বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মৌলভীবাজার কারাগারে কয়েদির মৃত্যু নিয়ে পরিবার সদস্যদের সন্দেহ



কমলগঞ্জ সংবাদদাতা ::সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে গত বুধবার রাতে মৌলভীবাজার কারাগারের কমলগঞ্জের কয়েদি পাতানা মাদ্রাজী (৩৬) নামে এক চা-শ্রমিক চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। পরিবার সদস্যদের সন্দেহ, শারীরিক নির্যাতনে তার মৃত্যু হয়েছে। ওই কয়েদি কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের পাত্রখোলা চা-বাগানের বাজার লাইন এলাকার চা-শ্রমিক মৃত মিনু মাদ্রাজী সন্তান ও দুই সন্তানের জনক।

বিলম্বে প্রাপ্ত খবরে কারা কর্তৃপক্ষ, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ও পাত্রখোলা চা-বাগান সূত্র জানা যায়, মাস দুয়েক পূর্বে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর পাত্রখোলা চা-বাগানে অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানকালে পাতানা মাদ্রাজীর বসতঘর থেকে প্রচুর পরিমাণ দেশীয় মদ উদ্ধার করে। এসময় পাতানা মাদ্রাজী পালিয়ে যান। পরে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর তার নামে কমলগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করে। মৌলভীবাজার আদালত থেকে তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হলে কমলগঞ্জ থানাপুলিশ গত ৬ অক্টোবর তাকে গ্রেপ্তার করে ৭ অক্টোবর আদালতে প্রেরণ করে। ওই দিন সন্ধ্যা ৬.৫৫ মিনিটে তাকে মৌলভীবাজার কারাগারে প্রেরণ করা হয়। ৯ অক্টোবর সোমবার কয়েদি পাতানা মাদ্রাজী অসুস্থ হলে তাকে প্রথমে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে পরে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১১ অক্টোবর রাত সাড়ে ৮টায় তিনি মারা যান।
পাতানা মাদ্রাজি ছোটভাই হরি মাদ্রাজী (২৮) অভিযোগ করে বলেন, ৬ অক্টোবর কমলগঞ্জ থানার পুলিশ তার বড় ভাইকে সম্পূর্ণ সুস্থ অবস্থায় গ্রেপ্তার করে। এর পর তারা আর কোনো খোঁজ পাননি। বৃহস্পতিবার তারা জানতে পারেন, অসুস্থ অবস্থায় তিনি সিলেটে মারা গেছেন। হরি মাদ্রাজী আরও জানান, হয়তোবা গ্রেফতারের পর পুলিশি হেফাজতে থাকাকালীন তার ভাইকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করা হয়েছিল। সে নির্যাতনেই অসুস্থ হয়ে মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার (১২ অক্টোবর) রাত ৯টায় লাশ বাড়িতে এনে শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হয়।
মৌলভীবাজারের জেল সুপার আনোয়ার হোসেন জানান, ৭ অক্টোবর সন্ধ্যায় তাকে কারাগারে গ্রহণ করা হয়। ৮ অক্টোবর রাত পর্যন্ত তিনি ভালো ছিলেন। ৯ অক্টোবর তার শরীর খারাপ হলে তাকে প্রথমে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে এবং পরে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। তিনি আরও বলেন, পাতানা অতিরিক্ত মদ পানের কারণে একাধিক রোগে ভুগছিলেন বলে চিকিৎসক জানিয়েছেন। জেল সুপার চিকিৎসাধীন অবস্থায় পাতানার মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
কমলগঞ্জ থানার ওসি মো. বদরুল হাসান জানান, ৬ অক্টোবর পাতানা মাদ্রাজীকে গ্রেপ্তার করে ৭ অক্টোবর মৌলভীবাজারের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। তিনি আরও বলেন, তাকে সুস্থ অবস্থাতেই আদালতে প্রেরণ করা হয়। এখানে কোনো রকম পুলিশি নির্যাতন করা হয়নি।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, মৌলভীবাজার এর সহকারী পরিচালক (এডি) সুবোধ কুমার বিশ্বাস জানান, ২ থেকে ৩ মাস পূর্বে পাত্রখোলা চা-বাগানে অভিযান চালিয়ে মদ উদ্ধার করা হয় এবং তাকে না পেয়ে থানায় কমলগঞ্জ থানায় মামলা দিলে আদালত থেকে গ্রেপ্তারি সমন জারি হয়। সেই সূত্রে পুলিশ আসামীকে ধরে মৌলভীবাজার আদালতে প্রেরণ করে। তিনি বলেন, আসামী আদালতের মাধ্যমে কারাগারে ছিল।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত