বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মৌলভীবাজার এলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী: সরকারি মেডিকেল কলেজের দাবিও হচ্ছে জোরালো



ওমর ফারুক নাঈম:

মৌলভীবাজারে সরকারি মেডিকেল কলেজ চাই। এই দাবী নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে চলছে আন্দোলন। ২৫ লক্ষ মানুষের দীর্ঘদিনের এই দাবী কবে বাস্তবায়ন হবে তা নিয়ে রয়েছে নানা সংশয়। জেলার জনসাধারণের মাঝে বিরাজ করছে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া। আজ মঙ্গলবার মৌলভীবাজার আসছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তার আগমনে যৌক্তিক এই দাবী আরোও জোরালো হয়ে উঠেছে ক্ষুদ্ধ জেলাবাসী ও কয়েক লক্ষ প্রবাসীদের কাছে।

প্রবাসী ও পর্যটন অধূষিত প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি মৌলভীবাজার জেলা। ২০০৫ সালে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালকে ২৫০ শয্যায় উন্নীত করেছিল চারদলীয় জোট সরকার। আধুনিক ভবনটির উদ্বোধন করেছিলেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তৎকালীন অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী এম সাইফুর রহমান মৌলভীবাজারে মেডিকেল কলেজ স্থাপনের আশ্বাসও দিয়েছিলেন। ২৭৯৯ বর্গ কি:মি: এর এই জেলায় সরকারি মেডিকেল কলেজের দাবী নিয়ে প্রবাস ও দেশে কয়েক বছর ধরে দফায় দফায় আন্দোলন চলছে। মানবন্ধন, সমাবেশ, গোলটেবিল বৈঠক, সমাবেশ, গণ-সাক্ষর অভিযান ও স্মারকলিপি প্রদানের মাধ্যমে দাবীটি তুলে ধরা হচ্ছে।

জানা যায়, ২৩শে জানুয়ারি এই দাবিটি সংসদে তুলে ধরেন স্থানীয় সংসদ সদস্য। দাবীটি নিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়া সংগঠন মেডিকের কলেজ চাই ওয়ার্সঅ্যাপ গ্রুপ সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণে টানা কর্মসূচি পালন করেছে। একাত্বতা পোষণ করেছে সম্মিলিত সামাজিক উন্নয়ন পরিষদ সহ বিভিন্ন সংগঠন। সম্প্রতি জেলা আওয়ামলীগের নেতৃবৃন্দ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকিরের নেতৃত্বে দাবীটি নিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করে তুলে ধরেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী আশ্বাস প্রদান করেছেন বলে জানিয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো: ফজলুর রহমান। আজ ৪ সেপ্টেম্বর মৌলভীবাজারে আসছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। তার আগমনে মেডিকেল কলেজে ঘোষণা হওয়ার দাবীটি জোরাল হয়ে উঠেছে।

এনিয়ে মৌলভীবাজার ৩ আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দা সায়রা সহসীন দৈনিকমৌলভীবাজারকে বলেন, সংসদে আমি সব সময়ই দাবী নিয়ে বক্তব্য রেখেছি। এখন দাবিটি বাস্তবায়নের জন্য সরকারী ঘোষণার অপেক্ষায় রয়েছে। জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান দৈনিকমৌলভীবাজারকে বলেন, প্রয়াত মন্ত্রী সাইফুর রহমান মেডিকের কলেজ প্রতিষ্ঠার জন্য সব প্রক্রিয়াধীন রেখেছিলেন। সিলেট বিভাগের সব জেলার মধ্যে আমাদের জেলা সবদিকে সয়ংসম্পূর্ণ। তারপরও আমাদের এই দাবীটি কেন বাস্তবায়ন হচ্ছে না? মন্ত্রীর কাছে দাবী অতি শীগ্রই আমরা মেডিকেল কলেজ চাই। আন্দোলনকারী সংগঠনের এডমিন সাবেক ছাত্রনেতা মকিস মনসুর দৈনিকমৌলভীবাজারকে বলেন, মৌলভীবাজারবাসী কিছুতেই পিছিয়ে নেই। আমরা মেডিকেল কলেজ দ্রুত বাস্তবায়নের চূড়ান্ত অনুমোদন চাই। এই দাবী নিয়ে আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছি। প্রয়োজনে আরোও কঠোর আন্দোলন হবে। উপদেষ্ঠা প্রবাসী নেতা ড. ওয়ালি তসর উদ্দিন দৈনিকমৌলভীবাজারকে বলেন, এটি একটি যৌক্তিক দাবী। দেশের বড় একটি রাজস্বের অর্থ প্রবাসীদের কাছ থেকে আসে। সেই অর্থে দেশ চলে। তাহলে প্রবাসীদের জেলায় কেন মেডিকেল কলেজ দেয়া হচ্ছে না।

এনিয়ে বিভিন্ন প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বিশিষ্ট ব্যাংকার ও কলামিষ্ট আবু তাহের, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব খালেদ চৌধূরী, সংগঠক ডা: ছাদিক আহমদ, সাংবাদিক শাজান মিয়া, সংগটক এম মুহিবুর রহমান মুহিব, আলিম উদ্দিন হালিম, সহ সুশিল সমাজের প্রতিনিধিরা দৈনিকমৌলভীবাজারকে জানান, মৌলভীবাজারবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি সরকারি মেডিকেল কলেজ। আর এই দাবী দ্রুত বাস্তবায়নের দাবিতে আন্দোলন চলছে। সম্প্রতি নতুন চারটি মেডিকেল কলেজ ঘোষণায় মৌলভীবাজারকে অন্ত:ভুক্ত না করায় আমরা হতাশ। ২৫ লক্ষ মানুষ বছরের পর বছর একটি মেডিকেল কলেজের দাবি জানিয়ে আসছে। দেশ বিদেশে সভা সেমিনার করছে। সরকারে ঘোষণা রয়েছে প্রত্যেক জেলায় মেডিকেল হবে। কিন্তু তার কোন বাস্তবায়ন মৌলভীবাজারবাসী দেখছে না।

এবিষয়ে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যার হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. পার্থ সারথী দত্ত কানুনগো দৈনিকমৌলভীবাজারকে বলেন, আট একরের বেশি ভূমি হাসপাতালের রয়েছে। যেখানে একাডেমিক ভবন ব্যতীত মেডিকেল কলেজের অন্যান্য স্থাপনা নির্মাণ করা সম্ভব হবে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত