সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জিয়াউর রহমানের মরণোত্তর বিচারের দাবি



নিউজ ডেস্ক::১৯৭৫ সালে স্ব-পরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা ও জেলখানায় জাতীয় চার নেতাকে হত্যার পরপরই ৭ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধা সৈনিক হত্যার সাথে অঙ্গাঅঙ্গিভাবে জেনারেল জিয়াউর রহমান জড়িত বলে দাবি করে তার মরণোত্তর বিচারের দাবি জানিয়েছে জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগ ও জয় বাংলা মঞ্চ।

মঙ্গলবার (৭ নভেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ করে জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগ ও জয় বাংলা মঞ্চ। সমাবেশে এ দাবি জানানো হয়।সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন জয় বাংলা মঞ্চের সভাপতি মওলানা মুফতি মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী। বক্তব্য রাখেন জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগের সভাপতি এম.এ জলিল, ন্যাপ-ভাসানীর চেয়ারম্যান এম.এ ভাসানী, জাতীয় স্বাধীনতা পার্টির সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন খান মজলিশ, বাংলাদেশ মানবাধিকার আন্দোলনের সভাপতি মওলানা খাজা মহিবউল্লাহ শান্তিপুরী, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের নেতা আ.স.ম মোস্তফা কামাল, বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক মুক্তি আন্দোলনের সভাপতি আশরাফ আলী হাওলাদার, লোকশক্তি পার্টির সভাপতি সাহিকুল ইসলাম টিটু, বাংলাদেশ জনতা পার্টির সভাপতি আবু আল মামুন দীপু মীর, বঙ্গবন্ধু জাতীয় যুব পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক ইউসুফ আলী জীবন, ওলামা লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আখতার হোসাইন ফারুকী, মাওলানা তাজুল ইসলাম, মাওলানা শামীম আহমেদ, শ্রমিক নেতা আব্দুর রহিম প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ১৯৭৫ সালে স্ব-পরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা ও জেলখানায় জাতীয় চার নেতাকে হত্যার পরপরই ৭ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধা সৈনিক হত্যার সাথে অঙ্গাঅঙ্গিভাবে জড়িত এবং নেতৃত্ব দিয়েছেন মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান। তিনি সেনা ছাউনি ব্যবহার করে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে এবং দেশে স্বাধীনতা বিরোধী রাজাকার, আল শামস এর প্রতিষ্ঠা করেন।

বক্তারা আরো বলেন, সুপ্রিম কোর্ট রায় দিয়েছেন মোস্তাক-জিয়া ও এরশাদের শাসন অবৈধ। যারা সেনা ছাউনি ব্যবহার করে অবৈধ সরকারে থাকাবস্থায় বিএনপি ও জাতীয় পার্টিকে জন্ম দিয়েছেন দেশকে অসাংবিধানিক, অগণতান্ত্রিক, সাম্প্রদায়িক দেশ বানিয়েছেন সেই কারণেই বিএনপি ও জাতীয় পার্টিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে আগামীতে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সকল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করে জাতীয় নির্বাচন করতে হবে। যে নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার এবং বিরোধীদল মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষে থাকবে। কোন প্রকারের আগুন সন্ত্রাস, তেঁতুল হুজুররা যাতে নির্বাচন না করতে পারে সেই ব্যবস্থা করতে হবে। তাহলে আগামী নির্বাচনের মাধ্যমে যে সরকার হবে তারা হবেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সোনার বাংলা শেরে বাংলা সোহরাওয়ার্দী-ভাসানীর স্বপ্নের বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কাজ করবে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত