রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দক্ষিণ সুনামগঞ্জের দামোধরতপী বাজারে চলছে শীলং তীর নামক জুয়া খেলার আসর



সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:: গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর ও বন্ধ হয়নি দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পূর্বপাগলা ইউনিয়নের দামোধরতপী বাজারে শীলং তীর নামক জুয়া খেলার আসর। দোকানগুলোতে অবাদে চলছে শিলং তীর নামক রমরমা জুয়া খেলার আসর। আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা এ সব জুয়াড়ীদের বিরুদ্ধে আর্থিক জরিমানার ব্যবস্থা নিলেও শাস্থির তেমন কোন কার্যকরী পদক্ষেণ না নেয়ায় দিন দিন আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে ঐ সমস্ত শিলং তীর খেলার আয়োজকরা। জুয়ার আসরগুলোতে প্রতিদিন বিভিন্ন অঞ্চলের জুয়ারীদের পাশাপাশি এলাকার যুবকরা আরো বেশী করে ঝুকছে জুয়া খেলার দিকে । বর্তমান প্রজন্মের যুবকদের ভবিষ্যৎ নিয়ে রীতিমতো শঙ্কিত তাদের অভিভাবকরা।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পূর্বপাগল ইউনিয়নের চোরখাই গ্রামের মৃত মছদ্দর আলীর ছেলে ডাকাতিসহ বিভিন্ন অপকর্মের ও মামলার আসামী আকিক মিয়ার নেতৃত্বে মোবাইল ফোনের ওয়ার্ডসাপ এবং ইমু ও টোকনের মাধ্যমে দামোধরতপী ও মামদপুর পয়েন্টের রাসেল টেলিকম সহ বিভিন্ন দোকানগুলোতে স্থানীয় দামোধরতপী ও আশপাশ গ্রামের তার কিছু বখাটে জুয়ারীদের সহযোগিতায় এ জুয়ার আসর বসে। আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের চোখ ফাঁকি দিয়ে এসব দোকানগুলোতে জুয়ার আসর বসে এবং প্রতিদিন লাখ লাখ টাকার জুয়া খেলা অনুষ্ঠিত হয়।
স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের চলাচলের একমাত্র রাস্তাটি বন্ধ করে জুয়া খেলার আসর বসলেও কারো প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছেন না। রাস্তা বন্ধ করে জুয়ার আসর বসার কারণে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন বিশেষ করে মহিলাদের প্রতিনিয়ত চলাচলে সবাই উদ্বিগ্ন রয়েছেন । জুয়ারীদের প্রতিনিয়ত আনোগোনার কারণে একদিকে ঐ এলাকার পরিবেশ যেমন নষ্ট হচ্ছে তেমনিভাবে জুয়া খেলা নিয়ে যেকোনদিন সংঘর্ষের আশঙ্কাও রয়েছে জনমনে।
দামোধরতপী গ্রামের মৃত ইসরাইল আলীর ছেলে মোঃ রফিক মিয়া গত ১ জুন ২০১৭ ইং তারিখে নিজে বাদি হয়ে চোরখাই গ্রামের আকিক মিয়াসহ আরো কয়েকজনকে আসামী করে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-৭৯/২০১৭ ইং। মামলা দায়ের সাথে সাথে এ ঘটনায় ডিবি পুলিশ আকিক মিয়া, কয়েছ, সাইদুল শায়েদ কে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতদের দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও মোবাইল কোর্টের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আলমগীর কবিরের আদালতে উপস্থিত করা হলে তাদের প্রত্যেককে আর্থিক জরিমানা করে ছেড়ে দেয়া হয়।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, শীলং তীর নামে যে জুয়া খেলাটি চলে সেটি মোবাইল ফোন এর মাধ্যমে করা হয়। এই স্টাটটিতে পুলিশী তৎপরতা আছে এবং এই শীলং তীর খেলার সাথে যারা জড়িত পুলিশ তাদের গ্রেফতারে তৎপর রয়েছে।
পুলিশ সুপার মোঃ বরকতুল্লাহ খান বলেন, আমি বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে খতিয়ে দেখা হচ্ছে এবং যারা এ ঘটনার সাথে সর্ম্পৃত্ত তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান।##

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত