বুধবার, ১৫ অগাস্ট ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ভি.পি হতে পারি নি!, সব শিক্ষার্থীদের কল্যানে কাজ করেছি



মৌলভীবাজার সরকারি কলেজে ছাত্র সংসদ নির্বাচন না হওয়ায় (ভি.পি) হতে পারি নি! অনেক চেস্টা করেছি অনেক আন্দোলন সংগ্রাম করেছি নির্বাচন সচল করার জন্য।

নির্বাচন হলে যদি স্বতন্ত্রও (ভি.পি) প্রার্থী হতাম ১০০% (ভি.পি) নির্বাচিত হতাম। কারণ যখনি সাধারণ শিক্ষার্থীদের সমস্যা হয়েছে তাদের পাশে ছায়ার মতো থেকেছি, এমনকি যেকোনো সময় তাদের আমি ডাকদিলে তারাও চলে এসেছে। কলেজের ইতিহাসে অন্য কোনো ছাত্র সংগঠনের নেতারা সাধারণ শিক্ষার্থীদের এক করতে পারেনি। আমাকে এতো ভালোবাসার জন্য শিক্ষার্থীদের প্রতি রইলো আমার অন্তরের অন্তস্তল থেকে ভালোবাসা। ৮ দফা দাবি দিয়েছিলাম অলরেডি ১ম দফা দাবি ১০ তলা ভবন গ্রান্ট হয়েছে। সদ্য সাবেক প্রিন্সিপাল সৈয়দ মুহিবুল ইসলাম স্যার কে মানববন্ধনে অভ্যন্তরীন দাবির মধ্যে জানিয়েছিলাম কলেজে টিক মত ক্লাস নেয়া আর (সি.সি) ক্যামেরার আওতাধীন করার জন্য। উনি কলেজের জন্য আমার দবি রেখেছেন, (সিসি) ক্যামেরা লাগিয়েছেন।

(ভি.পি) না হয়েও (ভি.পি)’র চেয়ে ১০০ গুন বেশি কাজ করেছি। যা বিগত সময় অনেক (ভি.পি) (জি.এস) ও করতে পারেন নি। কিন্তু আমার এই কাজ কিছুদিন পর মানুষ ভুলে যাবে,কারন ছাত্র সংসদের প্লাটফর্মে গিয়ে এই কাজ করলে সবাই মনে রাখত যে ঐ (ভিপি)’র সময়ে এই উন্নয়ন হয়েছিল। কিন্তু মনে না রাখলে ও আমার মনের ভিতর শান্তি যে আমি সব শিক্ষার্থীদের কল্যানে কাজ করেছি।। আজকে অন্যান্য বিষয়ে মাস্টার্স চালু করার জন্য ভিসি স্যার কে কল দেই, চালু করবেন বলে আমাকে আশসস্ত করেন যার কল লাউড স্পিকার দিয়ে প্রিন্সিপাল ড. ফজলুল আলী স্যার কে শোনাই। গত কিছুদিন আগেও এই বিষয়ে ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর ড. হারুনুর রশীদ স্যারের সাথে দেখা করি।

জানিনা ছাত্র রাজনীতিতে কতটুকু সফল। শুধু কলেজের উন্নয়নে সবার সহযোগিতা ও দোয়া চাই।

 

(লিখাটি বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাকের আহমেদ অপুর ফেইসবুক থেকে নেয়া)

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত