শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাসায় প্রবাসীর স্ত্রীর অনশন



নিউজ ডেস্ক::গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাসায় তিনদিন ধরে অনশন করছে রমা বিশ্বাস (২২) নামে এক কাতার প্রবাসীর স্ত্রী। বুধবার (২০ ডিসেম্বর) থেকে উপজেলার রামদিয়া বাজারে প্রেমিক বিপ্লব দাসের বাসায় অনশন শুরু করেন তিনি। বিষয়টি স্থানীয়রা সমাধান করার আশ্বাস দিলেও বর্তমানে প্রেমিক বিপ্লব দাস (২৫) বাসা ছেড়ে অন্যত্র গাঁ ঢাকা দিয়েছেন। এ দিকে বিয়ের দাবি না মানলে প্রেমিকের বাসায় আমরণ অনশন করার ঘোষণা দিয়েছে রমা বিশ্বাস।

রমা বিশ্বাস উপজেলার নিজামকান্দি গ্রামের নির্মল বিশ্বাসের মেয়ে ও রামদিয়া সরকারি এসকে কলেজের ডিগ্রি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী।

জানা গেছে, তিন বছর আগে উপজেলার জোতকুরা গ্রামের কার্ত্তিক চন্দ্র বিশ্বাসের ছেলে মনোরঞ্জন বিশ্বাসের সাথে রমা বিশ্বাসের বিয়ে হয়। এর কিছুদিন পর রমার স্বামী মনোরঞ্জন কাতারে চলে যান। এরপর থেকে একই উপজেলার রামদিয়া গ্রামের গোবিন্দ দাসের ছেলে সাথে রমা বিশ্বাসের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

এক পর্যায়ে গত ১৯ ডিসেম্বর দুইজনে পার্শ্ববর্তী নড়াইল জেলার নড়াগাতী থানার পানিপাড়া অরুনিমা রিসোর্টে ঘুরতে যায়। রিসোর্ট থেকে বাড়িতে ফেরার পথে সুমন মিয়া ও উজ্জ্বল বিশ্বাস নামে দুই যুবকের নেতৃত্বে ৫-৬ জন যুবক সংঘবদ্ধ হয়ে তাদের ধাওয়া করে ধরে প্রেমিক বিপ্লবকে মারপিট করে এবং প্রেমিকা রমা বিশ্বাসকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় তারা আর্তচিৎকার দিলে স্থানীয়রা এসে ওই দুর্বৃত্তদের হাত থেকে তাদের দুইজনকে রক্ষা করে।

এ সময় রমার কাছে থাকা স্বর্ণালংকার কেড়ে নিয়ে যায় ওই যুবকেরা বলে অভিযোগ করেন রমা বিশ্বাস। পরে তারা রিসোর্ট কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় নড়াগাতী থানায় গিয়ে ওই যুবকদের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। পরে পুলিশ ওই যুবকদের আটক করে।

এ খবর এলাকায় জানাজানি হয়ে গেলে রমা বিশ্বাস লোকলজ্জার ভয়ে বিয়ের দাবিতে প্রেমিক বিপ্লব দাসের বাসায় অনশন শুরু করেন। এ ঘটনার পর থেকে প্রেমিক বিপ্লব দাস এলাকা ছেড়ে গা ঢাকা দিয়েছেন।

প্রেমিকা রমা বিশ্বাস বলেন, ‘বিপ্লব দাস বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে আমাকে ঘর ছাড়তে বাধ্য করেছে এবং আমার সাথে শারীরিক সম্পর্ক করেছে। এখন সে বিয়ে না করলে আত্মহত্যা করা ছাড়া আমার কোনো উপায় নেই।’

বিপ্লব দাসের বাবা গোবিন্দ দাস রমা বিশ্বাসের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘ওই মেয়ের সঙ্গে আমার ছেলের কোনো সম্পর্ক নেই। সমাজে আমাকে হেয় করার জন্য বিয়ের দাবিতে সে বাসায় আসে।’এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বিপ্লব দাসের বাসায়ই রমা বিশ্বাস অবস্থান করছে।

কাশিয়ানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম আলীনুর হোসেন এ বিষয়ে বিডি২৪লাইভকে জানান, এ ধরণের কোন অভিযোগ পাইনি। তবে, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত