বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

আ’লীগকে কোনোভাবেই ছাড় দেবে না বিএনপি



নিউজ ডেস্ক::দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করলেও একাদশ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা অন্যতম বৃহত্তম রজনৈতিক দল বিএনপি। আর এই নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে কোনভাবেই ছাড় দিতে নারাজ এই প্রধান বিরোধী দল।

বিএনপি সূত্র মতে, সহায়ক সরকারের দাবির কারণেই বিএনপি ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে নাই। কিন্তু সরকার তখন আমাদের দাবি উপেক্ষা করেই গায়ের জোরে নির্বাচনের ব্যবস্থা করে। যা কারো কাছে গ্রহণযোগ্যতা পায়নি। দেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে দিতে সব ধরনের প্রস্তুতিই তাদের আছে। বার বার সরকারকে এই সংকট সমাধানে সমঝোতার কথা বলা হচ্ছে। নির্বাচনের আগ মুহূর্ত পর্যন্ত বিএনপি সমঝোতার আহ্বান জানাবে কিন্তু তাতে কাজ না হলে তখন আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে সরকারকে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দিতে বাধ্য করা হবে। সুষ্ঠু, গ্রহণযোগ্য এবং অংশগ্রহণ মূলক নির্বাচনের জন্য ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারকে বাধ্য করতে সব ধরনের পথকেও বেছে নিতে দিধা করবে না দলটি।

সহায়ক সরকারের ফয়সালা না দিয়ে আওয়ামী লীগ সরকার যদি আবারও ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মত দলীয় সরকারের অধীনেই নির্বাচনের ব্যবস্থা করে সেক্ষেত্রে বিএনপি কি ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করবে জানতে চাইলে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমরা আশা করছি খুব শীঘ্রই সরকারের শুভ বুদ্ধির উদয় হবে। আগামী নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দেশের চলমান সংকট সমাধানে সকল রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন তিনি। আর সমঝোতায় সহায়ক সরকারের ব্যবস্থা করতে হবে। কেননা সহায়ক সরকার ছাড়া দেশে নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়।

দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মত দেশে আর কোনো নির্বাচন হতে দেয়া হবে না। জনগণের প্রয়োজনে, জনগণ যদি চায় তাহলে এই সংবিধান পরিবর্তন করে একটি সহায়ক সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে। অন্যথায় জনগণ এই দাবি নিয়ে মাঠে নামবে এবং তারা তাদের অধিকার আদায় করে নিবে।

এ বিষয়ে দলটির আরেক স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, সহায়ক সরকারের যে দাবি আমাদের সেটা তো যৌক্তিক। সরকার যতই না না বলুক শেষ পর্যন্ত আমাদের দাবি মেনে নিতে বাধ্য হবে এবং সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমেই আমরা ক্ষমতায় যাব।

দলটির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য করতে সরকারকে সমঝোতায় আসতেই হবে। সমঝোতায় না আসলে রাজপথে আন্দোলন ছাড়া বিএনপির আর কোনো পথ খোলা থাকবে না। আর বিএনপি দুটি পথকে বেছে নিতেই প্রস্তুত। হয় সমঝোতা না হয় আন্দোলন বলেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী বলেন, সরকার যদি আবারও ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি মত নির্বাচন করতে চায়। সে সময় তো দেশে একটা বিশেষ অবস্থা তৈরি হবে। আর সেই অবস্থা বিএনপি বিশেষ ভাবেই মোকাবেলা করবে ইনশাল্লাহ। বিএনপি নির্বাচন মুখি দল। বিএনপি যত বার ক্ষমতায় গেছে নির্বাচনের মাধ্যমেই গেছে। আমাদের দাবি সহায়ক সরকারের অধীনে লেভেল প্লেইং ফিল্ডের মাধ্যমে দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। তাদের আর জনসর্মথন নেই। তারাও সমাবেশ করেছে আমরাও সমাবেশ করেছি। কিন্তু আমাদের ৪ ভাগের একভাগ লোকও তাদের সমাবেশে হয়নি।

তিনি আরও বলেন, সামনে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। আমরা এই নির্বাচনে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের ভুমিকা দেখতে চাই। এ নির্বাচনটা নির্বাচন কমিশনের জন্য একটা পরীক্ষাও বলতে পারেন। তারপর আমরা প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত