রবিবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বন্যা সমস্যার স্থায়ী সমাধানের দাবিতে শনিবার গণজমায়েত



নিজস্ব প্রতিবেদক:
মৌলভীবাজারের বন্যা সমস্যার স্থায়ী সমাধানের লক্ষে নদী-হাওর খনন, বাধ রক্ষা ও বন্যা মুক্ত জেলার দাবীতে বিশাল গণজমায়াত এর আয়োজন করেছে বন্যা প্রতিরক্ষায় প্রেসার গ্রুপ।

শনিবার ২৮ জুলাই সকাল ১১টায় মৌলভীবাজার প্রেসক্লাব প্রাঙ্গনে এই গণজমায়াত অনুষ্ঠিত হবে।

প্রবাসী অধ্যুষিত ও জীব বৈচিত্রে ভরপুর, নৈসর্গিক প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলা ভূমি মৌলভীবাজারা জেলা। ভূগোলিক অবস্থানগত কারনে এখানকার উচুঁ নীচু পাহাড় টিলা নদী হাওর গাঙ্গ আর খাল বিল যেমন রয়েছে। তেমনি এখানকার চা, রাবার, আগর, লেবু বাগান আর হাওর ও নদীতে দেশীয় প্রজাতির মিঠাপানির মাছসহ নানা জলজ উদ্ভিদ জীববৈচিত্র ও ক্ষেত কৃষি আমাদের ঐতিহ্যবাহী বুনিয়াদি সম্পদ। দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত মৌলভীবাজার জেলা একটি বন্যা প্রবণ এলাকা।

 

উজানে ভারী বর্ষণ বৃদ্ধি, দীর্ঘদিন থেকে এ জেলার নদী ও হাওর খনন না হওয়াতে নাব্যতা হ্রাস। নদী ও হাওরের প্রতিরক্ষা বাঁধসমূহ নিয়মিত মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণসহ স্থায়ী বন্যা প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় এখন প্রতিবছর বর্ষা মৌসুম এলেই জেলার মনু,ধলাই,ফানাই,সোনাই,জুড়ী,গোপলা, কুশিয়ারা নদী ও হাকালুকি, কাউয়াদিঘি আর হাইল হাওরের বাঁধ ভেঙ্গে প্লাবিত হয় গ্রামের পর গ্রাম।
মৌলভীবাজার শহরের কাছে মনু বিপদসীমার ১৮১ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রাহিত হয়েছে। ১৯৮৪ সালের পর মনুর আগ্রাসী রূপ দেখেছে জেলা শহরের ৩টি ওয়ার্ডের মানুষ। উজানের ঢল ও বর্ষণে মনু, ধলাই ও কুশিয়ারা নদীর ৩৮টি স্থানে প্রতিরক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে জেলার ৪টি উপজেলার ২টি পৌরসভাসহ প্রায় ৪০ টি গ্রামের ৪ লক্ষাধিক মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। ঘরবাড়ি,ক্ষেতকৃষি আর সহায় সম্বল হারিয়ে বন্যার্তরা এখন নি:স্ব।

 

মৌলভীবাজার জেলা বন্যা প্রতিরক্ষায় প্রেসার গ্রুপ জানায়, “বন্যা নিয়ন্ত্রণে বন্যার আগে ও পরে এনিয়ে কোন স্থায়ী উদ্যোগ কিংবা মহাপরিকল্পনা নিয়ে তা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে না। এভাবেই কাটছে বছরের পর বছর। নৌপথে যোগাযোগ, মৎস্য উৎপাদন ও কৃষি চাষে নদ-নদীর পানি মানুষের জীবনধারাকে সহজ করেছে। আমাদের নদ-নদীগুলো কেন সম্পদ না হয়ে আতঙ্ক হবে। আমরা এই বন্যা ভীতি থেকে বেরিয়ে আসতে চাই। বন্যা সমস্যার স্থায়ী সমাধানের জন্য আমরা এই জেলার বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ সম্মিলিতভাবে সোচ্চার হতে চাইছি। কথা না বললে কেউ আর এই সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসবেনা।”

 

 

#দৈনিক মৌলভীবাজার/ওমর ফারুক নাঈম/মৌলভীবাজার/ওফানা

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত