরক্ষণে ৬ টি ক্যাটাগরি ভিক্তিতে পুরষ্কার দেওয়া হয়েছে।
সরজমিনে ঘুরে দেখা যায়, আমতলী বাজার থেকে সুতাং নদীর সন্নিনিকটে ইট ভাটায় সংলগ্নে বড় একটি পুকুর রয়েছে। পুকুরে পাড়ে ২৭ জন চিপ নিয়ে বসে পড়েন। মাছ ধরার দৃশ্য দেখতে চারিদিকে লোক সমাগমের ভরপুর। একটি চায়ের অস্থায়ী দোকানে চা খেয়ে এদিক-সেদিকে পয়চারি করেন। প্রচন্ড রোদে দর্শকসহ চিপের মালিক পানির দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছেন এবং পরিবেশটা একেবার সুনশান নিরবতা। প্রত্যেকেই একে অপরের চিপের দিকে তাকাচ্ছেন। মৃদুস্বরে মাইক দিয়ে নিয়ম-কানুন বিষয়ে কথোপকথন চলছে। হবিগঞ্জ এবং শায়েস্থাগঞ্জ থেকে আগত মাছ শিকারীরা একটি বিরতিহীন বাসও পুকুরে প্রায় ৪০ হাত দূরে দাড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে।
পুকুরের পাড়ে বসে কথা হলো চুনারুঘাট উপজেলার বর্শি শিকার ফেডারেশনের সভাপতি হাজি আওয়ালের সাথে। তিনি বলেন, ছোট্ট পরিষরে উদ্যোগ। বিভিন্ন স্থানে এ রকম মেলা হয়। চিপ প্রতি ৭,৫০০ টাকা। ৬ টি ক্যাটাগরিতে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা এবং সর্বনিম্ন ৫ হাজার টাকা করে পুরস্কার দেওয়া হয়েছে ।
তারা কোন কোন জায়গায় থেকে আসছে জানতে চাইলে তিনি আরও বলেন, হবিগঞ্জ সদর, শায়েস্থাগঞ্জ, চুনারুঘাটে বিভিন্ন স্থান থেকে বর্শি শিকারীরা অংশ নিয়েছেন।
পুরস্কার কিভাবে দিচ্ছেন এ সর্ম্পকে তিনি বলেন, ১,২,৩ সবুজ,লাল, হলুদ রংয়ের তিনটি পতাকা আছে। মেলা চলাকালিন সময়ে পতাকা গুলো ঘুরবে। অর্থাৎ মাছ বেশি ওজনে যে ধরবে তার পাশে সবুজ তারপরে লাল এবং সর্বেশষ হলুদ।
মেলা দেখতে আসছেন মনিরুল ইসলাম জুয়েল বলেন, এটি ব্যতিক্রম মেলা। চুনারুঘাটে তাদের গ্রুপ রয়েছে। এই গ্রুপটি মাছ ধরতে বিভিন্ন স্থানে যান। এই মুহুর্তে এই পাশে ১,২য় টি অবস্থান করছে অপরটি ঐ পাড়ে রয়েছে।
টিলায় বসে কথা হলো সাইফুল ইসলাম। তিনি বলেন, মেলায় আসার মুল কারণ হলো তরতাজা বড় মাছ কিনবো। কেউ বিক্রি করলে তা কিনে নিয়ে যাবো।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত