বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দুই সন্তানের জননীর লাশ উদ্ধার



নিউজ ডেস্ক ::চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়ন থেকে দুই সন্তানের জননী মরিয়ম বেগম (২০) নামে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (৩ নভেম্বর) সকাল ১০টায় ঐ ইউনিয়নের পূর্ব কাজিরগাঁও গ্রামের মহন গাজী বেপারী বাড়ি থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

মরিয়মকে তার স্বামী মহিন গাজী (২৮) ও তার পরিবার হত্যা করেছে বলে নিহতের বাবার পরিবার দাবী করেছেন। মহিন একই বাড়ির লিয়াকত আলীর ছেলে। তাদের রিয়াদ (২) ও রাশেদ (২ মাস) বয়সি দুটি ছেলে সন্তান রয়েছে।

শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে মরিয়মের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চাঁদপুর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার পর থেকে মরিয়মের স্বামী মো. মহিন গাজী ও তার মা, বাবাসহ পরিবারের লোকজন পলাতক রয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে বলে মরিয়মে বড় ভাই মো. আলী আহম্মদ মিজি জানান।

মরিয়মের বড় ভাই খলিলুর রহমান জানান, আমার বোন মরিয়ম ও মহিনের সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে বোন কালো বলে ভগ্নিপতি সংসারে অশান্তি ও মরিয়মকে মারধর করতো। এ নিয়ে বেশ কয়েকবার এলাকায় সালিশি বৈঠক হয়। বোনের সুখের জন্য বিভিন্ন সময়ে আমরা ভগ্নিপতিকে ব্যবসা করার জন্য ৫ লাখ টাকা দিয়েছি।

এছাড়াও ৫টি গরুসহ সংসারে ব্যবহৃত সকল জিনিসপত্র দিয়ে সহযোগিতা করে আসছি। কিন্তু কোন কিছুতেই ভগ্নিপতির মন পাওয়া যায়নি। সম্প্রতি সময়ে সে বিদেশ যাবে বলে বাবার বাড়ি থেকে টাকা এনে দেয়ার জন্য বোনের উপর চাপ সৃষ্টি করে। এ নিয়ে তাদের স্বামী-স্ত্রী দুজনের মধ্যে বৃহস্পতিবার দিনভর ঝগড়া হয়। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩টায় ভগ্নিপতি আমার বোন আত্মহত্যা করেছে বলে ফোন দেয়।

মহিনের বড় বোন বিলকিছ বেগম জানান, তাদের দুজনের সমস্যার সমাধান করতে বৃহস্পতিবার সকালে বাবার বাড়িতে আসি। দিনভর তারা আমাকে ডিঙ্গিয়ে ঝগড়া করে। এ নিয়ে মহিন তার স্ত্রীকে মারধর করে। বিকেলে আমি উভয়কে মিলিয়ে দেই। রাত সাড়ে ১১টার দিকে মহিন তার নিজ ঘর থেকে আমাকে ডেকে পাঠায়। গিয়ে দেখি ভাবি অচেতন অবস্থায় বিছানায় পড়ে আছে। রাতে ডাক্তার এসে ভাবি মারা গেছে বলার পর মহিন পালিয়ে যায়।

হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনর্চাজ মো. জাবেদুল ইসলাম জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। আর এ বিষয়ে অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হবে। ময়নাতদন্তের উপর ভিত্তি করে পরবর্তী আইনি পদক্ষেপ নেয়া হবে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত