মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ঢাবির বাসে উল্টো পথে, সমালোচনা কাদেরের মুখে



নিউজ ডেস্ক:: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছেলে-মেয়েরা বিআরটিসি’র গাড়িকে উল্টো পথে চালিত করে। কথা না মানলে ড্রাইভারকে গন্তব্যে নিয়ে আটকে রাখা হয়। এই ধরনের শিক্ষার কোনো দরকার নেই। এরাই তো এদেশের দায়িত্ব নেবে। এরা দায়িত্ব নিলে দেশের কোনো কাজে আসবে না।

রোববার সকালে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন। রাজধানীর উসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ‘সাবধানে চালাবো বাড়ি, নিরাপদে ফিরবো বাড়ি’ শীর্ষক আয়োজন অনুষ্ঠিত হয়।
আমলাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘কত বলেছি নিয়ম মেনে চলুন, শোনেননি। তবুও উল্টো পথে গাড়ি চালাচ্ছেন। এখন দুদক ধরছে, ধরবেই। আমরা রাস্তাকে নিরাপদ করবো। হাল ছাড়ব না। প্রতিদিন কাজ করে যাবো। আমি কারও কমিশন নিয়ে চলি না। শতভাগ সততা নিয়ে কাজ করি। তাই কাউকে ভয় পাই না।’
জনপ্রতিনিধিদের সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিভিন্ন জনপ্রতিনিধিদের এলাকায় হেলমেট ছাড়া দিগ্বিজয়ীআলেকজান্ডারের মতো গাড়ি চালাচ্ছে অনেকে। জনপ্রতিনিধিদের সংবর্ধনা দিতে শত শত মানুষ হেলমেট ছাড়া গাড়ির মহড়া করে। এতে করে যানজট হয়। সাধারণ মানুষ ভোগান্তিতে পড়ে। নিজেরা নিয়ম মেনে না চলায় দুর্ঘটনার সম্মুখীন হয়।’
তিনি বলেন, জনপ্রতিনিধিদের এলাকায়ই নসিমন-করিমন তথা ব্যাটারি চালিত গাড়ির কারখানা, যে গাড়িতে মানুষ প্রতিনিয়ত প্রাণ দিচ্ছে। সড়ক ঝুঁকিপূর্ণ করছে। কিন্তু তারা কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছেন না।
ওবায়াদুল কাদের বলেন, গত তিনদিন ধরে জলজট, জনজট হয়েছে। সে কারণে সমালোচনাও হচ্ছে, হোক। সমালোচনা আমি প্রত্যাশা করি। কিন্তু অবস্থাকে বিবেচনায় এনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে তুলনা করে সমালোচনা করবেন।
বিআরটিএর চেয়ারম্যান মশিউর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ‘নিরাপদ সড়ক চাই’-এর সভাপতি চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন- সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য মনিরুল ইসলাম এমপি, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সাবেক সচিব এম এন সিদ্দিক, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব নজরুল ইসলাম।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত