বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মৌলভীবাজার পৌর শহরের যেসব স্থানে কোরবানি করা যাবে



মৌলভীবাজারের স্টেডিয়াম মাঠে উঠেছে বিরাট দুটি ষাড়। উভয়ের দাম প্রায় ৬লক্ষা টাকা।

নিজস্ব প্রতিবেদক::

মৌলভীবাজার শহরকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে পৌরসভার নির্ধারিত স্থানে কুরবাণীর পশু জবাই করতে পৌরবাসীকে আহবান জানিয়েছেন মৌলভীবাজার পৌরসভার মেয়র। এজন্য পবিত্র ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে মৌলভীবাজার পৌরসভায় পশু কুরবাণীর জন্য ৩৬টি স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। নির্ধারিত স্থান ব্যতীত অন্য কোথাও পশু কুরবাণী করা যাবে না।

 

মৌলভীবাজার পৌরসভা সূত্রে জানা যায়, যে স্থানগুলোতে কুরবাণীর পশু জবাই করা যাবে,  মৌলভীবাজার পৌরসভা প্রাঙ্গণ, সৈয়ারপুর রিয়াসত উল্লাহ মসজিদের খোলা প্রাঙ্গণ, কাশীনাথ রোডে নাহিদ আহমদের বাসার সামনের খোলা মাঠ, কলেজ হোস্টেল মাঠ, বড়বাড়ী জামে মসজিদ মাঠ, বড়বাড়ী ফজলুল আহমদের বাড়ির সামনের আঙ্গিনা, উত্তর কলিমাবাদ হাজী সাহেবের বাড়ির সামনের আঙ্গিনা, দক্ষিণ কলিমাবাদ মুশফিক সাহেবের বাড়ী, নওয়াগাঁও রাসেলের বাড়ী, ছুবরা লিয়াকত আলীর বাড়ী, লেইক রোডে জব্বার খাঁর বিল্ডিংয়ের সামনে খোলা জায়গা, শান্তিবাগ নদী পাড়ের খোলা জায়গা, পৌরসভা পানি অফিসের সামনে খোলা জায়গা, সাবেক কাউন্সিলর ওলিউর রহমানের বাড়ির আঙ্গিনা, হাজী আতাউর রহমানের বাড়ি, মিতা স্যানীটারির বাসার সামনের জায়গা, মাখা মিয়ার বাড়ি, বড়হাট পৌর মেয়রের বাড়ী, কমিশনার জালাল সাহেবের বাড়ী, সৈয়দ জয়নাল আবেদীন কুটির বাড়ী ও মৌলভীবাজার প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম উমেদ আলীর বাড়ির সামনের আঙ্গিনা সহ মোট ৩৬টি স্থানে কুরবাণীর পশু জবাই করা যাবে।

 

মৌলভীবাজার পৌরসভার মেয়র মোঃ ফজলুর রহমান বলেন, কুরবাণীর পশুর ময়লা নির্ধারিত স্থানে গর্ত করে ফেলতে হবে। কোন অবস্থাতেই ময়লা আবর্জনা ডেনে ফেলা যাবে না। ময়লা আবর্জনা নির্ধারিত স্থান ব্যতীত ডেনে ফেললে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত