শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

‘নানী-দাদীদের’ সুন্দরী প্রতিযোগিতা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক::সুন্দরী প্রতিযোগিতা মানেই তরুণীদের মেলা। আর সেই সুন্দরী প্রতিযোগিতার কথা শুনলেই যে কারোর মনের মধ্যে একদল সুন্দরী তরুণীর ছবি ভেসে ওঠে। এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু গত ১৯ অক্টোবর যুক্তরাষ্ট্রের আটলান্টিক সিটিতে এক ভিন্নধর্মী সুন্দরী প্রতিযোগিতা হয়ে গেল। নানি-দাদিদের বয়সীদের নিয়ে ছিল এ সুন্দরী প্রতিযোগিতাটি।

অন্যান্য সুন্দরী প্রতিযোগীতার মত রীতিমতো জমকালো সব বাহারী পোশাকে সুসজ্জিত হয়ে দাদী-নানীরা অংশ নেন ‘মিস সিনিয়র আমেরিকা ২০১৭’-তে। যে বয়সে তাদের সাধারণত অসুখ-বিসুখে বিছানায় পড়ে থাকা অথবা হুইল চেয়ারে চলাফেরার করার কথা। কিন্তু তারা সেই বয়সকে বৃদ্ধা আঙুল দেখিয়ে তাদের সৌন্দর্য ও ব্যক্তিত্বের ঝলক দেখালেন। এএফপি এ খবর দিয়েছে।

চলতি বছর ৭৩ বছর বয়স্ক নিউ জার্সির ক্যারোলিন স্লেড হার্ডেন ‘মিস সিনিয়র আমেরিকা’র খেতাব জিতে নেন। আনন্দে উচ্ছ্বসিত ক্যারোলিন স্লেড হার্ডেন বলেন, এ বয়স হচ্ছে মার্জিত সৌন্দর্যের। এটা কেবল শুরু, শেষ নয়। দুই সন্তানের এ জননীর তিনজন পৌত্র ও একজন প্রপৌত্র রয়েছে।

হার্ডেন বলেন, সৌন্দর্য প্রদর্শনী বলতে লোকে মনে করে শারীরিক সৌন্দর্য। তবে এটি আসলে ‘ভেতর থেকে আসা সৌন্দর্য’। দৈনিক সকালে নিয়মমিত শরীরচর্চা করেন। সৌন্দর্যের রহস্য সম্পর্কে ক্যারোলিন স্লেড হার্ডেন বলেন, ৭০ বছর বয়েসেও কী করে সুন্দর থাকা যায় এর কোনো জাদুকরি উত্তর নেই।

তিনি বলেন, ‘খোদার কাছে প্রার্থনা করুন আর স্বাস্থ্যকর খাবার খান।’ তিনি আরো বলেন, ‘লোকে বলে, আমি দেখতে সিনড্রেলার মতো। তবে কখনই মনে হয় না, আমি ততটা সুন্দর।’ মিস সিনিয়র আমেরিকা প্রতিযোগিতায় ৯০ বছর ছাড়িয়ে যাওয়া কিছু নারীও অংশ নেন। এ প্রতিযোগীদের অনেকেই ক্যান্সার, তালাক ও বৈধব্যের মতো যন্ত্রণার মধ্য দিয়েও গেছেন। মিস সিনিয়র আমেরিকা প্রতিযোগিতার দিন তারা বিভিন্ন ধরনের নাচ-গান ও হাঁটাচলার প্রদর্শনী দেখিয়ে প্রমাণ করেন এগুলো করার জন্য বেশি বয়স কোনো ব্যাপার নয়।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত