বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

প্রেমের পরে বিয়ে, স্ত্রীকে খুন করে নাটক সাজালো স্বামী!



নিউজ ডেস্ক::দেড় বছর আগে বেসরকারী একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া লেখার সময় প্রেমের সম্পর্ক হয় তাদের, পরে বিয়ে করেন রাসেল ও সুমনা। এরপর পৃথক দুটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকরি করছিলেন তারা। রোববার রাতে বনশ্রীর সি ব্লকের ৪ নম্বর সড়কের ৩৪ নম্বর বাড়ির ৬ তলার ছাদে একটি ফ্ল্যাট থেকে স্ত্রী জান্নাতুল বুশরা সুমনাকে (২৫) মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

সুমনার স্বজনদের অভিযোগ, জান্নাতুল বুশরাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছেন তার স্বামী রাসেল। এই ধারণা পুলিশেরও। তবে রাসেল অস্বীকার করছেন এটা। গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রামপুরা থানা পুলিশ সোমবার দুইদিনের রিমাণ্ডে নিয়েছে তাকে।
স্ত্রীর লাশ উদ্ধারের পর রোববার রাতে রাসেল দাবি করেছিলেন, রাত ৮টার দিকে তিনি অফিস থেকে বাসায় ফিরে ঘরের দরজা ভেতর থেকে বন্ধ দেখতে পান। সুমনাকে ডাকাডাকি করলেও ভেতর থেকে সাড়া না পেয়ে দরজায় ধাক্কা দেন তিনি। একপর্যায়ে দরজা খুলে ভেতর থেকে এক যুবক বেরিয়ে দ্রুত পালানোর চেষ্টা করে। তিনি পরিচয় জানতে চাইলে ইন্টারনেট সংযোগ প্রতিষ্ঠানের কর্মী পরিচয় দেন সে। তাতে সন্দেহ হলে ঝাপটে ধরতেই তাকে ইট দিয়ে আঘাত করে পালিয়ে যায় ওই যুবক।

রাসেল আরো জানিয়েছিলেন, এরপর তিনি বাসায় ঢুকে দেখেন স্ত্রী হাত-পা বাঁধা অবস্থায় পড়ে রয়েছে। গলায় কাপড় পেঁচানো। তিনি চিৎকার দিলে দারোয়ানসহ প্রতিবেশীরা বাসায় আসেন। পরে তিনি বন্ধুদেরও খবর দেন।

তবে পুলিশ দাবি করছে, রাসেলের এসব ভাষ্য সাজানো। পারিবারিক কলহের জের ধরে সুমনাকে শ্বাসরোধে হত্যার পর নাটক সাজিয়েছেন তিনি। নিহত সুমনার বাবা মো. রফিকের দায়ের করা মামলার ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হয়েছে তাকে।

সুমনার বাবা পুলিশকে বলেছেন, রাসেল তার মেয়েকে জোর করে বিয়ে করেছিল। তারা সে বিয়ে মেনে নেননি। এজন্য মেয়ের উপর বিভিন্ন সময়ে নির্যাতন করা হতো। বিয়ে হলেও সংসারে শান্তি ছিল না। এর জের ধরেই রাসেল সুমনাকে খুন করেছে।

অবশ্য রাসেলের কয়েকজন বন্ধু জানিয়েছেন, রাসেল সুমনা প্রেম করে বিয়ে করেছিলেন। তাদের জানামতে দুজন সুখেই ছিলেন। রাসেল সুমনাকে খুন করতে পারে এমন কোনো কারণ তাদের জানা নেই।

রামপুরা থানার ওসি প্রলয় কুমার সাহা জানান, মামলার এজাহারভুক্ত আসামি হিসেবে রাসেলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্ত্রীকে খুনের কথা স্বীকার করেনি সে। তবে নানা কারণেই তাকে সন্দেহ হচ্ছে। বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুইদিনের রিমাণ্ডে নেওয়া হয়েছে তাকে। সমকাল

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত