সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

উবার-পাঠাও বন্ধ চায় সিএনজি চালকরা, ধর্মঘটের ডাক



নিউজ ডেস্ক::অ্যাপনির্ভর যোগাযোগব্যবস্থায় যাত্রীদের সেবা দেওয়ার প্রতিষ্ঠান উবার ও পাঠাও বন্ধের দাবি জানিয়েছে সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালকদের একটি সংগঠন। দাবি মানা না হলে ধর্মঘটের হুমকিও দেওয়া হয়।

ঢাকা জেলা সিএনজি অটোরিকশা শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ব্যানারে আজ রোববার বেশ কিছু শ্রমিক তাঁদের দাবি-দাওয়া নিয়ে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) ভবনের সামনে বিক্ষোভ করেন।

অবস্থান কর্মসূচিতে সংগঠনটির সদস্য সচিব সাখাওয়াত হোসেন দুলাল বলেন, দাবি মানা না হলে আগামী ২৭-২৮শে ডিসেম্বর ঢাকা ও চট্টগ্রাম নগরীতে ধর্মঘট পালন করা হবে। এরপরও দাবি মানা না হলে ১৫ জানুয়ারি থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটে যাবেন শ্রমিকরা।

এসময় তিনি বিআরটিএ’র অনুমোদনহীন উবার, পাঠাওসহ অন্যান্য অ্যাপনির্ভর যানবাহন চলাচল বন্ধ করার পাশাপাশি ঢাকা ও চট্টগ্রামে মেয়াদোত্তীর্ণ সিএনজি অটোরিকশা অপসারণের দাবি জানিয়েছেন। দুলাল বলেন, উবার ও পাঠাওয়ের কারণে সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালকদের উপার্জন কমে গেছে। এর আগেও সংগঠনটি ধর্মঘটের ডাক দিলেও অন্যান্য অটোরিকশা চালকরা তাতে সায় দেয় নি।

উল্লেখ্য, অ্যাপভিত্তিক পরিবহন সার্ভিস ‘উবার’ ও ‘পাঠাও’-এর মতো পরিবহন সেবা জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করায় ‘ট্রিপ’ কমে গেছে সিএনজিচালিত অটোরিকশার। বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সিএনজিচালকরা। তাঁদের ভাষ্য, উবার-পাঠাও কম ভাড়ায় যাত্রী পরিবহন করছে, যার ফলে সিএনজির দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন যাত্রীরা। ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থেকেও ট্রিপ পাচ্ছেন না সিএনজিচালকরা। এ কারণে দিন শেষে তাঁদের জমার টাকা পর্যন্ত তোলা কষ্টকর হয়ে যাচ্ছে।

যাত্রীদের অভিযোগ, সিএনজিচালকরা প্রায় জিম্মি করেই যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করে থাকেন। তবে বর্তমানে অ্যাপভিত্তিক পরিবহন সার্ভিস ‘উবার’ ও ‘পাঠাও’ জনপ্রিয় হতে শুরু করায় সিএনজির চালকদের সেই সুযোগ এখন অনেকটাই কমে গেছে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত