বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

চীনে কোরআন-জায়নামাজ ‘নিষিদ্ধ’, সেনেগাল ফুটবলারের কড়া জবাব



নিউজ ডেস্ক::চীনে মুসলমানদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ আল কোরআন ও জায়নামাজসহ অন্যান্য ধর্মীয় উপকরণ পুলিশের হাতে তুলে দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এই নির্দেশ অমান্য করা হলে কঠিন শাস্তি দেয়া হবে। দেশটির মুসলিম অধ্যুষিত উত্তর-পশ্চিম সীমান্তের জিনজিয়াং এলাকায় এই নির্দেশ দিয়েছে সরকার। চীন কর্তৃপক্ষের এমন নির্দেশনার কড়া জবাব দিয়েছেন সেনেগালের তারকা ফুটবলার দেম্বা বা।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে ৩২ বছর বয়সী চেলসির সাবেক এই ফুটবলার লিখেছেন, ‘যদি তারা জানত যে, মুসলিমরা মেঝেতেই নামাজ পড়তে পারে; এবং মিলিয়ন মুসলিম কোরআন না খুলেই মুখস্ত পড়তে পারে; তখন সম্ভবত তারা (চাইনিজ) তাদেরকে (মুসলিম) হৃৎপিন্ড খুলে তাদের কাছে হস্তান্তর করার আদেশ দিতো।’

চীনের দক্ষিণ-পশ্চিম প্রান্তের শিনজিয়ান প্রদেশে কাজাখ, উইঘুর, কিরঘিজের মতো সংখ্যালঘু উপজাতির বাস। ইসলাম ধর্মাবলম্বী ওই জনজাতির প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই রয়েছে কোরআনসহ অন্যান্য ধর্মীয় জিনিসপত্র। ‘রেডিও ফ্রি এশিয়া’ নামক দেশটির একটি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুসারে চীনা প্রশাসনের তরফে ওই এলাকার বাসিন্দাদের স্পষ্ট জানানো হয়েছে, চাঁদ-তারা আঁকা সমস্ত পণ্য তাদের প্রশাসনের হাতে তুলে দিতে হবে। জমা দিতে হবে নামাজ পড়ার মাদুরও (জায়নমাজ)।
তবে এবারই প্রথম নয়, এর আগেও চীনা সরকারের এমন নির্দেশের মুখে পড়তে হয়েছে শিনজিয়ান প্রদেশের বাসিন্দাদের। চলতি বছরের শুরুর দিকেই জিনজিয়াং প্রশাসনের তরফ থেকে ইসলাম বিরোধী অভিযান শুরু হয়। কোরআনে বেশকিছু চরমপন্থী বক্তব্য রয়েছে এমন অভিযোগ এনে পাঁচ বছর আগের সব কোরআন নষ্ট করে দেয় প্রশাসন। এছাড়া গত এপ্রিলে এক নির্দেশিকা জারি করে চীনা সরকারের তরফে শিশুদের ইসলামি নাম রাখার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।
সূত্র: ডেইলি মেইল

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত